‘আমাকে সরানো হবে কিনা সিদ্ধান্তের ভার বোর্ডের’

দক্ষিণ আফ্রিকার বিপক্ষে টেস্ট সিরিজে হোয়াইটওয়াশ। দুই টেস্টেই শোচনীয় হার। টসে ভুল সিদ্ধান্ত, বাজে শরীরী ভাষা, খাপছাড়া অধিনায়কত্ব আর সংবাদ সম্মেলনে বেফাঁস কথা। সব মিলিয়ে গুঞ্জন উঠেছে মুশফিকুর রহিমকে নাকি টেস্ট অধিনায়ক থেকে অব্যাহতি দিতে চায় বোর্ড। কি বলছেন মুশফিক নিজে?
ব্লমফন্টেইন টেস্টে আউটের পর হতাশ মুশফিকুর রহিম। ছবি: এএফপি

দক্ষিণ আফ্রিকার বিপক্ষে টেস্ট সিরিজে হোয়াইটওয়াশ। দুই টেস্টেই শোচনীয় হার। টসে ভুল সিদ্ধান্ত, বাজে শরীরী ভাষা, খাপছাড়া অধিনায়কত্ব আর সংবাদ সম্মেলনে বেফাঁস কথা। সব মিলিয়ে  গুঞ্জন উঠেছে মুশফিকুর রহিমকে নাকি টেস্ট অধিনায়ক থেকে অব্যাহতি দিতে চায় বোর্ড। কি বলছেন মুশফিক নিজে?

ব্লফমন্টেইন টেস্টে আড়াই দিনেই ইনিংস ও ২৫৪ রানে হারের পর গণমাধ্যমের সামনে মুশফিক বললেন, ‘আমাকে সরানো হবে কি না এই সিদ্ধান্তের ভার বোর্ডের ওপর। তারাই আমাকে এই সম্মান, দেশকে নেতৃত্ব দেওয়ার দায়িত্ব দিয়েছে। আমি সততার সঙ্গে আমার সেরা চেষ্টা করেছি। তারা যদি সন্তুষ্ট না হয় তাহলে সিদ্ধান্ত নিতে পারে।’

কেবল মাঠের পারফরম্যান্স নয়। মুশফিক সমালোচিত হচ্ছেন সংবাদ সম্মেলনে করা মন্তব্যে। প্রথম টেস্টে বোলারদের তোলোধুনো করেছেন সবার সামনে। পরেরটিতে নিজের ফিল্ডিং পজিশনের স্বাধীনতা না থাকার কথাও জানিয়ে গেছেন। এতে অসন্তুষ্ট ক্রিকেট বোর্ড। 

মুশফিক বলছেন, ‘যা ঘটেছে আমি প্রথম দিনের খেলা শেষে কথা বলতে এসে কেবল তারই বর্ণনা দিয়েছি। যদি কেউ আমার মন্তব্যে খুশি না হয় তাদের অধিকার আছে আমার বা দলের ব্যাপারে সিদ্ধান্ত নেওয়ার।’

পরিসংখ্যান বলে মুশফিকের নেতৃত্বেই সবচেয়ে বেশি টেস্ট জিতেছে বাংলাদেশ। বাংলাদেশের ১০ জয়ের ৭টিতেই তিনি ছিলেন অধিনায়ক। তবে সেসময়কার দলের সঙ্গে বর্তমান দলের ফারাকটাও অনেক। দলকে বড় জয় পাইয়েও অনেক সমালোচনা মুশফিকের। তার রক্ষণাত্মক কৌশলের বদনাম হয় প্রায়শই। 

আপাতত বাংলাদেশের সামনে টেস্ট নেই। দক্ষিণ আফ্রিকার বিপক্ষে তিন ওয়ানডে ও দুই টি-টোয়েন্টির পর আছে বিপিএল। ডিসেম্বরে ঘরের মাঠে শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে টেস্ট খেলবে বাংলাদেশ। তখন কে অধিনায়ক হবে তা নিয়ে এরমধ্যেই চলছে গুঞ্জন। 

Comments

The Daily Star  | English

C&F staff halt work at 4 container depots

Staffers of clearing and forwarding (C&F) agents stopped working at four leading inland container depots (ICDs) in the port city since the early hours today following a dispute with customs officials, which eventually led to a clash between C&F staff and staff of an ICD

18m ago