টেনিস

ফেদেরারকে মিস করবেন মেসি

ফুটবল ক্যারিয়ার যখন শুরু করেন লিওনেল মেসি তখন টেনিসের অন্যতম সেরা তারকা রজার ফেদেরার। এক অর্থে ক্রীড়াবিশ্বের সেরাই বলা চলে। দাপুটে পারফরম্যান্সে কতো রেকর্ড-কীর্তি গড়ে ভক্তদের মোহাচ্ছন্ন রেখেছিলেন। সেই ফেদেরার আগের অবসর নিয়েছেন টেনিস থেকে। তাতে বিশ্বের অন্যসব ভক্তদের মতো হৃদয় ভেঙেছে মেসিরও।

ফুটবল ক্যারিয়ার যখন শুরু করেন লিওনেল মেসি তখন টেনিস জগতের অন্যতম সেরা তারকা রজার ফেদেরার। এক অর্থে ক্রীড়াবিশ্বের সেরাই বলা চলে। দাপুটে পারফরম্যান্সে কতো রেকর্ড-কীর্তি গড়ে মোহাচ্ছন্ন রেখেছিলেন ভক্তদের। মেসিও ছিলেন সেই তালিকায়। সেই ফেদেরার বিদায় জানিয়েছেন টেনিসকে। তাতে বিশ্বের অন্যসব ভক্তদের মতো হৃদয় ভেঙেছে মেসিরও।

মূলত চোটের কাছে হার মেনে টেনিসকে বিদায় জানালেন ফেদেরার। অনেক দিন ধরে মাঠের বাইরে থাকা এ তারকা বৃহস্পতিবার পেশাদার টেনিস থেকে অবসরের সিদ্ধান্তের কথা জানিয়ে দেন। চলতি মাসের শেষে লন্ডনে লেভার কাপে শেষ বারের মতো দেখা যাবে তাকে।

ফুটবলের বাইরে টেনিস যে অন্যতম পছন্দের খেলা তা অনেকবারই বলেছেন মেসি। ফেদেরার ছিলেন তার অন্যতম পছন্দের খেলোয়াড়। সেই ফেদেরারকে কোর্টে আর দেখতে পারবেন না সেটা যেন মানতেই পারছেন না মেসি। তবে বিদায় লগ্নে তাকে শুভ কামনা জানিয়েছেন এ পিএসজি তারকা।

অবসর সিদ্ধান্তে ফেদেরার শুভ কামনা জানালেও তার অভাবটাও যে টের পাবেন জানিয়ে দেন মেসি। সামাজিকমাধ্যম ইনস্টাগ্রামে লিখেছেন, 'একজন প্রতিভাধর। টেনিসের ইতিহাসে অনন্য এবং যেকোনো ক্রীড়াবিদের জন্য এক দৃষ্টান্ত। নতুন মঞ্চে আপনার জন্য শুভ কামনা। আমরা আপনাকে কোর্টে মিস করব, যা আমরা উপভোগ করেছি।'

ক্যারিয়ারের শেষ দিকে আছেন মেসিও। ফেদেরারের মতো কোনো একদিন জানিয়ে দিবেন বিদায় বার্তা। কিন্তু এই বিদায় বার্তা যে কতোটা কঠিন তা যেন বুঝতে পেরেছেন এ আর্জেন্টাইন।

১৯৯৮ সালে ক্যারিয়ার শুরু করা ফেদেরার ২০টি গ্র্যান্ড স্ল্যাম সহ সবধরনের প্রতিযোগিতা মিলিয়ে জিতেছেন ১০৩টি শিরোপা। টানা ২৩৭ সপ্তাহ র‍্যাঙ্কিংয়ের শীর্ষে থাকার রেকর্ডটিও তার। প্রথম গ্র্যান্ড স্ল্যাম জিতেছিলেন ২০০৩ সালের উইম্বলডনে। তার সবশেষ গ্র্যান্ড স্ল্যাম শিরোপা ছিল ২০১৮ সালের অস্ট্রেলিয়ান ওপেন। গত দুই বছরে তার হাঁটুতে তিনটি অস্ত্রোপচার করানো হয়েছে। ২০২১ সালের উইম্বলডনের কোয়ার্টার ফাইনালে পোল্যান্ডের হুবার্ত হুরকাজের কাছে হারের পর থেকে কোনো প্রতিযোগিতামূলক ম্যাচে দেখা যায়নি তাকে।

Comments

The Daily Star  | English

To Europe Via Libya: A voyage fraught with peril

An undocumented Bangladeshi migrant worker choosing to enter Europe from Libya, will almost certainly be held captive by armed militias, tortured, and their families extorted for lakhs of taka.

4h ago