শীর্ষ খবর

কলকাতায় শুরু হচ্ছে বাংলাদেশ বিজয় উৎসব

প্রতিবছরের মতো এবারও কলকাতায় শুরু হচ্ছে বাংলাদেশ বিজয় উৎসব। গত তিন বছর এই আয়োজন কলকাতার নেতাজি ইনডোরে হলেও এবার থেকে পুরনো জায়গা কলকাতার বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান সরণির বাংলাদেশ উপদূতাবাস চত্বরেই আয়োজন করা হচ্ছে।
Bijoy Utsab press conference in Kolkata
১৩ ডিসেম্বর ২০১৭, কলকাতায় বাংলাদেশ উপদূতাবাসে বিজয় উৎসবের প্রস্তুতি নিয়ে আয়োজিত সাংবাদিক সম্মেলনে উপস্থিত ছিলেন বাংলাদেশের উপরাষ্ট্রদূত তৌফিক হাসান, কনসুলার (ভিসা) মনছুর আহমেদ বিপ্লব, কনসুলার (পলিটিক্যাল) বিএম জামাল হোসেন, প্রথম সচিব (প্রেস) মোফাকখারুল ইকবাল। ছবি: স্টার

প্রতিবছরের মতো এবারও কলকাতায় শুরু হচ্ছে বাংলাদেশ বিজয় উৎসব। গত তিন বছর এই আয়োজন কলকাতার নেতাজি ইনডোরে হলেও এবার থেকে পুরনো জায়গা কলকাতার বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান সরণির বাংলাদেশ উপদূতাবাস চত্বরেই আয়োজন করা হচ্ছে।

আগামী ১৫ ডিসেম্বর শুরু হবে পাঁচ দিনব্যাপী এই উৎসব। এর শুরু ও শেষ দিন পর্যন্ত বাংলাদেশের কয়েকজন শীর্ষ রাজনীতিবিদ ও মন্ত্রী উপস্থিতি থাকবেন। থাকবেন পশ্চিমবঙ্গের কয়েকজন জ্যেষ্ঠ মন্ত্রীও। এছাড়াও, দুই বাংলার জনপ্রিয় শিল্পীদের দেখা যাবে উৎসবের বিভিন্ন দিনের সাংস্কৃতিক আয়োজনে।

গতকাল (১৩ ডিসেম্বর) কলকাতার বাংলাদেশ উপদূতাবাসে বিজয় উৎসবের প্রস্তুতি নিয়ে আয়োজিত সাংবাদিক সম্মেলনে উপস্থিত ছিলেন বাংলাদেশের উপরাষ্ট্রদূত তৌফিক হাসান, কনসুলার (ভিসা) মনছুর আহমেদ বিপ্লব, কনসুলার (পলিটিক্যাল) বিএম জামাল হোসেন, প্রথম সচিব (প্রেস) মোফাকখারুল ইকবাল।

লিখিত বক্তব্যে তৌফিক হাসান জানান, বাংলাদেশের মুক্তিযুদ্ধ-বিষয়ক মন্ত্রী আ ক ম মোজাম্মেল হক বিজয় উৎসবের উদ্বোধন করবেন। সেদিন অতিথি হিসেবে উপস্থিত থাকবেন পশ্চিমবঙ্গের উচ্চশিক্ষা মন্ত্রী পার্থ চট্টোপাধ্যায়।

১৯ ডিসেম্বর সমাপ্তি অনুষ্ঠানে উপস্থিত থাকবেন বাংলাদেশের সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের। বিশেষ অতিথি হিসেবে থাকবেন পশ্চিমবঙ্গের পঞ্চায়েত ও গ্রামোন্নয়ন মন্ত্রী সুব্রত মুখোপাধ্যায়।

বিজয় উৎসবে প্রতিদিন বাংলাদেশ ও ভারতীয় শিল্পীদের উপস্থিতিতে সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান থাকছে। এর মধ্যে রয়েছে রবীন্দ্রসংগীত, নজরুলসংগীত, লোকসংগীত, বাউলগান, লালনগীতি, আধুনিক গান, নাচ ও নাটক। এছাড়াও থাকবে বাংলাদেশের মুক্তিযুদ্ধভিত্তিক একাধিক তথ্য ও চলচ্চিত্র প্রদর্শনী- জানান কনসুলার মনছুর আহমেদ বিপ্লব।

তিনি আরো জানান, শেষ দিনের অনুষ্ঠানে বাংলাদেশের বিশিষ্ট সংগীতশিল্পী কুমার বিশ্বজিৎ ও মমতাজ এবং পশ্চিমবঙ্গের কবীর সুমনকে দেখা যাবে মঞ্চে।

বিজয় উৎসবে মিনি বাণিজ্য মেলাও বসে প্রতিবছর। এবার অবশ্য আয়োজকরা মেলায় কেনা-বেচার ওপর রাশ টেনেছেন।

উপরাষ্ট্রদূত তৌফিক হাসান বলেন, “মেলায় যথারীতি বাংলাদেশি পণ্যের স্টল বসবে। কিন্তু, সেখানে শুধুই প্রদর্শনীর জন্য রাখা হবে দেশীয় পণ্য।”

এদিকে, ভারতীয় সেনাবাহিনীর পূর্বাঞ্চল কমান্ডের সদরদপ্তর কলকাতার ফোর্ট উইলিয়ামে ১৩ ডিসেম্বর থেকে ১৭ ডিসেম্বর পর্যন্ত বিজয় উৎসবের আয়োজন করা হয়েছে। বাংলাদেশের সেনাবাহিনী ও মুক্তিযোদ্ধাদের ৭২ সদস্যের প্রতিনিধি দল এই উৎসবে যোগ দিচ্ছেন।

একইভাবে বাংলাদেশের বিজয় উৎসবে যোগ দিতে ছয় সেনা কর্মকর্তাসহ ৩০ সদস্যের একটি প্রতিনিধি দলও ঢাকার উদ্দেশ্যে কলকাতা ত্যাগ করবেন আজ বৃহস্পতিবার।

Comments

The Daily Star  | English
Raushan Ershad

Raushan Ershad says she won’t participate in polls

Leader of the Opposition and JP Chief Patron Raushan Ershad today said she will not participate in the upcoming election

8h ago