রাশিয়া না সৌদি আরব, কার পাল্লা ভারি?

বাংলাদেশ সময় আজ রাত ৯ টায় স্বাগতিক রাশিয়া ও সৌদি আরবের ম্যাচ দিয়ে শুরু হচ্ছে বিশ্বকাপের ২১ তম আসরের। ঘরের মাঠে খেলা বলে কিছুটা হয়তো এগিয়ে থাকবে স্বাগতিকেরাই, কিন্তু বিশ্বকাপের উদ্বোধনী ম্যাচে স্বাগতিকদের অপরাজেয় থাকার ঐতিহ্য ধরে রাখার চাপের সঙ্গে রাশিয়ার আছে খারাপ ফর্মে। এই সুযোগ নিতে মুখিয়ে থাকবে সৌদি আরব।
রাশিয়াকে ভড়কে দিতে প্রস্তুত হচ্ছে সৌদি আরব। ছবি: রয়টার্স

বাংলাদেশ সময় আজ রাত ৯ টায় স্বাগতিক রাশিয়া ও সৌদি আরবের ম্যাচ দিয়ে শুরু হচ্ছে বিশ্বকাপের ২১ তম আসরের। ঘরের মাঠে খেলা বলে কিছুটা হয়তো এগিয়ে থাকবে স্বাগতিকেরাই, কিন্তু বিশ্বকাপের উদ্বোধনী ম্যাচে স্বাগতিকদের অপরাজেয় থাকার ঐতিহ্য ধরে রাখার চাপের সঙ্গে রাশিয়ার আছে খারাপ ফর্মে। এই সুযোগ নিতে মুখিয়ে থাকবে  সৌদি আরব।

বিশ্বকাপের প্রথম ম্যাচে স্বাগতিকরা হারে না, এই ধারা রাখতে পেরেছিল দুর্বল দক্ষিণ আফ্রিকাও। ড্র করেছিল প্রথম ম্যাচ। এবার রাশিয়ার কাজটা একদম সহজ নয়। বিশ্বকাপে অংশ নেওয়া দলগুলোর মধ্যে ফিফা র‍্যাঙ্কিংয়ে সবচেয়ে পিছিয়ে তারাই। বেহাল দশা বলছে পরিসংখ্যানও। ২০১৭ সালের অক্টোবরের পর থেকে এখনো পর্যন্ত একটি আন্তর্জাতিক ম্যাচেও জিততে পারেনি স্টানিস্লাভ চেরচেসভের দল।

বিশ্বকাপের আগে তুরস্কের সাথে শেষ প্রীতি ম্যাচটিতেও দর্শকদের দুয়ো হজম করতে হয়েছিল স্বাগতিকদের। এমনকি দেশটির সাবেক ফুটবলারেরাও দলের উপর আস্থা রাখতে পারছেন না। রাশিয়া ও ম্যানচেস্টার ইউনাইটেডের সাবেক উইঙ্গার আন্দ্রেই কানচেলেস্কি তো বলেই দিয়েছেন, তার জীবদ্দশায় এর চেয়ে বাজে রুশ দল আর দেখেননি তিনি!

ইনজুরি সমস্যাও ভোগাতে পারে রাশিয়াকে। ইনজুরির কারণে দলটি বিশ্বকাপে পাচ্ছে না আক্রমণভাগের বড় ভরসা আলেক্সান্ডার কোকোরিনকে। হাঁটুর চোটে পড়ে নেই ডিফেন্ডার জর্জি ঝিকিয়া ও ভিক্টর ভাসিনকও।

বাস্তবতা মেনে নিচ্ছেন স্ট্রাইকার আর্টিওম জুবাও, ‘আমরা বিশ্বকাপ জেতার জন্য ফেভারিট নই। কিন্তু আমরা গ্রুপ পর্ব পার হতে চাই। আমরা ঘরের মাটিতে খেলছি। আমরা সবার কাছে প্রমাণ করতে চাই, যে আমরা ফুটবলটা খেলতে পারি। আমরা দেশকে গর্বিত করতে চাই।’

খুব একটা সুবিধাজনক অবস্থায় নেই সৌদি আরবও। রাশিয়ার পর যে দেশটির ফিফা র‍্যাঙ্কিংয়ে সবচেয়ে পিছিয়ে, সেটি এই সৌদি আরব। বিশ্বকাপে আসার আগে সর্বশেষ তিন ম্যাচের প্রতিটিতেই হেরেছে দলটি। তবে সর্বশেষ ম্যাচে জার্মানির বিপক্ষে লড়াকু মনোভাব দেখিয়ে নিজেদের সামর্থ্যের প্রমাণও দিয়েছে।  

সর্বশেষ টিম নিউজ:

