চাঁপাইনবাবগঞ্জে ২৪ ঘণ্টায় করোনায় মৃত্যু ৩, শনাক্তের হার ১১.৭২

চাঁপাইনবাবগঞ্জে গত ২৪ ঘণ্টায় করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে আরও তিন জন মারা গেছেন। ২৫০ শয্যা বিশিষ্ট জেলা হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় তারা মারা যান।
Corona BD.jpg
প্রতীকী ছবি। সংগৃহীত

চাঁপাইনবাবগঞ্জে গত ২৪ ঘণ্টায় করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে আরও তিন জন মারা গেছেন। ২৫০ শয্যা বিশিষ্ট জেলা হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় তারা মারা যান।

আজ মঙ্গলবার চাঁপাইনবাবগঞ্জের সিভিল সার্জন জাহিদ নজরুল চৌধুরী দ্য ডেইলি স্টারকে এ তথ্য নিশ্চিত করেন।

তিনি জানান, গত ২৪ ঘণ্টায় ৪১৮ জনের নমুনা পরীক্ষা করে ৪৯ জনের করোনা শনাক্ত হয়েছে। শনাক্তের শতকরা হার ১১ দশমিক ৭২ ভাগ। এর আগের দিন ৩৭১টি নমুনা পরীক্ষায় ৩৫ জনের করোনা শনাক্ত হয়। এর শতকরা হার ছিল নয় দশমিক ৪৩। তার আগের দিন শনাক্তের হার ছিল ১০ দশমিক ৫৯।

এ সময়ে ২৫০ শয্যা বিশিষ্ট জেলা হাসপাতালে করোনা আক্রান্ত হয়ে চিকিৎসাধীন অবস্থায় তিন জন মারা গেছেন। এ নিয়ে জেলায় করোনা আক্রান্ত হয়ে মোট ৭৭ জন মারা গেছেন বলে জানান সিভিল সার্জন।

তিনি জানান, জেলা হাসপাতালে ৭২ শয্যার বিপরীতে ৭২ জন রোগী ভর্তি আছেন। প্রতিদিন রোগী ভর্তি হচ্ছেন।

তিনি বলেন, 'লকডাউন ও বিধি নিষেধের আগেই অনেকে আক্রান্ত হন। সে কারণে হাসপাতালে চাপ কিছুটা বাড়ছে। তবে, এখন আক্রান্তের হার কমছে।'

স্বাস্থ্যবিধি ঠিকমতো মেনে চললে আগামী কিছুদিনের মধ্যে সংক্রমণের হার আরও কমবে বলে জানান তিনি।

সিভিল সার্জন জানান, বর্তমানে জেলায় মোট আক্রান্ত রোগীর সংখ্যা এক হাজার ৩৪৩ জন।

সিভিল সার্জন কার্যালয় সূত্র জানায়, জেলায় গত বছরের ১ মার্চ থেকে ১৭ হাজার ১৬২ জনের নমুনা পরীক্ষা করা হয়। এর মধ্যে তিন হাজার ২১৭ জনের করোনা শনাক্ত হয়েছে।

উল্লেখ্য, জেলায় ঈদের পর সংক্রমণ বেড়ে যাওয়ায় গত ২৫ মে থেকে দুই দফায় ১৪ দিনের কঠোর লকডাউন এবং ৮ জুন থেকে ১৬ জুন পর্যন্ত কঠোর বিধিনিষেধ আরোপ করে জেলা প্রশাসন।

আরও পড়ুন:

চাঁপাইনবাবগঞ্জে আজ করোনা শনাক্তের হার কিছুটা কম, ১২ শতাংশ

চাঁপাইনবাবগঞ্জে আজ কমেছে করোনার সংক্রমণ, ২৪ ঘণ্টায় শনাক্ত ১০.৫৯ শতাংশ

চাঁপাইনবাবগঞ্জে লকডাউনের মেয়াদ ৭ জুন পর্যন্ত বাড়ল

লকডাউন তুলে দিয়ে চাঁপাইনবাবগঞ্জে বিশেষ বিধিনিষেধ আরোপ

চাঁপাইনবাবগঞ্জে করোনা ইউনিটে শয্যা সংখ্যা বাড়ল আরও ১২টি

Comments

The Daily Star  | English

JS passes Speedy Trial Bill amid protest of opposition

With the passing of the bill, the law becomes permanent; JP MPs say it may become a tool to oppress the opposition

22m ago