ওয়ার্ডল: রঙিন বক্সের শব্দ ধাঁধার খেলা

আজকাল অনেকে তাদের ফেসবুক প্রোফাইল থেকে শেয়ার দিচ্ছেন কয়েকটি হলুদ, সবুজ ও ধুসর রঙের বর্গাকার বক্স। প্রথম দেখায় ঠিক বোঝার উপায় নেই এর অর্থ কি। আসলে একটি গেমের ফলাফল শেয়ার করছেন ব্যবহারকারীরা। 
ছবি: সংগৃহীত

আজকাল অনেকে তাদের ফেসবুক প্রোফাইল থেকে শেয়ার দিচ্ছেন কয়েকটি হলুদ, সবুজ ও ধুসর রঙের বর্গাকার বক্স। প্রথম দেখায় ঠিক বোঝার উপায় নেই এর অর্থ কি। আসলে একটি গেমের ফলাফল শেয়ার করছেন ব্যবহারকারীরা। 

সম্প্রতিকালে ভাইরাল হওয়া এই গেমটির নাম ওয়ার্ডল। রেডিটের সফটয়ার ইঞ্জিনিয়ার জশ ওয়ার্ডল গেমটির নির্মাতা। এটি প্রথমে নিজের অবসর সময়ে খেলার জন্যই তৈরি করেছিলেন তিনি। বর্তমানে শব্দ ভাণ্ডারের কৌশল নিয়ে তৈরি হয়া ফ্রি এই গেমটি ধীরে ধীরে অত্যন্ত জনপ্রিয় এবং ভাইরাল একটি গেমে পরিণত হতে যাচ্ছে।

ছবি: সংগৃহীত

ওয়ার্ডল গেমটি কী? 

ফেসবুক টুইটারের সুবাদে এটি ভাইরাল হলেও ফেসবুকে এই গেমটি খেলা যায় না। শুধু ফলাফল শেয়ার করা যায়। গেমটি খেলার জন্য ব্যবহারকারীকে কোনো একটি ওয়েব ব্রাউজারে প্রবেশ করতে হবে। কোনো ধরনের অর্থ ব্যয় ছাড়াই যে কেউ https://www.powerlanguage.co.uk/wordle/ এই ওয়েব সাইটে গিয়ে ওয়ার্ডল গেমটি খেলতে পারবেন। 

ওয়ার্ডল একটি শব্দভিত্তিক ধাঁধার খেলা। ব্যাবহারকারীকে ৫ অক্ষরের একটি ইংরেজি শব্দ অনুমান করতে হয়। সুযোগ থাকে ৬ বার। শব্দভাণ্ডারের কৌশল নিয়ে খেলা নতুন কিছু নয়। পত্রিকার সুবাদে তা আমাদের কাছে আগে থেকেই পরিচিত। তবে ওয়ার্ডল গেমটির বিশেষত্ব হলো এটি অনলাইনে খেলা যায় এবং আপাতত সেটি বিনামূল্যে। এ ছাড়া কোনো ধরনের বিজ্ঞাপন দেখা ছাড়াই খেলা যায়। 

খেলার নিয়ম 

ওয়েবসাইটে প্রবেশ করার পর আপনাকে ৫ অক্ষরের যেকোনো একটি শব্দ অনুমান করতে হবে। প্রত্যেকে ৬ বার করে সুযোগ পাবে। প্রথম চেষ্টায় কোনো সূত্র ছাড়াই আপনাকে পুরোপুরি অনুমানের ওপর ভিত্তি করে ৫ শব্দের একটি ইংরেজি শব্দ লিখতে হবে। এরপর এন্টার বাটনে চাপ দিলেই গেমের প্রথম হিন্টস বা নির্দেশনা পাওয়া যাবে। 

ছবি: সংগৃহীত

এন্টার চাপ দেওয়ার সঙ্গে সঙ্গে আপনার অক্ষরটি যদি সবুজ রংয়ের হয়ে যায়, তাহলে সেই অক্ষরটি শব্দে রয়েছে এবং সঠিক স্থানেই অবস্থান করছে। অক্ষরটি যদি হলুদ হয়ে যায়, তবে সেই অক্ষরটি উক্ত শব্দে রয়েছে, তবে ভুল স্থানে। আর পুরোপুরি ধূসর রঙ হয়ে যাওয়ার অর্থ হলো, সেটা ভুল। ওই অক্ষর শব্দের কোথাও নেই।

সবগুলো অক্ষর সবুজ হলে সেটাই ওইদিনের সঠিক শব্দ। খেলা শেষের পর ব্যবহারকারীরা তাদের ফলাফল ফেসবুক টুইটারে শেয়ার করতে পারেন। সবুজ, হলুদ এবং ধুসর রঙের মিলেয়ে মোট ৩০টি বক্সের ছবিই তখন ওই গেমের ফলাফল।  

ওয়ার্ডল কেন এত জনপ্রিয় হল?

