শীর্ষ খবর

দুর্নীতির ধারণা সূচকে বাংলাদেশের দুই ধাপ অগ্রগতি

​ট্রান্সপারেন্সি ইন্টারন্যাশনালের (টিআই) প্রকাশ করা দুর্নীতির ধারণা সূচকে দুই ধাপ অগ্রগতি হয়ে সবচেয়ে দুর্নীতিগ্রস্ত দেশের তালিকায় ১৭তম অবস্থানে উঠেছে বাংলাদেশ। গত বছর বাংলাদেশের অবস্থান ছিল ১৫তম।
ধানমন্ডির মাইডাস সেন্টারে ট্রান্সপারেন্সি ইন্টারন্যাশনাল বাংলাদেশের (টিআইবি) কার্যালয়ে এক সংবাদ সম্মেলনে সংস্থাটির নির্বাহী পরিচালক ড. ইফতেখারুজ্জামান দুর্নীতির ধারণা সূচক ২০১৭ নিয়ে বিভিন্ন তথ্য তুলে ধরেন। ছবি: তুহিন শুভ্র অধিকারী/স্টার

ট্রান্সপারেন্সি ইন্টারন্যাশনালের (টিআই) প্রকাশ করা দুর্নীতির ধারণা সূচকে দুই ধাপ অগ্রগতি হয়ে সবচেয়ে দুর্নীতিগ্রস্ত দেশের তালিকায় ১৭তম অবস্থানে উঠেছে বাংলাদেশ। গত বছর বাংলাদেশের অবস্থান ছিল ১৫তম।

জার্মানির বার্লিনভিত্তিক প্রতিষ্ঠান টিআইয়ের প্রকাশ করা দুর্নীতির ধারণাসূচক ২০১৭-এর প্রতিবেদনে এই তথ্য জানানো হয়েছে। আজ বৃহস্পতিবার রাজধানীর মাইডাস সেন্টারে ট্রান্সপারেন্সি ইন্টারন্যাশনাল বাংলাদেশের (টিআইবি) কার্যালয়ে এক সংবাদ সম্মেলনে সংস্থাটির নির্বাহী পরিচালক ড. ইফতেখারুজ্জামান প্রতিবেদনে প্রকাশিত নানা তথ্য তুলে ধরেন।

প্রতিবেদনে জানানো হয়, ২০১৭ সালে ০-১০০ স্কেলে বাংলাদেশের স্কোর ছিল ২৮, যেখানে তার আগের বছর বাংলাদেশের স্কোর ছিল ২৬।

টিআইবি জানায়, ১০০ এর মধ্যে ৪৩ স্কোরকে গড় স্কোর বিবেচনায় ২০১৭ সালে বাংলাদেশের স্কোর ২৮ হওয়ায় দুর্নীতির ব্যাপকতা এখনও উদ্বেগজনক। সেই সাথে দক্ষিণ এশিয়ায় ৮টি দেশের মধ্যে বাংলাদেশের অবস্থান এখনও বিব্রতকরভাবে আফগানিস্তানের পর দ্বিতীয় সর্বনিম্ন আর এশিয়া প্যাসিফিক অঞ্চলের মধ্যে বাংলাদেশের অবস্থান চতুর্থ সর্বনিম্ন।

তাই সূচকে দুই ধাপ অগ্রগতি হলেও একে সন্তোষজনক বলতে নারাজ টিআইবি। এই সূচকে ২০১২ সাল থেকে দক্ষিণ এশিয়ার দেশগুলোর মধ্যে পঞ্চমবারের মত এবারও দ্বিতীয় সর্বনিম্ন অবস্থানে রয়েছে বাংলাদেশ।

ড. ইফতেখারুজ্জামান বলেন, “কিছুটা অগ্রগতি হওয়ায় এটা আমাদের কাছে সাময়িক স্বস্তিদায়ক মনে হতে পারে। কিন্তু সার্কের ৮ সদস্য রাষ্ট্রের মধ্যে নিচ দিক থেকে দ্বিতীয় হওয়ায় আমাদের খুশি হওয়ার কিছু নেই।” এর জন্য আমাদের আরও অনেক পথ পাড়ি দিতে হবে বলেও তিনি মন্তব্য করেন।

প্রতিবেদন অনুযায়ী, ২০১৭ সালে দক্ষিণ এশিয়ার মধ্যে সবচেয়ে কম দুর্নীতিগ্রস্ত ছিল ভুটান। দেশটির স্কোর ৬৭ এবং ঊর্ধ্বক্রম অনুযায়ী অবস্থান ২৬তম। এর পরের অবস্থানে রয়েছে ভারত। তাদের স্কোর ৪০ এবং অবস্থান ৮১তম। দক্ষিণ এশিয়ায় এর পর রয়েছে শ্রীলঙ্কা। ৩৮ স্কোর নিয়ে ৯১তম অবস্থানে রয়েছে দেশটি। এ বাদে ৩৩ স্কোর পেয়ে ১২২তম অবস্থানে রয়েছে মালদ্বীপ এবং ৩২ স্কোর পেয়ে ১১৭ তম অবস্থানে রয়েছে পাকিস্তান। অন্যদিকে ৩১ স্কোর পেয়ে ১২২ তম অবস্থানে রয়েছে নেপাল। আর সর্বনিম্ন ১৫ স্কোর পেয়ে সূচকে নিম্নক্রমে চতুর্থ হয়েছে আফগানিস্তান।

দুর্নীতির ধারণা সূচক অনুযায়ী সবচেয়ে কম দুর্নীতির দেশ নিউজিল্যান্ড। এর পরই রয়েছে পশ্চিম ইউরোপের দেশ ডেনমার্ক। আর ২০১৬ সালের ধারাবাহিকতায় গত বছরও সবচেয়ে দুর্নীতিগ্রস্ত ছিল সোমালিয়া।

Comments

The Daily Star  | English

Dhaka stares down the barrel of water

Once widely abundant, the freshwater for Dhaka dwellers continues to deplete at a dramatic rate and may disappear far below the ground.

5h ago