‘মুনিমের ভালো সুযোগ আছে’

এক সিরিজ পর লিটন দাস ফেরায় ওপেনিংয়ে একটা জায়গা অনেকটা চূড়ান্ত। ওপেনিংয়ের পাশাপাশি কিপিং গ্লাভস হাতেও দেখা যাবে লিটনকে। আরেকটি স্পট নিয়ে মুনিমের সঙ্গে লড়াইয়ে নাঈম শেখের।
Munim Shahriar
বাংলাদেশের হয়ে টি-টোয়েন্টিতে অভিষেক হচ্ছে মুনিম শাহরিয়ারের? ছবি: ফিরোজ আহমেদ

শেখ মেহেদী হাসানের বলটা খানিকটা এগিয়ে তেড়েফুঁড়ে সোজা মারলেন মুনিম শাহরিয়ার। বেশ খানিকটা দূরে আম্পায়ারের ভূমিকায় দাঁড়ানো স্পিন বোলিং কোচ রঙ্গনা হেরাথ শেষ মুহূর্তের রিফ্লেক্সে নিজেকে রক্ষা করলেন। ইনডোরের দেয়ালে গিয়ে সজোরে আছড়ে পড়ল বল। বুধবার অনুশীলনে এরকম মেজাজেই পাওয়া গেল মুনিমকে। প্রথমবার স্কোয়াডে আসা এই তরুণের একাদশে সুযোগ মিলবে? অধিনায়ক মাহমুদউল্লাহর কণ্ঠে মিলল ইতিবাচক আভাস।

এক সিরিজ পর লিটন দাস ফেরায় ওপেনিংয়ে একটা জায়গা অনেকটা চূড়ান্ত। ওপেনিংয়ের পাশাপাশি কিপিং গ্লাভস হাতেও দেখা যাবে লিটনকে। আরেকটি স্পট নিয়ে মুনিমের সঙ্গে লড়াইয়ে নাঈম শেখের।

জাতীয় দলের হয়ে টি-টোয়েন্টিতে কিছু রান পেলেও নাঈমের খেলার ধরণ নিয়ে আছে অজস্র প্রশ্ন। সম্প্রতি বিপিএলে ছিলেন চরম ব্যর্থ। তার স্কোয়াডে থাকা নিয়েও বড় প্রশ্ন উঠে। বুধবার অনুশীলনে নাঈমকে যথেষ্ট গুরুত্ব দিয়েছেন কোচরা। পাশাপাশি নেটে লম্বা সময় নিয়ে ব্যাট করেছেন নাঈম-মুনিম।

অনুশীলন শেষে গণমাধ্যমের সঙ্গে আলাপে মাহমুদউল্লাহ জানালেন মুনিমকে খেলানোর ব্যাপারে ইতিবাচক তারা, 'মুনিমের ভালো সুযোগ আছে কাল। এখন নিশ্চিত করে বলতে পারব না। উইকেট দেখলাম, এখন পরিকল্পনা করব ব্যাটিং অর্ডার কীভাবে সাজানো যায়।'

গত বেশ কিছু দিন ধরে টি-টোয়েন্টিতে পাওয়ার প্লে কাজে লাগছে না বাংলাদেশের। এই জায়গায় মন্থর খেলে চাপ তৈরি করছেন নাঈম।  ডানহাতি মুনিমকে দলে নেওয়ার পেছনে কাজ করেছে পাওয়ার প্লের ঝড়। নির্বাচকরা পাওয়ার প্লের ঘাটতি পূরণে এমন একজনকে চাইছিলেন যিনি দ্রুত রান এনে দিতে পারেন। মাহমুদউল্লাহ জানালেন এই ঘাটতি এবার তারা পূরণ করতে পারবেন,  '(পাওয়ার প্লে'র দুর্দশা) আশা করি বের হতে পারব। আমাদের যে টিম কম্বিনেশন, দলের শক্তি তাতে পাওয়ার প্লে'তে ৪০-৪৫ রান নিতে পারি। ওটা যদি আমরা করতে পারি তাহলে আমরা সঠিক জায়গায় থাকব। হয়ত প্রতিদিন আপনি আকাশচুম্বী শুরু পাবেন না। যদি পেয়ে যান তাহলে খুব ভালো। ব্যাটিং ইউনিট হিসেবে অন্তত ১৫০-১৬০ ধারাবাহিকভাবে করতে হবে। তাহলে আমাদের খেলায় সুযোগ থাকবে। সেটার দিকে অবশ্যই আমরা কথাবার্তা বলছি, কাজ করছি। আশা করি আমরা পথ খুঁজে পাব।'

Comments

The Daily Star  | English

Extreme heat sears the nation

The scorching heat continues to disrupt lives across the country, forcing the authorities to close down all schools and colleges till April 27.

5h ago