গেমের ফলাফলই যদি এত রহস্যময় হবে তবে তা মানুষকে আকৃষ্ট করতে বাধ্য। এ ছাড়া ওয়েব সাইটের মিনিমাল ডিজাইন এবং বিজ্ঞাপনবিহীন ফ্রি অনলাইন গেম হওয়ার কারণে স্বাভাবিকভাবেই তা জনপ্রিয় হওয়ার কথা। তবে ওয়ার্ডল গেমের জনপ্রিয়তার পেছনে রয়েছে আরেকটি মনোস্তাত্বিক  কারণ।

প্রতিদিন এই গেমে সব ব্যবহারকারীকেই একটি শব্দই অনুমান করতে বলা হয়। ২৪ ঘণ্টা পর আবার নতুন একটি শব্দ, যা এই গেমের চাহিদা বাড়িয়ে দিয়েছে বহুগুণ। 

অনলাইনভিত্তিক শব্দধাঁধা গেমগুলোর বৈশিষ্ট্য হলো ব্যবহারকারীকে অনেকগুলো শব্দ অনুমান করতে হয় এবং সুযোগও থাকে অনেক। এ ছাড়া এ ধরনের গেমের প্রধান সমস্যা হলো একবার খেলার পর ফলাফলের শব্দগুলো সবাই জেনে যায়। তাই ব্যবহারকারীরা একবার খেলেই নতুন করে ওই গেমটি খেলার আর আগ্রহ পায় না। তবে ওয়ার্ডল গেমে যেহেতু সঠিক শব্দটি অন্য কাউকে না জানিয়েও ফলাফল প্রকাশ করা যায়। তাই অন্য গেমের তুলনায় ওয়ার্ডল গেমটি আরও আকর্ষনীয় হয়ে ওঠে এবং এই গেমে প্রতিদিন মাত্র একটি শব্দই অনুমান করতে হয়। ২৪ ঘণ্টা পর আবার সম্পূর্ণ নতুন একটি শব্দ। প্রতিদিন এই নতুন শব্দের নেশায় ব্যবহারকারীরা দৈনিক ওয়ার্ডল গেমটি খেলার আগ্রহ পায়। একদিনে একটি মাত্র শব্দ থাকার কারণে গেমে আসক্ত হওয়ারও সুযোগ নেই।   

ছবি: সংগৃহীত

এ ছাড়া এই গেমে ফলাফল শেয়ার করার সুযোগ নেই। শুধু বক্সের রঙ এবং অবস্থান দেখে বুঝতে হয় কতবার চেষ্টার ফলে সঠিক শব্দটি পাওয়া গেছে। আর স্কোরের বদলে বিভিন্ন রঙের বক্স যখন সামাজিক যোগাযোগযোগ মাধ্যমে শেয়ার করা হয় তখন তা বেশ দুর্বোধ এবং রহস্যময় মনে হয়। ফলাফল প্রকাশ করার এই ভিন্ন উপায়ই ওয়ার্ডল গেমটিকে দ্রুত জনপ্রিয়তা এনে দিয়েছে। 

ওয়ার্ডল গেমের অতীত, বর্তমান, ভবিষ্যৎ 

গেমটির প্রতিষ্ঠাতা ব্রিটিশ সফটওয়্যার ইঞ্জিনিয়ার জশ ওয়ার্ডল। ব্রুকলিনে বসবাসরত এই ইঞ্জিনিয়ার বর্তমানে জনপ্রিয় সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম রেডিটে চাকরি করছেন। ২০১৩ সালে তিনি প্রথম এই গেমটি তৈরি করেন। তবে তখন এই গেমটি এত জনপ্রিয়তা পায়নি। সম্প্রতি বৈশ্বিক মহামারি করোনার সংক্রমণে পুরো বিশ্বের বিভিন্ন দেশে লকডাউন দেওয়া হয়। জশ তখন বাসায় বসেই নিয়মিত শব্দধাঁধাভিত্তিক গেমগুলো খেলতেন। পরে তিনি তার প্রেমিকার সঙ্গে খেলার জন্যই পুরোনো সেই গেমটি নতুন করে তৈরি করেন। প্রথমে তারা দুজন মিলেই গেমটি খেলতেন। পরে তারা এই গেমটি তাদের পরিবার এবং বন্ধুদের মধ্যে শেয়ার করলে বেশ সাড়া পড়ে যায়। বন্ধু ও পরিবারের মধ্যে এত জনপ্রিয়তা লক্ষ্য করে জশ ২০২১ সালের অক্টোবর মাসে এই গেমটি অনলাইনে উন্মুক্ত করে দেন, বাকিটা ইতিহাস। বর্তমানে দৈনিক ৩ লাখ ব্যবহারকারী এই গেমটি খেলে থাকেন। 

সম্পূর্ণ বিনামূল্যে এবং বিজ্ঞাপন ছাড়া খুবই সহজ-সরল এই গেমটিকে সম্প্রতি বিখ্যাত পত্রিকা নিউ ইয়ার্ক টাইমস কিনে নিয়েছে। এইজন্য তারা ব্যয় করেছে প্রায় ১ মিলিয়ন ডলার। তাই অনেকেই দুশ্চিন্তা করছেন ওয়ার্ডল গেমটি আদতে আর ফ্রি এবং বিজ্ঞাপন মুক্ত থাকবে কি না।

 

তথ্যসূত্র:

নিউ ইয়র্ক টাইমস
এইচআইটিসি

 

Comments

The Daily Star  | English

Dhaka footpaths, a money-spinner for extortionists

On the footpath next to the General Post Office in the capital, Sohel Howlader sells children’s clothes from a small table.

26m ago