সাতক্ষীরায় গত ২৪ ঘণ্টায় করোনা শনাক্তের হার ৩১.১৮ শতাংশ

ভারতের সীমান্তবর্তী বাংলাদেশের দক্ষিণের জেলা সাতক্ষীরায় করোনার সংক্রমণ বেড়েই চলেছে। এ জেলায় গত ২৪ ঘণ্টায় করোনা শনাক্তের হার ৩১ দশমিক ১৮ শতাংশ। করোনার সংক্রমণ নিয়ন্ত্রণে এ জেলার সীমান্ত দিয়ে যাতে অবৈধভাবে ভারত থেকে কেউ দেশে প্রবেশ করতে না পারে সেজন্য বিজিবি টহল জোরদার করেছে।
স্টার অনলাইন গ্রাফিক্স

ভারতের সীমান্তবর্তী বাংলাদেশের দক্ষিণের জেলা সাতক্ষীরায় করোনার সংক্রমণ বেড়েই চলেছে। এ জেলায় গত ২৪ ঘণ্টায় করোনা শনাক্তের হার ৩১ দশমিক ১৮ শতাংশ। করোনার সংক্রমণ নিয়ন্ত্রণে এ জেলার সীমান্ত দিয়ে যাতে অবৈধভাবে ভারত থেকে কেউ বাংলাদেশে প্রবেশ করতে না পারে সেজন্য বিজিবি টহল জোরদার করেছে।

এদিকে, সাতক্ষীরা সীমান্ত দিয়ে অবৈধভাবে ভারত থেকে বাংলাদেশে প্রবেশের সময় মঙ্গলবার রাতে ১০ বাংলাদেশিকে আটকে করেছে বিজিবি। তাদের কালিগঞ্জ উপজেলার নলতা আহছানিয়া মিশনের বিশ্রমাগারে কোয়ারেন্টিনে রাখা হয়েছে।

সাতক্ষীরা বিজিবি ৩৩ ব্যাটালিয়ন অধিনায়ক লে. কর্নেল আল মাহমুদ ১০ জনকে আটকের তথ্য দ্য ডেইলি স্টারকে নিশ্চিত করেছেন।

তিনি বলেন, ‘বিজিবি সদস্যরা কয়েক সপ্তাহ ধরে সাতক্ষীরা সীমান্তে টহল জোরদার করেছে। যাতে কোনো অবস্থায় ভারত থেকে অবৈধভাবে মানুষ বাংলাদেশে ঢুকতে না পারে। মঙ্গলবার টহল দল সাতক্ষীরা সীমান্তের বিভিন্ন স্থান ১০ জনকে আটক করেছে। তারা ভারত থেকে বাংলাদেশে প্রবেশ করছিল।’

সাতক্ষীরা সিভিল সার্জনের দপ্তর সূত্রে জানা গেছে, সাতক্ষীরার সরকারি ও বেসরকারি  হাসপাতাল মিলিয়ে আজ পর্যন্ত ২১৩ জন করোনার রোগী চিকিৎসাধীন। এছাড়া, গত ২৪ ঘণ্টায় আরও ৯৩ জনের নমুনা পরীক্ষায় ২৯ জনের করোনা শনাক্ত হয়েছে। শতকরা হারে শনাক্তের ৩১ দশমিক ১৮ শতাংশ।

সাতক্ষীরা সিভিল সার্জন ডা. হুসাইন সাফায়াত জানান, এ পর্যন্ত সাতক্ষীরায় করোনা উপসর্গ নিয়ে মারা গেছে ২১৯ জন ও করোনা আক্রান্ত হয়ে মারা গেছেন ৪৭ জন। ঈদের আগের সপ্তাহে সাতক্ষীরায় করোনা সংক্রমণের হার ছিল ১৩ শতাংশ। ঈদের পর তা বাড়তে শুরু করে। মে মাসের শেষ সপ্তাহে এসে দাঁড়ায় ৪১ শতাংশে।

সাতক্ষীরা সদর হাসপাতালে আবাসিক চিকিৎসা কর্মকর্তা ফয়সাল হোসেন জানান, হাসপাতালে ২৭ জন করোনা রোগী চিকিৎসাধীন। ৪০টি শয্যা বাড়িয়ে ৫০ শয্যা করা হচ্ছে। সেন্ট্রাল অক্সিজেন সিস্টেম থাকলেও তা চালু করতে দুই সপ্তাহ সময় লাগবে। বড় সিলিন্ডারের মাধ্যমে রোগীদের অক্সিজেন সরবরাহ করা হচ্ছে।   

Comments

The Daily Star  | English
fire incident in dhaka bailey road

Fire Safety in High-Rise: Owners exploit legal loopholes

Many building owners do not comply with fire safety regulations, taking advantage of conflicting legal definitions of high-rise buildings, according to urban experts.

8h ago