বাংলাবাজার-শিমুলিয়া নৌপথ

নিষেধাজ্ঞা অমান্য করে ফেরি পার হচ্ছেন ঢাকামুখী মানুষ

মাদারীপুরের বাংলাবাজার ও মুন্সিগঞ্জের শিমুলিয়া নৌপথে আজ মঙ্গলবার ভোর ছয়টা থেকে নিষেধাজ্ঞা অমান্য করে ও স্বাস্থ্যবিধি না মেনে যাত্রীদের ফেরি হতে দেখা গেছে। সকাল থেকে এই নৌপথে ১৪টি ফেরি চলাচল করছে যা এ নৌপথের স্বাভাবিক সংখ্যা। তবে, বন্ধ আছে লঞ্চ ও স্পিডবোট চলাচল।
নিষেধাজ্ঞা অমান্য করে ও স্বাস্থ্যবিধি না মেনে যাত্রীরা ফেরি হচ্ছেন। ছবিটি সকালে শিমুলিয়া ফেরি ঘাট থেকে তোলা। ছবি: স্টার

মাদারীপুরের বাংলাবাজার ও মুন্সিগঞ্জের শিমুলিয়া নৌপথে আজ মঙ্গলবার ভোর ছয়টা থেকে নিষেধাজ্ঞা অমান্য করে ও স্বাস্থ্যবিধি না মেনে যাত্রীদের ফেরি হতে দেখা গেছে। সকাল থেকে এই নৌপথে ১৪টি ফেরি চলাচল করছে যা এ নৌপথের স্বাভাবিক সংখ্যা। তবে, বন্ধ আছে লঞ্চ ও স্পিডবোট চলাচল।

বিআইডব্লিউটিসি’র শিমুলিয়া ঘাটের ব্যবস্থাপক প্রফুল্ল চৌহান জানান, জরুরি পরিষেবার গাড়ি পারের সময় যাত্রীরা ফেরিতে উঠে যাচ্ছে। তাদের আটকানো সম্ভব হচ্ছে না। এসব যাত্রীদের যদি পথেই আটকানো না হয় তাহলে ঘাটে আটকানো অসম্ভব হয়ে যাবে।

সকাল থেকেই ঘাটে ভিড় করতে শুরু করেন যাত্রীরা। ছবি: স্টার

তিনি আরও বলেন, ভোর থেকে এ নৌপথে ১৫টি ফেরি চলাচল করছে। ফেরিগুলোতে ঢাকাগামী যাত্রীদের উপস্থিতি বেশি আছে। লৌহজং উপজেলার শিমুলিয়াঘাটে পারের অপেক্ষায় গাড়ি নেই। যেসব গাড়ি আসছে এসব সরাসরি ফেরিতে চলে যাচ্ছে।

তিনি আরও বলেন, গতকাল মাদারীপুরের শিবচরে ইউপি নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়েছিল। ফলে অনেকে আজ ফিরে যাচ্ছেন। সময় বাড়ার সঙ্গে সঙ্গে যাত্রীদের চাপ বাড়ছে। অ্যাম্বুলেন্স, পণ্যবাহী গাড়িসহ জরুরি পরিষেবার আওতাধীন যানবাহনও পার হচ্ছে।

ঝুঁকি নিয়ে ফেরিতে ওঠেন যাত্রীরা। ছবি: স্টার

ঢাকা-মাওয়া এক্সপ্রেসওয়ের হাসাড়া হাইওয়ে পুলিশের ইনচার্জ অফিসার মো. আফজাল হোসেন জানান, একটি চেকপোস্টের মাধ্যমে সরকারি নিষেধাজ্ঞা অনুযায়ী যানবাহনগুলোকে নজরদারি করা হচ্ছে। যেসব গাড়ি উপযুক্ত কারণ দেখাতে পারছে না তাদেরকে ফিরিয়ে দেওয়া হচ্ছে। ব্যাটারিচালিত অটোরিকশা, সিএনজি, মাইক্রোবাস এসব সার্ভিস লেন ব্যবহার করে চলাচল করছে। সেগুলো থানা পুলিশের নজর রাখার কথা। অনেক যাত্রীকে পরিবহণ সংকটের কারণে পায়ে হেঁটেও যাতায়াত করতে দেখা গেছে।

মুন্সিগঞ্জের  অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (প্রশাসন ও অপরাধ) সুমন দেব জানান, ঢাকা থেকে মুন্সিগঞ্জ জেলাকে বিচ্ছিন্ন করতে বিভিন্ন স্থানে পুলিশের চেকপোস্ট বসানো হয়েছে। পুলিশ সাধ্যমতো চেষ্টা করছে লকডাউনের নির্দেশনা বাস্তবায়নের।

Comments

The Daily Star  | English

How Lucky got so lucky!

Laila Kaniz Lucky is the upazila parishad chairman of Narsingdi’s Raipura and a retired teacher of a government college.

7h ago