সংলাপের পরিবেশ নেই, প্রয়োজন নেই: কাদের

জাতীয় নির্বাচনের আগে রাজনৈতিক দলগুলোর সঙ্গে সব ধরনের সংলাপের সম্ভাবনা নাকচ করে দিয়ে আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের বলেছেন, দেশে সংলাপ করার মতো কোনো পরিবেশ নেই, প্রয়োজনীয়তা নেই।
সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের। স্টার ফাইল ছবি

জাতীয় নির্বাচনের আগে রাজনৈতিক দলগুলোর সঙ্গে সব ধরনের সংলাপের সম্ভাবনা নাকচ করে দিয়ে আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের বলেছেন, দেশে সংলাপ করার মতো কোনো পরিবেশ নেই, প্রয়োজন নেই।

‘নভেম্বরের প্রথম সপ্তাহে তফসিল ঘোষণা হতে পারে এটা নির্বাচন কমিশন সচিব বলেছেন। তাহলে এখন আর দশ-বারো দিনের মধ্যে কে-কার সঙ্গে সংলাপ করবে?’

আজ শনিবার ধানমন্ডিতে আওয়ামী লীগ সভাপতি শেখ হাসিনার রাজনৈতিক কার্যালয়ে দলের সম্পাদকমণ্ডলীর এক সভা শেষে সংবাদ সম্মেলনে তিনি এসব কথা বলেন।

কাদের বলেন, ঐক্যফ্রন্ট গঠন করে তারা প্রথমেই বিদেশিদের কাছে গিয়েছে, দেশের জনগণের কাছে তো যায়নি। দেশের জনগণের কাছে তাদের গ্রহণযোগ্যতা নেই।

এক প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, সিলেটে মাজার জিয়ারত করতে তারা যেতে পারে। নির্বাচনের আগে সিলেটে মাজার জিয়ারত করার একটা ঐতিহ্য রয়েছে। কিন্তু মাজার জিয়ারতের নামে যদি কোনো নাশকতা, কোনো সহিংসতার পরিকল্পনা নিয়ে তারা সেখানে যান। তা থেকে উদ্ভূত পরিস্থিতি নির্ধারণ করে দেবে আইনশৃঙ্খলা বাহিনী কী ধরনের পদক্ষেপ নেবে।

জাতীয় পার্টির নেতৃত্বাধীন ৫৮ দলের ‘সম্মিলিত জাতীয় জোট’ থেকে সারাদেশে ৩০০ আসনে প্রার্থী দেওয়া হবে—শনিবার দুপুরে সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে এমন ঘোষণা দিয়েছেন দলটির চেয়ারম্যান হুসেইন মুহাম্মদ এরশাদ। আগামী নির্বাচন নিয়েও সংশয় প্রকাশ করেছেন তিনি। এ ব্যাপারে মন্তব্য চাওয়া হলে কাদের বলেন, এরশাদ সাহেব তো পার্টির চেয়ারম্যান হিসেবে বক্তব্য রাখতে পারেন। তিনি তো সংসদে বিরোধী দলের আসনে আছেন, বিরোধী দলের পক্ষ থেকে যেকোনো বক্তব্য তিনি দিতেই পারেন। তিনি তো তার পার্টিকে আওয়ামী লীগে দিয়ে দেননি। এরশাদ সাহেব আমাদের সঙ্গে জোটগতভাবে নির্বাচন করতে পারেন আবার নাও করতে পারেন। আগামী ১০/১২ দিনের মধ্যেই সব স্পষ্ট হয়ে যাবে।

সংবাদ সম্মেলনে আরও উপস্থিত ছিলেন আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক ডা. দীপু মণি, জাহাঙ্গীর কবির নানক, সাংগঠনিক সম্পাদক বি এম মোজাম্মেল হক, আ ফ ম বাহাউদ্দিন নাছিম, দপ্তর সম্পাদক আবদুস সোবহান গোলাপ প্রমুখ।

Comments

The Daily Star  | English

Eid rush: People suffer as highways clog up

As thousands of Eid holidaymakers left Dhaka yesterday, many suffered on roads due traffic congestions on three major highways and at an exit point of the capital in the morning.

4h ago