সৌম্য-ইমরুলের অন্তর্ভুক্তি ‘একটু অস্বাভাবিক’ সাকিবের কাছেও

সৌম্য সরকার আর ইমরুল কায়েসকে এশিয়া কাপের দলে নেওয়ার খবর জানতেন না বলে জানিয়েছিলেন অধিনায়ক মাশরাফি মর্তুজা। হুট করে এই দুই ক্রিকেটারকে উড়িয়ে আনা কিছুটা অস্বাভাবিক মনে হচ্ছে সাকিব আল হাসানেরও। তবে দলের স্বার্থে যেকোনো সিদ্ধান্তই নেওয়া যায় বলে মত তার।
Shakib Al Hasan
ছবি: বিসিবি

সৌম্য সরকার আর ইমরুল কায়েসকে এশিয়া কাপের দলে নেওয়ার খবর জানতেন না বলে জানিয়েছিলেন অধিনায়ক মাশরাফি মর্তুজা। হুট করে এই দুই ক্রিকেটারকে উড়িয়ে আনা কিছুটা অস্বাভাবিক মনে হচ্ছে সাকিব আল হাসানেরও। তবে দলের স্বার্থে যেকোনো সিদ্ধান্তই নেওয়া যায় বলে মত তার।

শুক্রবার ভারতের বিপক্ষে বাংলাদেশের ইনিংসের শেষ দিকে খবর আসে এশিয়া কাপের দলে ডাকা হয়েছে সৌম্য আর ইমরুলকে। খুলনায় বিসিবি সবুজ আর লাল দলের খেলা ফলে তড়িঘড়ি ঢাকা রওয়ানা হন তারা। শনিবার রাতেই দলে যোগ দেবেন। শোনা যাচ্ছে রোববার আফগানিস্তানের বিপক্ষে ম্যাচে বিবেচনায় আছেন দুজনেই।

হুট করে এরকম অপ্রস্তুত অবস্থায় দুই ক্রিকেটারকে উড়িয়ে এনে গুরুত্বপূর্ণ ম্যাচ খেলানো নিয়ে সাকিবের কূটনৈতিক উত্তর,  ‘জানি না। এটা টিম ম্যানেজমেন্ট ভালো বলতে পারবে। আমার কাছে এর ভালো কোন উত্তর নেই। যারা আসতেছে তারা খেলবে কিনা তারও ঠিক নেই। আপনারা তো  সব খবর আগে পান, এটাও পেয়ে যাবেন।’

সহ-অধিনায়ক হওয়ায় সাকিবও টিম ম্যানেজমেন্টের অংশ। সেটা মানলেও দল নির্বাচনে তার কোন ভূমিকা নেই বলে জানান তিনি।

তবে তাড়াহুড়ো করে নেওয়া এই সিদ্ধান্ত সাকিবের কাছেও স্বাভাবিক নয়, ‘একটু অস্বাভাবিক। এমন সাধারণত হয় না। কিন্তু দলের প্রয়োজনে যে কোন সিদ্ধান্তই নেওয়া যেতে পারে।’

ফর্মের কারণেই গত অক্টোবর থেকে ওয়ানডে দলের বাইরে আছেন সৌম্য, ইমরুল। তরুণদের ব্যর্থতায় ফর্মহীন ক্রিকেটারদের দলে ভেড়ানোর প্রশ্নে কিছুটা অসহায় সাকিবের কন্ঠ, 'দেখা যাক, এখনকো কারো না কারো উপরতো ভরসা রাখতেই হবে।  সেই ভরসাটা কারো না কারো উপর রাখার চেষ্টা করবো।'

তামিম ইকবাল চোটে পড়ে ছিটকে যাওয়ার পর দুই তরুণ লিটন দাস ও নাজমুল হোসেন শান্ত ওপেনিং জুটি হয়ে খেলেছেন সর্বশেষ দুই ম্যাচ। দুই ম্যাচেই হতাশ করে তাদের জুটি। তিন ম্যাচ খেলেও দুই অঙ্কে যেতে পারেননি লিটন। দুই ম্যাচেই দুই অঙ্কের আগে বাজেভাবে আউট হন শান্তও। ওপেনিংয়ের এই বেহাল দশাতেই সৌম্য আর ইমরুলকে উড়িয়ে আনা হচ্ছে বলে জানান ক্রিকেট অপারেশন্স কমিটির চেয়ারম্যান আকরাম খান।

Comments