জুভেন্টাস ছাড়তে চান, সতীর্থদের জানিয়েছেন রোনালদো!

যে লক্ষ্যে জুভেন্টাসে যোগ দিয়েছিলেন তা পূরণ হয়েছে জানিয়েই কদিন আগে সামাজিকমাধ্যমে বিশাল এক পোস্ট করেছিলেন ক্রিস্তিয়ানো রোনালদো। তাতে অনেকেই ভেবে নিয়েছেন এবার হয়তো নতুন কোথাও চ্যালেঞ্জ নিতে যাচ্ছেন এ পর্তুগিজ। গুঞ্জন চাউর হয় তার তুরিন ছাড়ার। আর এ গুঞ্জন সত্যি বলেই দাবী করেছে ইতালিয়ান শীর্ষস্থানীয় সংবাদমাধ্যম ইল মেসসাজেরো। ড্রেসিং রুমে সতীর্থদের 'বিদায়' বলে দিয়েছেন বলে সংবাদ প্রকাশ করেছে তারা।
ronaldo juventus
ছবি: টুইটার

যে লক্ষ্যে জুভেন্টাসে যোগ দিয়েছিলেন তা পূরণ হয়েছে জানিয়েই কদিন আগে সামাজিকমাধ্যমে বিশাল এক পোস্ট করেছিলেন ক্রিস্তিয়ানো রোনালদো। তাতে অনেকেই ভেবে নিয়েছেন এবার হয়তো নতুন কোথাও চ্যালেঞ্জ নিতে যাচ্ছেন এ পর্তুগিজ। গুঞ্জন চাউর হয় তার তুরিন ছাড়ার। আর এ গুঞ্জন সত্যি বলেই দাবী করেছে ইতালিয়ান শীর্ষস্থানীয় সংবাদমাধ্যম ইল মেসসাজেরো। ড্রেসিং রুমে সতীর্থদের 'বিদায়' বলে দিয়েছেন বলে সংবাদ প্রকাশ করেছে তারা।

সংবাদে তারা জানিয়েছে, জুভেন্টাসের অনুশীলন গ্রাউন্ড কনতিনাসাতে সতীর্থদের ক্লাব ছাড়ার আলোচনা করেছেন রোনালদো। ওল্ড লেডিদের হয়ে ১৩৩ ম্যাচে ১০১টি গোল করার এই গ্রীষ্মেই নতুন কোনো ক্লাবে যোগ দেওয়ার ইচ্ছার কথা জানিয়েছেন তিনি। তবে ঠিক কোন ক্লাবে যেতে চান, তা খোলাসা করে বলেননি পাঁচ বারের ব্যালন ডি'অর জয়ী এ তারকা।

বর্তমানে ইউরোপিয়ান চ্যাম্পিয়নশিপ ২০২০ খেলতে বর্তমানে জাতীয় দলের ক্যাম্পে রয়েছেন রোনালদো। লিসবনে এ ক্যাম্পে তার সঙ্গে মুখপাত্র জর্জ মেন্ডিসও গিয়েছেন। তাতে তার সাবেক ক্লাব স্পোর্টিং লিসবনে ফেরার গুঞ্জনও তৈরি হয়। কারণ কদিন আগেই রোনালদোর মা জানিয়েছিলেন, আগামী মৌসুমে স্বদেশী এ ক্লাবে খেলবেন এ তারকা। কিন্তু এ গুঞ্জন উড়িয়ে দিয়েছেন মেন্ডিস, 'ক্রিস্তিয়ানো স্পোর্টিংয়ে হয়ে শিরোপা জিততে পারলে গর্বিত হবেন। তবে ক্যারিয়ারের এ পর্যায়ে তার পর্তুগালে ফেরার ইচ্ছা নেই।'

তবে আন্তর্জাতিক গণমাধ্যমের সংবাদ অনুযায়ী, ম্যানচেস্টার ইউনাইটেডে ফেরার সম্ভাবনা রয়েছে রোনালদো। সম্ভাব্য তালিকায় রয়েছে ফরাসি ক্লাব প্যারিস সেইন্ট জার্মেইর (পিএসজি) নামও। এখন দেখার বিষয় শেষ পর্যন্ত কি সিদ্ধান্ত নেন এ তারকা।

অবশ্য রোনালদোর জুভেন্টাস ছাড়ার গুঞ্জন ছিল অনেক দিন আগে থেকেই। মূলত চ্যাম্পিয়ন্স লিগে জুভেন্টাসের জায়গা না পেলে তিনি ক্লাব ছাড়তে পারেন বলে ধারণা করেছিল অনেকেই। কিন্তু নানা নাটকীয়তার পর শেষ পর্যন্ত চ্যাম্পিয়ন্স লিগে জায়গা করে নিয়েছে দলটি। তারপরও কেন তুরিনে থাকতে চান না এ বিষয়টি এখনও খোলাসা হয়নি।

Comments

The Daily Star  | English
US supports democratic Bangladesh

US supports a prosperous, democratic Bangladesh

Says US embassy in Dhaka after its delegation holds a series of meetings with govt officials, opposition and civil groups

6h ago