আগামীর ‘পরিকল্পনায় নেই’ জেনে অবসরের ঘোষণা দিলেন এলগার

৩৬ পেরুনো বাঁহাতি ওপেনার ভারতের বিপক্ষে সিরিজের আগে এক বিবৃতিতে জানান ৩ জানুয়ারি কেপটাউন টেস্টই হতে যাচ্ছ তার জীবনের শেষ টেস্ট।
Dean Elgar
ডিন এলগার। ফাইল ছবি

দক্ষিণ আফ্রিকার সাবেক অধিনায়ক ডিন এলগার আন্তর্জাতিক ক্রিকেট থেকে অবসর ঘোষণা দিয়েছেন। ভারতের বিপক্ষে আসন্ন দুই টেস্ট সিরিজের পর আর তাকে আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে দেখা যাবে না। লাল বলের কোচের আগামীর পরিকল্পনা তার এই সিদ্ধান্ত প্রভাবিত করেছে বলে খবর প্রোটিয়া গণমাধ্যমের।  

৩৬ পেরুনো বাঁহাতি ওপেনার ভারতের বিপক্ষে সিরিজের আগে এক বিবৃতিতে জানান ৩ জানুয়ারি কেপটাউন টেস্টই হতে যাচ্ছ তার জীবনের শেষ টেস্ট, 'ক্রিকেট খেলা সব সময় আমার স্বপ্ন ছিলো। দেশের হয়ে খেলার সুযোগ পাওয়া ছিলো সর্বোচ্চ প্রাপ্তি। আর ১২ বছর ধরে আন্তর্জাতিক ক্রিকেট খেলা আমার স্বপ্নের সীমার বাইরের ব্যাপার। অবিশ্বাস্য এক ভ্রমণ ছিলো, যা পেয়েছে তাতে আমি ভাগ্যবান।'

'কেপটাউন টেস্ট হবে আমার জীবনের শেষ টেস্ট। বিশ্বের মধ্যে আমার সবচেয়ে প্রিয় স্টেডিয়াম, যেখানে আমি নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে প্রথম টেস্ট রান করি। আশা করছি সেখানে শেষটাও করব।'

৮৪ টেস্টে ৪৭.৩৮ গড়ে দক্ষিণ আফ্রিকার ৫ হাজার ১৪৬ রান আছে এলগারের। ভারতের বিপক্ষে দুই টেস্ট খেলে শেষ করলে ৮৬ টেস্টে থামবে তার ক্যারিয়ার। টেস্টে দক্ষিণ আফ্রিকার ইতিহাসে ৮ম সর্বোচ্চ রান সংগ্রাহক তিনি। আর ৩৫২ রান করলে মার্ক বাউচারকে ছাড়িয়ে হবেন সপ্তম।

বয়স ৩৬ পেরুলেও এখনি ছাড়ার পরিকল্পনা ছিলো না এলগারের। প্রোটিয়া গণমাধ্যমের খবর, লাল বলের নতুন কোচ সুর্কি কোনরাডের দীর্ঘ মেয়াদে পরিকল্পনায় তিনি নেই জানার পরই নেন সিদ্ধান্ত। অবসরের পর ইংলিশ কাউন্টিতে দেখা যেতে পারে এলগারকে। এসেক্সের সঙ্গে ২০২৪ পর্যন্ত চুক্তি আছে বাঁহাতি ওপেনারের।

এলগারের সিদ্ধান্তের পর  প্রতিক্রিয়া জানিয়েছেন দক্ষিণ আফ্রিকার ডিরেক্টর অব ক্রিকেট এঞ্চ এনকিউ, 'ডিন এলগার বিরল ঘরানার ক্রিকেটার। সে আসলেই সাবেকী ঘরানার ক্রিকেটার যে কিনা চাপ নিতে জানে, লড়াই করতে জানে। কোন সন্দেহ নেই খেলাটা তাকে মিস করবে।'

এলগারের এই সিদ্ধান্তের ফলে নিউজিল্যান্ডের মাঠে পরের সিরিজে তাকে আর পাচ্ছে না প্রোটিয়ারা। ফ্র্যাঞ্চাইজি আসর এসএ২০'র জন্য নিয়মিত অনেক তারকাকেই নিউজিল্যান্ড সিরিজে পাবে না দক্ষিণ আফ্রিকা। এলগারও এরমাঝে অবসর নেওয়ায় একটা ভিন্ন আদলের অনভিজ্ঞ দল পাঠাতে হবে তাদের। অন্তত আরও কিছুদিন তাই এলগারকে খেলার অনুরোধ করা যেত কিনা এই ব্যাপারে এনকিউ বলেন, 'আমার টেবিলে কোন কিছু আসেনি।'

২০১২ সালে পার্থে অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে অভিষেক হয় এলগারের। প্রথম টেস্টে জোড়া শূন্য পান তিনি। নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে কেপটাউনে পরের টেস্টে পান প্রথম রান। পোর্ট এলিজাবেথে ক্যারিয়ারের তৃতীয় টেস্টেই অবশ্য সেঞ্চুরি করেন বাঁহাতি ব্যাটার। পাকিস্তান ও জিম্বাবুয়ে ছাড়া তার খেলা সব টেস্ট খেলুড়ে দেশের বিপক্ষে সেঞ্চুরি আছে এলগারের।

২০১৭ সালে ইংল্যান্ড সফরে ফাফ দু প্লেসি পিতৃত্বকালীন ছুটি নিলে ভারপ্রাপ্ত অধিনায়ক হন এলগার। ২০২১ সালের মাঝামাঝি থেকে স্থায়ী নেতৃত্ব পান তিনি। বিশ্ব টেস্ট চ্যাম্পিয়নশিপের সর্বশেষ চক্রে এলগারের নেতৃত্বে প্রোটিয়াদের ফাইনালে যাওয়ার সুযোগ ছিলো। কিন্তু ইংল্যান্ড ও অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে হারে আর সেটা হয়নি। গত ফেব্রুয়ারিতে তাকে সরিয়ে টেস্ট নেতৃত্ব দেওয়া হয় টেম্বা বাভুমাকে।

এই সিদ্ধান্তে খুশি ছিলেন না এলগার যদিও কেন্দ্রীয় চুক্তিতে সই করেছিলেন তিনি। এবার সেরা অবস্থায় থেকে আন্তর্জাতিক ক্রিকেট ছেড়ে দেওয়ার সিদ্ধান্ত নিলেন এই ব্যাটার।

Comments

The Daily Star  | English

JS passes Speedy Trial Bill amid protest of opposition

With the passing of the bill, the law becomes permanent; JP MPs say it may become a tool to oppress the opposition

44m ago