ইনিংস হার এড়ানোর চ্যালেঞ্জে প্রথম সেশনে পড়ল ২ উইকেট

মঙ্গলবার ক্রাইস্টচার্চ টেস্টের তৃতীয় দিন অনুমিতভাবে বাংলাদেশ আবার ব্যাট করতে পাঠায় নিউজিল্যান্ড। ৩৯৫ রানে পিছিয়ে থাকা মুমিনুল হকের দল লাঞ্চ বিরতির আগে ২ উইকেট হারিয়ে তুলেছে ৭৪  রান। ইনিংস হার এড়াতে এখনো প্রয়োজন ৩২১ রান।
Kyle Jamieson
ওপেনার সাদমান ইসলামকে বাংলাদেশকে ফিরিয়ে প্রথম ধাক্কা দেন কাইল জেমিসন। ছবি- টুইটার

চরম ব্যাটিং ব্যর্থতায় আগের দিনই ম্যাচের গতিপথ অনেকটা নির্ধারিত হয়ে গিয়েছিল। ফলোঅনে পড়ে ম্যাচ বাঁচানোর কঠিনতম চ্যালেঞ্জে দ্বিতীয় ইনিংসে নেমে জুতসই শুরুর পরও প্রথম সেশনে পড়ে গেছে ২ উইকেট।

মঙ্গলবার ক্রাইস্টচার্চ টেস্টের তৃতীয় দিন অনুমিতভাবে বাংলাদেশ আবার ব্যাট করতে পাঠায় নিউজিল্যান্ড। ৩৯৫ রানে পিছিয়ে থাকা মুমিনুল হকের দল লাঞ্চ বিরতির আগে ২ উইকেট হারিয়ে তুলেছে ৭৪  রান। ইনিংস হার এড়াতে এখনো প্রয়োজন ৩২১ রান।

প্রথম সেশনের একদম শেষ দিকে উইকেট ছুঁড়ে ফিরে গেছেন দারুণ খেলতে থাকা নাজমুল হোসেন  শান্ত। ওয়ানডে মেজাজে ৫ চার, ১ ছক্কায় ৩৬ বলে ২৯ করেছেন তিনি। নড়বড়ে খেলেও টিকে গিয়ে ওপেনার নাঈম শেখ অপরাজিত আছেন ৮১ বলে ১৫  রানে। তার সঙ্গে যোগ দিয়েছেন অধিনায়ক মুমিনুল (২*)

সকালে নেমে দুই ওপেনার সাদমান ইসলাম ও নাঈম মন দেন টিকে থাকার দিকেই। উইকেটে ওভারের পর ওভার কাটিয়ে দেওয়াই ছিল তাদের ব্রত। প্রথম ঘণ্টা সেভাবেই পার করে দেন তারা। থিতু হওয়া সাদমানের বিদায়ে ১৪তম ওভারে গিয়ে ভাঙ্গে এই জুটি। ৪৮ বলে ২১ করে কাইল জেমিসনের বলে উইকেটের পেছনে ধরা দেন সাদমান।

এরপর নাঈমকে নিয়ে দ্রুত এক জুটি গড়ে তুলেন শান্ত। ইতিবাচক মানসিকতায় খেলে রান বাড়ানোর দিকে মন দেন তিনি। নেইল ওয়েগনারের সঙ্গে জমে উঠে তার লড়াই। ওয়েগনারের টানা শর্ট বল কুঁকড়ে না গিয়ে চালাতে থাকেন। আসে দারুণ কিছু বাউন্ডারি।

থিতু হয়ে ইনিংস বড় করার আভাস ছিল শান্তর ব্যাটে। কিন্তু প্রথম সেশনের শেষ দিকে বাজে শটে ইতি তার। লেগ স্টাম্পের বাইরে শর্ট বলে পুরোপুরি জায়গা বের করে খেলতে পারেননি। ফাইন লেগ থাকার পরও ঝুঁকি নেন তিনি। ক্যাচ যায় ওই ফাইন লেগের হাতেই। দ্বিতীয় উইকেটে ভাঙ্গে ৪৪ রানের জুটি। যাতে শান্তর অবদান ২৯, নাঈমের ১০।

এদিন খুব একটা স্যুয়িং আদায় করতে দেখা যায়নি টিম সাউদি-ট্রেন্ট বোল্টদের। ক্রাইস্টচার্চে সাধারণত তৃতীয় দিনে উইকেট ব্যাট করার জন্য থাকে আদর্শ। বাংলাদেশ এই কন্ডিশন কতটা কাজে লাগাতে পারে দেখার বিষয়।

Comments

The Daily Star  | English

Free rein for gold smugglers in Jhenaidah

Since he was recruited as a carrier about six months ago, Sohel (real name withheld) transported smuggled golds on his motorbike from Jashore to Jhenaidah’s Maheshpur border at least 27 times.

6h ago