রাশিয়া-

  • রাইট ব্যাক পজিশনের জন্য লড়াই হবে মারিও ফার্নান্দেজ ও ইগর স্মলনিকভের মধ্যে। আর ডিফেন্সের মূল দায়িত্ব বর্তাতে পারে ৩৮ বছর বয়সী সার্জেই ইগনাশেভিচের উপর।
  • আক্রমণাত্মক কৌশল নিয়ে মাঠে নামলে মিডফিল্ডে আলেক্সান্ডার গলোভিনের সাথে অ্যালান যাগোয়েভকে নামিয়ে দিতে পারেন কোচ চেরচেসভ।

সৌদি আরব-

  • শেষ মুহূর্তে এসে ইনজুরির কারণে স্কোয়াড থেকে বাদ পড়েছেন গুরুত্বপূর্ণ খেলোয়াড় নাওয়াফ আল আবেদ। তার অনুপস্থিতিতে ভুগতে হতে পারে হুয়ান অ্যান্টোনিও পিজ্জির দলকে।
  • প্রতি-আক্রমণে গোলের সুযোগ তৈরি করার চেষ্টা করবে সৌদি আরব, আর সেক্ষেত্রে তাদের বড় দুই অস্ত্র হতে পারেন সালেম আল-দাওসারি ও ফাহাদ আল-মুলাওয়াদ। এই দুজনের গতিকে কাজে লাগিয়ে প্রতি-আক্রমণ থেকে গোল আদায় করতে চাইবে সৌদি।

সম্ভাব্য স্কোয়াড ও ফর্মেশন:

রাশিয়া-

সম্ভাব্য একাদশ: ইগর আকিনফিভ, মারিও ফার্নান্দেজ, ফেদর কুদ্রায়াশভ, সার্জেই ইগনাশেভিচ, ইউরি ঝিরকভ, রোমান জবনিন, দালের কুজায়েভ, অ্যাল্যান যাগোয়েভ, আলেক্সান্ডার সামেদভ, আলেক্সান্ডার গলোভিন, ফেদর স্মলোভ।

সম্ভাব্য ফর্মেশন: ৪-১-৪-১

সৌদি আরব-

সম্ভাব্য একাদশ: আবদুল্লাহ আল-মায়োফ, উসামা হুসাওয়ি, ওমর হোসাওয়ি, ইয়াসির আল-শাহরানি, মোহাম্মদ আল-বারিক, আবদুল্লাহ ওতিফ, সালমান আল-ফারাজ, ইয়াহিয়া আল-শিহিরি, তাইসির আল-জসিম, সালেম আল দোসারি, ফাহাদ আল-মোলাদ।

সম্ভাব্য ফর্মেশন: ৪-২-৩-১

যা বলছে পরিসংখ্যান:

  • এর আগে কেবল একবারই মুখোমুখি হয়েছিল দুই দল, সেটিও সেই ১৯৯৩ সালে। ঘরের মাঠে প্রীতি ম্যাচে ৪-২ গোলে জিতেছিল সৌদি।
  • সোভিয়েত ইউনিয়নের ভাঙনের পর তিনবার বিশ্বকাপে খেলে একবারও নক আউট পর্বে উঠতে পারেনি রাশিয়া।
  • স্বাগতিক দেশগুলো প্রতিবারই অন্তত গ্রুপ পর্ব পার হয়েছে, ব্যতিক্রম কেবল ২০১০ বিশ্বকাপের স্বাগতিক দক্ষিণ আফ্রিকা।  
  • ২০০৬ সালের পর এই প্রথমবার বিশ্বকাপে খেলছে সৌদি আরব, সব মিলিয়ে দেশটির ইতিহাসে পঞ্চম বিশ্বকাপ এটি। সর্বশেষ তিন বিশ্বকাপে গ্রুপের শেষ দল হয়ে বিশ্বকাপ শেষ করেছে দলটি। বিশ্বকাপে দলটির সেরা সাফল্য ১৯৯৪ বিশ্বকাপে শেষ ষোলোতে ওঠা।
  • বিশ্বকাপে সর্বশেষ ১০ ম্যাচে জয়ের মুখ দেখেনি সৌদি আরব, হেরেছি ৮ টিতেই। বিশ্বকাপে তাদের সর্বশেষ জয় ১৯৯৪ বিশ্বকাপের গ্রুপ পর্বে, বেলজিয়ামের বিপক্ষে। বিশ্বকাপে খেলা শেষ নয় ম্যাচের সাতটিতেই কোন গোল করতে পারেনি মধ্যপ্রাচ্যের দেশটি।

 

Comments

The Daily Star  | English
Shipping cost hike for Red Sea Crisis

Shipping cost keeps upward trend as Red Sea Crisis lingers

Shafiur Rahman, regional operations manager of G-Star in Bangladesh, needs to send 6,146 pieces of denim trousers weighing 4,404 kilogrammes from a Gazipur-based garment factory to Amsterdam of the Netherlands.

5h ago