রোনালদোকে বাস্তবতা মেনে নিতে বললেন নেভিল

বয়সটা পেরিয়েছে ৩৭। অধিকাংশ ক্ষেত্রেই এ বয়সে বুট জোড়া তুলে রাখেন ফুটবলাররা। সেখানে এখনও খেলে যাচ্ছেন ক্রিস্তিয়ানো রোনালদো। স্বাভাবিকভাবেই মাঠের পারফরম্যান্সে পড়েছে বয়সের প্রভাব। তাই খেলার সুযোগটাও মিলছে কম। তাতে সন্তুষ্ট নন পাঁচ বারের ব্যলন ডি'অর জয়ী এ তারকা। তবে এই বাস্তবতাটা রোনালদোকে মেনে নেওয়ার পরামর্শ দিলেন তার সাবেক ম্যানচেস্টার ইউনাইটেড সতীর্থ গ্যারি নেভিল।

বয়সটা পেরিয়েছে ৩৭। অধিকাংশ ক্ষেত্রেই এ বয়সে বুট জোড়া তুলে রাখেন ফুটবলাররা। সেখানে এখনও খেলে যাচ্ছেন ক্রিস্তিয়ানো রোনালদো। স্বাভাবিকভাবেই মাঠের পারফরম্যান্সে পড়েছে বয়সের প্রভাব। তাই খেলার সুযোগটাও মিলছে কম। তাতে সন্তুষ্ট নন পাঁচ বারের ব্যলন ডি'অর জয়ী এ তারকা। তবে এই বাস্তবতাটা রোনালদোকে মেনে নেওয়ার পরামর্শ দিলেন তার সাবেক ম্যানচেস্টার ইউনাইটেড সতীর্থ গ্যারি নেভিল।

গত মৌসুমে ইউনাইটেডের সেরা পারফর্মার হয়েও চলতি মৌসুমে যেন নিজেকে হারিয়ে খুঁজছেন রোনালদো। তাই খুব বেশি ম্যাচে খেলার সুযোগও মিলছে না তার। ইংলিশ লিগে অধিকাংশ ম্যাচেই খেলতে হচ্ছে বেঞ্চ থেকে। তবে সবশেষ ম্যাচে এভারটনের বিপক্ষে লিগের প্রথম গোল পেয়েছেন তিনি। যা ম্যাচের পার্থক্যও গড়ে দেয়। নেভিলের প্রত্যাশা, এভাবেই বেঞ্চ থেকে নেমে ম্যাচের ফলাফলে প্রভাব রাখবেন রোনালদো।

সবার আগে নিয়মিত না খেলতে পারার বিষয়টি মেনে নেওয়ার পরামর্শ দেন নেভিল, 'আমি যা আশা করব, অন্যান্য খেলোয়াড়দের মতো ক্যারিয়ারের শেষের দিকে এসে সে মেনে নিবে যে প্রতিটি ম্যাচে সে খেলবে না। সে থাকবে এবং রোববার রাতের (এভারটনের বিপক্ষে ২-১ ব্যবধানে জয়) মতো দলে বিশাল অবদান রাখবে এবং ইউনাইটেডেরও মৌসুম ভালো কাটবে। যদি রোনালদো থেকে যায় আমি মনে করি তাদের সেরা চারে থাকার অনেক ভালো সুযোগ রয়েছে, এমনকি যদি সে প্রতি সপ্তাহে নাও খেলে এবং এভারটন ম্যাচের মতো বেঞ্চ থেকে নামে।'

সাবেক সতীর্থ সম্পর্কে ভালোভাবেই জানেন নেভিল। তাই বেঞ্চ থেকে শুরু করার বিষয়টি যে মেনে নেওয়া তার জন্য কঠিন তাও জানিয়েছেন এ সাবেক তারকা, 'কিন্তু আমি তার মানসিকতার কারণে সন্দেহ করি, তার মানসিকতা এমন যে সে এটা মানতে পারবে না। সে মনে করে এটা অপমানজনক। এবং সমর্থক যাদের আমি অত্যন্ত সম্মান করি তারাও মনে করে যে বেঞ্চে থাকার কারণে তাকে অসম্মান করা হচ্ছে। কিন্তু আমি এটি মোটেও মনে করি না। আমি মনে করি এরিক টেন হ্যাগ সত্যিই ভালো করছে।'

এদিকে গুঞ্জন রয়েছে জানুয়ারিতেই ফের নতুন কোনো ক্লাবের সন্ধানে নামছেন রোনালদো। ক্লাবও না-কি তা মেনে নিবে। তবে গ্রীষ্মের দল-বদলে তার চাহিদার কথাও মনে করিয়ে দিলেন এ সাবেক ডিফেন্ডার, 'আমার মতে, আমি আশা করি সে কোনোভাবে ভাবতে পারেন, ''আমি কোথায় খেলতে যাচ্ছি যেখানে ভক্তরা আমাকে অনেক ভালোবাসে, যেখানে এখনও টেবিলে ট্রফি রয়েছে? আমরা এসব জিনিস অর্জন করতে পারি।'' সে ইউরোপে কোথায় খেলতে যাচ্ছে? গ্রীষ্মের ট্রান্সফার উইন্ডোতে কেউ তাকে নিতে চায়নি। আমি মনে করি ইউনাইটেড এটা ভালোভাবে নিয়ন্ত্রণ করেছে।'

Comments

The Daily Star  | English

The cost-of-living crisis prolongs for wage workers

The cost-of-living crisis in Bangladesh appears to have caused more trouble for daily workers as their wage growth has been lower than the inflation rate for more than two years.

41m ago