বাংলাদেশের পেসারদের ইতিহাস

আয়ারল্যান্ডকে ১০১ রানে গুটিয়ে দেওয়ার দিনে সবগুলো উইকেট নেন বাংলাদেশের তিন পেসার হাসান মাহমুদ, ইবাদত হোসেন ও তাসকিন আহমেদ।
ছবি: ফিরোজ আহমেদ

'আমরা সবাই পেসারদের দ্বারা অনুপ্রাণিত।' এইতো কদিন আগেই এমন মন্তব্য করেছিলেন স্পিন বোলিং কোচ রঙ্গনা হেরাথ। সাম্প্রতিক সময়ে পেসারদের দুর্দান্ত সাফল্যে এমন মন্তব্য করেছিলেন এ লঙ্কান কোচ। আর উন্নতির ধারা যে চলমান তা প্রমাণ হলো আরও একবার। দেশের ক্রিকেটের ইতিহাসে প্রথমবারের মতো এক ইনিংসে ১০টি উইকেট নিলেন পেসাররা। 

বৃহস্পতিবার সিলেট আন্তর্জাতিক ক্রিকেট স্টেডিয়ামে সিরিজের তৃতীয় ও শেষ ওয়ানডে ম্যাচে আয়ারল্যান্ডকে ১০১ রানে গুটিয়ে দিয়েছে বাংলাদেশ। যেখানে সবগুলো উইকেট নেন বাংলাদেশের তিন পেসার হাসান মাহমুদ, ইবাদত হোসেন ও তাসকিন আহমেদ। প্রথমবারের মতো ফাইফার তুলে নেন হাসান। বাকি পাঁচটি উইকেট ভাগ করে নেন তাসকিন ও ইবাদত।

আন্তর্জাতিক অঙ্গনে হরহামেশা এক ইনিংসে পেসাররা ১০ উইকেট নিলেও দেশের ক্রিকেটের ইতিহাসে এটাই প্রথম। ওয়ানডে, টি-টোয়েন্টি কিংবা টেস্ট কোনো সংস্করণেই এর আগে এমনটা হয়নি। এর আগে এক ইনিংসে সর্বোচ্চ ৮ উইকেট নেওয়ার রেকর্ড রয়েছে একাধিকবার।

অথচ এদিনের একাদশে ছিলেন তিনজন বিশেষজ্ঞ স্পিনার। দুই বাঁহাতি স্পিনার সাকিব আল হাসান ও নাসুম আহমেদের সঙ্গে এদিন দলে ফেরেন অফস্পিনার মেহেদী হাসান মিরাজও। কিন্তু সাকিব এদিন বোলিংয়েই আসেননি। নাসুম করেছেন তিন ওভার। আর মাত্র এক ওভার হাত ঘোরান মিরাজ।

এদিন আইরিশ শিবিরে প্রথম আঘাত হানেন হাসান। ইনিংসের পঞ্চম ওভারে ভাঙেন ওপেনিং জুটি। তার অফ স্টাম্পের বাইরের বল জায়গায় দাঁড়িয়ে খেলতে গিয়ে স্টিফেন ডোহেনি ক্যাচ দেন উইকেটরক্ষক মুশফিকুর রহিমের হাতে। এরপর এ তরুণ পল স্টার্লিং ও হ্যারি ট্যাক্টরকে ফেলেন এলবিডাব্লিউর ফাঁদে।

হাসানের তিন উইকেট শিকারের পর মঞ্চে আসেন তাসকিন। আইরিশ অধিনায়ক অ্যান্ডি বালবার্নিকে স্লিপে নাজমুল হোসেন শান্তর ক্যাচে পরিণত করেন। এরপর অবশ্য কিছুটা প্রতিরোধ গড়েছিলেন লরকান টাকার ও কার্টিস ক্যাম্ফার। টাকারকে এলবিডাব্লিউর ফাঁদে ফেলে ৪২ জুটি ভাঙেন ইবাদত। পরের বলে জর্জ ডকরেলকে বোল্ড করে হ্যাটট্রিকের সম্ভাবনা তৈরি করেন এ পেসার।

২২তম ওভারে ফিরে অ্যান্ডি ম্যাকব্রাইন ও মার্ক অ্যাডাইরকে তুলে আইরিশ শিবিরে জোড়া ধাক্কা দেন তাসকিন। ক্যাম্ফার অবশ্য এক প্রান্ত আগলে চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছিলেন। তাকে তাসকিনের ক্যাচে পরিণত করে ফেরান হাসান। পরের ওভারে ফিরে গ্রাহাম হিউমকে ফিরিয়ে নিজের ফাইফার পূরণ করেন এ তরুণ। 

শেষ পর্যন্ত ৮.১ ওভার বল করে ৩২ রানের খরচায় ৫টি উইকেট নেন হাসান। পুরো কোটার ১০ ওভার বল করে ২৬ রানের বিনিময়ে ৩টি শিকার তাসকিনের। ৬ ওভার বল করে ১৯ রান দিয়ে ২টি উইকেট নেন ইবাদত।

  

Comments

The Daily Star  | English

Submarine cable breakdown disrupts Bangladesh internet

It will take at least 2 to 3 days to resume the connection

1h ago