বিদ্যুৎ উৎপাদনে ৫ বিলিয়ন ডলার বিনিয়োগ চুক্তি হচ্ছে চীনা কোম্পানির সাথে

দেশের বিদ্যুৎ উৎপাদন খাতে পাঁচ বিলিয়ন ডলার বিনিয়োগ করতে চলেছে চীনের একটি কোম্পানি। এর জন্য বাংলাদেশ ইকোনোমিক জোন অথরিটি (বেজা) কোম্পানিটির সাথে চুক্তি করছে। সবকিছু ঠিক থাকলে আগামী এক মাসের মধ্যেই চুক্তি স্বাক্ষরিত হবে।
রয়টার্স ফাইল ছবি

দেশের বিদ্যুৎ উৎপাদন খাতে পাঁচ বিলিয়ন ডলার বিনিয়োগ করতে চলেছে চীনের একটি কোম্পানি। এর জন্য বাংলাদেশ ইকোনোমিক জোন অথরিটি (বেজা) কোম্পানিটির সাথে চুক্তি করছে। সবকিছু ঠিক থাকলে আগামী এক মাসের মধ্যেই চুক্তি স্বাক্ষরিত হবে।

বাস্তবায়িত হলে দেশের ইতিহাসে এটাই চীনের কোনো কোম্পানির এককভাবে বৃহত্তম বিনিয়োগ হবে।

বিনিয়োগকারী কোম্পানি ঝেজিয়াং জিন্দুন প্রেসার ভেসেল কোম্পানি লিমিটেড বাংলাদেশে একটি কয়লাভিত্তিক বিদ্যুৎকেন্দ্র নির্মাণ করবে। বিদ্যুৎ উৎপাদন করতে গিয়ে যে ছাই তৈরি হবে তা থেকে ইট তৈরি করার জন্যও একটি বিশেষায়িত কারখানা স্থাপন করবে তারা।

এ প্রসঙ্গে বেজার চেয়ারম্যান পবন চৌধুরী গতকাল দ্য ডেইলি স্টারকে বলেন, বিনিয়োগ পরিকল্পনা নিয়ে আমর সন্তুষ্ট। আমরা তাদের ৫০০ একর জমি দেওয়ার জন্য কাজ করছি।

৫০ বছরের জন্য জমির ভাড়া বাবদ ঝেজিয়াং বেজাকে ৩১৫ কোটি টাকা পরিশোধ করবে। চট্টগ্রামের মিরসরাই অর্থনৈতিক অঞ্চলে এ নিয়ে চুক্তি হয়েছে। বেজা চেয়ারম্যান জানান, ২০১৬-১৭ অর্থবছরে ২ দশমিক ৪৫ বিলিয়ন ডলার সরাসরি বৈদেশিক বিনিয়োগ এসেছে বাংলাদেশে।

বেজার কর্মকর্তারা জানান, ঝেজিয়াংয়ের প্রতিনিধিরা ২০১৫ সালের অক্টোবরে নির্মাণাধীন অর্থনৈতিক অঞ্চলটি পরিদর্শন করেন। তারা মোট এক হাজার একর জমি চেয়ে আবেদন করেছিল। এর জন্য অগ্রিম তারা ছয় কোটি টাকা পরিশোধ করে।

চীনা কোম্পানিটি ২,৬৪০ মেগাওয়াট ক্ষমতাসম্পন্ন বিদ্যুৎকেন্দ্র নির্মাণ করতে চেয়েছিল। তবে জ্বালানি বিভাগ প্রাথমিকভাবে ৬৬০ মেগাওয়াট করে দুই ইউনিটে মোট ১,৩২০ মেগাওয়াট ক্ষমতার বিদ্যুৎকেন্দ্র স্থাপনের অনুমতি দিয়েছে।

বেজার চেয়ারম্যান জানান, চুক্তি স্বাক্ষরের তিন বছরের মধ্যে বিদ্যুৎকেন্দ্র নির্মাণ প্রক্রিয়া শেষ করার কথা বলেছে ঝেজিয়াং। দেশে বিদ্যুতের চাহিদার কথা বিবেচনা করে তারা এই চীনা কোম্পানির প্রকল্পটিকে অগ্রাধিকার দিচ্ছেন।

Comments

The Daily Star  | English

Dhaka footpaths, a money-spinner for extortionists

On the footpath next to the General Post Office in the capital, Sohel Howlader sells children’s clothes from a small table.

6h ago