টানা এত নো-বল, বুঝতেই পারলেন না আম্পায়ার

টানা ৪টি নো-বল করলেন বেন স্টোকস। কিন্তু তার একটিও লক্ষ্য করতে পারলেন আম্পায়ার। বৃহস্পতিবার এমনই এক বিরল ঘটনা ক্রিকেট বিশ্বের সবচেয়ে রোমাঞ্চকর লড়াই অ্যাশেজে দেখেছে ক্রিকেট বিশ্ব। যা নিয়ে তৈরি হয়েছে তীব্র বিতর্ক।

টানা ৪টি নো-বল করলেন বেন স্টোকস। কিন্তু তার একটিও লক্ষ্য করতে পারলেন না আম্পায়ার। পরে দেখা গেল নো বল হয়েছে ১৪টি, ধরা পড়েছে কেবল দুটি। বৃহস্পতিবার এমনই এক বিরল ঘটনা ক্রিকেট বিশ্বের সবচেয়ে রোমাঞ্চকর লড়াই অ্যাশেজে দেখেছে ক্রিকেট বিশ্ব। যা নিয়ে তৈরি হয়েছে তীব্র বিতর্ক।

ম্যাচের ত্রয়োদশ ওভারের ঘটনা। অস্ট্রেলিয়ার সংগ্রহ তখন ১ উইকেটে ২৬ রান। বল হাতে আসেন বেন স্টোকস। ব্যাটিং করছিলেন ডেভিড ওয়ার্নার। চতুর্থ বলে অসাধারণ এক ডেলিভারিতে এ অজি ওপেনারের স্টাম্প ভাঙেন স্টোকস। ওয়ার্নার তখন সাজঘরের দিকে কেবল রওনা হয়েছেন। রুটিন চেক আপ করা হয় সেই ডেলিভারির। কিন্তু ওভার স্ট্যাপিংয়ের জন্য বেঁচে যান ওয়ার্নার।

বিষয়টি নজরে আসে তখনই। চেক করা হয় আগের  বলগুলোও। প্রথমটি তো ছিল বিশাল নো-বল। প্রায় চার ইঞ্চি দাগ পেরিয়ে গিয়েছিলেন তিনি। কিন্তু তার কোনোটাই দৃষ্টিগোচর হয়নি আম্পায়ারের। এমনকি টিভি আম্পায়ারও দেখেননি। তাতেই বেজায় খেপেছেন অস্ট্রেলিয়ানরা। পরে চ্যানেল সেভেন দেয় আরও অবাক করা তথ্য। স্টোকস তার প্রথম ৫ ওভারে করেন ১৪টি নো বল। যার মধ্যে ধরা পড়েছে কেবল দুটি। 

অথচ ২০১৯ সাল থেকে বোলারদের প্রতিটি ডেলিভারি পর্যবেক্ষণ করতে টিভি আম্পায়ারদের ব্যবহার করার নির্দেশনা দিয়েছে। শুরুতে ট্রায়াল চললেও আনুষ্ঠানিকভাবে ২০২০ সাল থেকে ইংল্যান্ড ও পাকিস্তানের মধ্যকার টেস্ট ক্রিকেটে এটা প্রথমবারের মতো ব্যবহার করা হয়েছিল।

স্টোকসের এই টানা চার নো-বলের জন্য স্বাভাবিকভাবেই আম্পায়ারকে দোষ দিচ্ছেন সাবেক অজি অধিনায়ক রিকি পন্টিং, 'কেউ যদি এগুলো পর্যবেক্ষণ করার পরেও নো-বল না দেয়, তা হলে সেটা খুবই দুঃখজনক। আমার কাছে মনে হয়, এগুলো নো-বলই ছিল। ওভারের প্রথম বলটিই যদি আম্পায়ার ধরিয়ে দিতেন, তা হলে হয়ত স্টোকস নিজেকে শুধরে নিতে পারত।'

অবাক হয়েছেন অস্ট্রেলিয়ার কিংবদন্তি আম্পায়ার সাইমন টোফেলও, 'এখন তো প্রযুক্তির সাহায্যে সব বল পর্যবেক্ষণ করার কথা। আমি বুঝতে পারছি না, কেন এই বলগুলো পর্যবেক্ষণ করা হলো না। মাঠের আম্পায়ারদের সাহায্য করার জন্য তো আইসিসির প্রযুক্তিবিদরাও রয়েছেন।'

পরে অবশ্য জানা গেছে ব্রিসবেনের গ্যাবার মাঠের নো বল প্রযুক্তিই অকেজো হয়ে পড়েছিল। প্রযুক্তি কাজ না করলেও মাঠের আম্পায়ার কীভাবে এতগুলো নো বল এড়িয়ে গেলেন সেটিও বিস্ময়ের। ব্রিসবেন টেস্টে মাঠের আম্পায়ারের দায়িত্বে আছেন পল রাইফেল ও রড টাকার, থার্ড আম্পায়ার পল উইলসন। তিন জনই অস্ট্রেলিয়ান।

 

 

Comments

The Daily Star  | English

Sundarbans cushions blow

Cyclone Remal battered the coastal region at wind speeds that might have reached 130kmph, and lost much of its strength while sweeping over the Sundarbans, Met officials said. 

4h ago