যেখানে অনুশীলনের চেয়ে ‘বিশ্রাম ভালো’

রোববার আবুধাবিতে আফগানিস্তানকে হারিয়ে আসার পর কাহিল অবস্থা ছিল পুরো দলের। সোমবার তাই অনুশীলনের কথা ভাবেইনি বাংলাদেশ। মঙ্গলবারও অনেককে রাখা হলো বিশ্রামে। কয়েকজনকে নিয়ে ঐচ্ছিক অনুশীলন হয়েছে ঢিমেতালে। কোচ স্টিভ রোডস বলছেন, বিরূপ আবহাওয়ায় অনুশীলনের চেয়ে বরং বিশ্রামটাই বেশি দরকার।
steve rhoades
বাংলাদেশ দলের অনুশীলনে কোচ স্টিভ রোডস। ছবি: বিসিবি

রোববার আবুধাবিতে আফগানিস্তানকে হারিয়ে আসার পর কাহিল অবস্থা ছিল পুরো দলের। সোমবার তাই অনুশীলনের কথা ভাবেইনি বাংলাদেশ। মঙ্গলবারও অনেককে রাখা হলো বিশ্রামে। কয়েকজনকে নিয়ে ঐচ্ছিক অনুশীলন হয়েছে ঢিমেতালে। কোচ স্টিভ রোডস বলছেন, বিরূপ আবহাওয়ায় অনুশীলনের চেয়ে বরং বিশ্রামটাই বেশি দরকার।

দুবাইয়ের চেয়ে আবুধাবিতে গিয়ে খেলার ঝক্কি অনেক। ভ্রমণ ক্লান্তি তো আছেই। একদম মরুভূমির মাঝে হওয়ায় সেখানকার গরমটাও বেশি। ওই অবস্থাতে চার দিনে তিন ম্যাচ খেলেছে বাংলাদেশ। যার দুটোই আবুধাবিতে। এমন পেরেশানির পর আফগানিস্তানের  বিপক্ষে শরীর যেন চলছিল না অনেকের, ক্রাম্প হচ্ছিল, পড়ছিল পেশিতে টান। কোনমতে ম্যাচটা বের করে দিয়েই স্বস্তির নিশ্বাস ফেলেছেন মাশরাফি মর্তুজারা।

এরকম টানা ম্যাচ খেলায় বাড়তি অনুশীলনের দরকার দেখছেন না কোচ, ‘ঠাসা সূচির কারণে কঠিন অবস্থা। অনেক ভ্রমণ করতে হচ্ছে, আবুধাবি বেশ দূরের পথ। আমরা আবার দুবাইয়ের শেষ প্রান্তে আছি, এইজন্য আরও আধাঘণ্টা বেশি লাগছে। ভ্রমণের সঙ্গে কন্ডিশনটাও বেশ ভোগাচ্ছে। কিন্তু সব দলকেই এসব সামলে খেলতে হচ্ছে। সব দলই একইরকম কান্ত। কাজেই এই দুদিন নিজেদের সতেজ করার ব্যাপার ছিল। আজ ঐচ্ছিক অনুশীলন হয়েছে। গতকাল ছিল পুরো বিশ্রাম।’

Read More: পাকিস্তানি পেসারদের গতিতে বাড়তি সুবিধা পাবে বাংলাদেশ!​

কোচ আশা করেন মাঝের দুদিনের বিশ্রামে সতেজ হয়ে ‘সেমিফাইনাল’ ম্যাচে ফিরতে পারবেন তারা, ‘মানসিক ও শারীরিকভাবে এখন আরও ভালো অবস্থায় থাকবে সবাই। আমরা চ্যালেঞ্জ নেওয়ার জন্য মুখিয়ে আছি। এখানে এসেছি চ্যালেঞ্জ নিতে। আমরা জানি আর একটা জয়ই আমাদের ফাইনালে নিয়ে যাবে।’

দেশ থেকে ইমরুল কায়েস ও সৌম্য সরকার যোগ দেওয়ায় বাংলাদেশের স্কোয়াড এখন ১৭ জনের। চোট সামাল দেওয়ার যথেষ্ট রসদও আছে জমা। তবু অনুশীলনের চেয়ে বিশ্রামটাই প্রাধান্য দিচ্ছেন কোচ, ‘আমাদের ছয়জন বেঞ্চে আছে। কেউ কেউ অনুশীলনে (গতকাল) আসতে চেয়েছিল। কিন্তু সবাই একটু নিঃশ্বাস নিতে চেয়েছে, এমনকি স্টাফরাও। আমরা একটা দল হয়েই তো আছি। তাই সবাই সবার জন্য এইটুকু করতে হয়। পুরো একদিনের বিশ্রাম খুব জরুরী ছিল।’

‘আজকের অনুশীলনটাও খুবই হালকা রাখা হয়েছে । অনেক সময় অনুশীলন করার চেয়ে বিশ্রামে থাকা বেশি জরুরী। যদি তারা (ক্রিকেটাররা) কেউ অনুভব করে অনুশীলন দরকার তাহলে করতে পারে পারে। আর যদি মনে করে বিশ্রাম নেওয়া জরুরী সেটাই হবে ঠিক উপায়। আমরা অনেক অনুশীলন ক্যাম্প করেছি, খেলেছি। কাজেই নিজেদের সতেজ করাটা বেশি দরকার।’

Read More: টপ অর্ডার নিয়ে উদ্বেগ, আসতে পারে পরিবর্তন

 

Comments