মেসির দুই রেকর্ড

কিছুটা আক্ষেপ করতেই পারেন লিওনেল মেসি, বিশ্বকাপটা নির্ধারিত সময়ে হলে বয়সটা আরও ছয় মাস থাকতো তার। আর সেক্ষেত্রে রেকর্ডটাও হতো আরও দৃঢ়। তবুও নতুন ইতিহাস গড়লেন আর্জেন্টাইন অধিনায়ক। সর্বকনিষ্ঠ ফুটবলার হিসেবে পঞ্চম বিশ্বকাপে খেলছেন এ মহাতারকা। এছাড়া পঞ্চম খেলোয়াড় হিসেবে ৪টি বিশ্বকাপে গোল দেওয়ার রেকর্ডও গড়েন আর্জেন্টাইন অধিনায়ক।

কিছুটা আক্ষেপ করতেই পারেন লিওনেল মেসি, বিশ্বকাপটা নির্ধারিত সময়ে হলে বয়সটা আরও ছয় মাস থাকতো তার। আর সেক্ষেত্রে রেকর্ডটাও হতো আরও দৃঢ়। তবুও নতুন ইতিহাস গড়লেন আর্জেন্টাইন অধিনায়ক। সর্বকনিষ্ঠ ফুটবলার হিসেবে পঞ্চম বিশ্বকাপে খেলছেন এ মহাতারকা। এছাড়া পঞ্চম খেলোয়াড় হিসেবে ৪টি বিশ্বকাপে গোল দেওয়ার রেকর্ডও গড়েন আর্জেন্টাইন অধিনায়ক।

মঙ্গলবার লুসাইল স্টেডিয়ামে গ্রুপ পর্বের প্রথম ম্যাচে সৌদি আরবের বিপক্ষে শুরুতেই গোল পেয়েছেন মেসি। ম্যাচের দশম মিনিটে সফল স্পট কিক থেকে লক্ষ্যভেদ করেন তিনি। তাতেই রেকর্ড স্পর্শ করেন মেসি। আর্জেন্টিনার হয়ে প্রথম খেলোয়াড় হিসেবে চারটি বিশ্বকাপে গোল করলেন অধিনায়ক।

এর আগে চারটি বিশ্বকাপে গোল দিয়েছেন পর্তুগালের ক্রিস্তিয়ানো রোনালদো, ব্রাজিলিয়ান কিংবদন্তি পেলে এবং দুই জার্মান তারকা উই সিলার ও মিরাস্লাভ ক্লোসা। তবে এ চার তারকাই গোল দিয়েছেন টানা চারটি বিশ্বকাপে। এবার অবশ্য এ রেকর্ডটা এককভাবে নিজের করে নেওয়ার সুযোগ রয়েছে রোনালদোর।

এদিন মাঠে নামার আগে চার জন খেলোয়াড় ছিলেন যারা পাঁচটি করে বিশ্বকাপ খেলেছেন। মেক্সিকোর আন্তনিও কারবাহাল, জার্মানির লোথার ম্যাথিউজ ও মেক্সিকোর রাফায়েল মার্কুয়েজ এতো দিন ছিলেন এ তালিকায়। তাদের সঙ্গে যুক্ত হলেন মেসি। এছাড়া ইতালির জিয়ানলুইজি বুফনও ছিলেন পাঁচটি বিশ্বকাপে। তবে প্রথমবার মাঠে নামা হয়নি তার।

পঞ্চম বিশ্বকাপ খেলাকালিন সময়ে বুফনের বয়স ছিল ৩৬ বছর, কারবাহাল ও ম্যাথিউজের ছিল ৩৭ বছর এবং মার্কুয়েজের ছিল ৩৯ বছর বয়স। যেখানে ৩৫ বছর বয়সেই এ রেকর্ডটি গড়লেন মেসি। বিশ্বকাপ যদি নির্ধারিত সময়ে অর্থাৎ জুন-জুলাইয়ে হতো, তাহলে বয়সটা আরও ছয় মাস কম থাকতো মেসির। সেক্ষেত্রে ৩৪ বছর বয়সেই রেকর্ডটা গড়তে পারতেন আর্জেন্টাইন অধিনায়ক।

একই সঙ্গে দেশের হয়ে সবচেয়ে বেশি সংখ্যক বিশ্বকাপে খেলার রেকর্ডটিও করলেন মেসি। আর্জেন্টিনার খেলোয়াড়দের মধ্যে মেসির সমান ৪টি করে বিশ্বকাপে অংশ নিয়ে কিংবদন্তি দিয়াগো ম্যারাডোনা ও সাবেক সতীর্থ হ্যাভিয়ের মাসচেরানোর পাশে ছিলেন তিনি।

এছাড়া আর্জেন্টিনার হয়ে বিশ্বকাপে সবচেয়ে বেশি ম্যাচ খেলার রেকর্ডের খুব কাছে রয়েছেন মেসি। যা মাঠে নামার পরই বিশ্বকাপের মঞ্চে ম্যাচ খেললেন ২০টি। আর্জেন্টিনার হয়ে সর্বাধিক ম্যাচ খেলেছেন সাবেক অধিনায়ক কিংবদন্তি দিয়াগো ম্যারাডোনা। বিশ্বমঞ্চে ২১টি ম্যাচ খেলেছেন তিনি। তবে জার্মানির লোথার ম্যাথিউজ সর্বোচ্চ ২৫টি ম্যাচ খেলেছেন বিশ্বকাপে।

Comments