ক্রিকেট

টেস্টে বাবা-ছেলেকে আউট করেছিলেন যারা

২০১১ ও ২০১৩ সালে দুই দফায় শিবনারাইন চন্দরপলকে টেস্টে চারবার আউট করেছিলেন রবিচন্দ্রন অশ্বিন। দশ বছর পর এবার তার পুত্র তেজনারাইন চন্দরপলকে আউট করেছেন তিনি

২০১১ ও ২০১৩ সালে দুই দফায় শিবনারাইন চন্দরপলকে টেস্টে চারবার আউট করেছিলেন রবিচন্দ্রন অশ্বিন। দশ বছর পর এবার তার পুত্র তেজনারাইন চন্দরপলকে আউট করেছেন তিনি। তবে টেস্টে পিতা-পুত্রকে আউট করা প্রথম বোলার নন তিনি।

এর আগে এমন কীর্তি আছে আরও পাঁচজনের।  এই কীর্তি আছে ইয়ান বোথাম, ওয়াসিম আকরাম, মিচেল স্টার্ক ও সাইমন হার্মারের।

এরমধ্যে স্টার্ক ও হার্মারও আউট করেছেন চন্দরপল পিতা-পুত্রকে। ২০১২ সালে ডমিনিকাতেই শিবনারাইকে এলবিডব্লিউ করেন স্টার্ক। গত ডিসেম্বরে ওয়েস্ট ইন্ডিজের অস্ট্রেলিয়া সফরে পার্থ ও অ্যাডিলেডে স্টার্কের বলে আউট হন তেজনারাইন।

দক্ষিণ আফ্রিকান অফ স্পিনার সাইমন হার্মার এই তালিকায় আছেন চমক হয়ে। ২০১৫ সালে কেপটাউনে নিজের অভিষেক টেস্টে শিবনারাইনকে আউট করেন হার্মার। এরপর ৫ টেস্ট খেলে কলপ্যাক চুক্তিতে ইংল্যান্ডে গেলে তার ক্যারিয়ার থেমে থাকে। গত বছর আবার প্রোটিয়া জার্সিতে ফেরেন তিনি, গত মার্চে ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে জোহেন্সবার্গ টেস্টে তেজনাইরাইনকে ফেরান হার্মার।

পাকিস্তানি কিংবদন্তি ওয়াসিম আকরাম ক্যারিয়ারের শুরুর দিকে সেই ১৯৮৫ সালে ডানেডিনে আউট করেছিলেন ল্যান্স কেয়ার্সনসে। ১০ বছর পর ক্রাইস্টচার্চে তিনি পান ল্যান্সের পুত্র ক্রিস কেয়ার্নসের উইকেট।

পিতা-পুত্রকে আউট করার প্রথম নজির দেখান ইয়ান বোথাম। তিনিও আউট করেন ল্যান্স ও কেয়ার্ন্সনকে। বোথাম তার সেরা সময়ে ১৯৭৮ সালে ট্রেন্ট ব্রিজে আউট করেছিলেন ল্যান্সকে। ১৯৮৩ সালে আরও দুইবার পেয়েছিলেন ল্যান্সের উইকেট। বোথাম তার ক্যারিয়ারের একদম শেষ বছরে ১৯৯২ সালে ওয়েলিংটনে পান ক্রিসের উইকেট।

বুধবার ডমিনিকায় দুর্দান্ত এক ডেলিভারিতে তেজনারাইনের উইকেট নিয়ে পাঁচজনের ছোট্ট ক্লাবে ঢুকে যান ভারতের অফ স্পিনার।

Comments

The Daily Star  | English
Raushan Ershad

Raushan Ershad says she won’t participate in polls

Leader of the Opposition and JP Chief Patron Raushan Ershad today said she will not participate in the upcoming election

4h ago