আম নিয়েও বাংলাদেশের প্রতি ক্ষুব্ধ মমতা

পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রী মমতা ব্যানার্জি এবার বাংলাদেশে তাঁর রাজ্যের আম রফতানি নিয়ে ক্ষুব্ধ প্রতিক্রিয়া জানিয়েছেন।
Mamata
পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রী মমতা ব্যানার্জি। ছবি: এএফপি ফাইল ফটো

পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রী মমতা ব্যানার্জি এবার বাংলাদেশে তাঁর রাজ্যের আম রফতানি নিয়ে ক্ষুব্ধ প্রতিক্রিয়া জানিয়েছেন।

তিনি বলেন, মালদার ঐতিহ্যবাহী আম বিশ্বজুড়ে বিখ্যাত। এই আম আগে প্রতিবেশী বাংলাদেশে যেতো। কিন্তু সে দেশের সরকার এখন রফতানি শুল্ক ২৫ শতাংশ করায় আম রফতানি প্রায় বন্ধ হয়ে গিয়েছে। আগে ১০ শতাংশ ছিল। একটি দরজা বন্ধ হলে কি এসে যায়, আরও দরজা খুলে যাবে।

“আমরা ইউরোপে মালদার আম রফতানির জন্য যোগাযোগ করছি, এছাড়াও, বিশ্বের অনেক দেশ আছে যারা মালদার আম নিতে আগ্রহী,” মমতার অভিমত।

বেগমফল, গোলাপখাঁস, আঙুরডোবা, গজলস্বাদ ও চৌসা ছাড়াও মালদার বিখ্যাত ফজলি আম ভোজন-রসিক বাঙালির কাছে দারুণ প্রিয়। শুধু পশ্চিমবঙ্গ নয়; প্রতিবেশী বাংলাদেশেও প্রতি বছর হাজার হাজার কেজি মালদার আম রফতানি হয়। সম্প্রতি বাংলাদেশ সরকার আম আমদানির ওপর বাড়তি শুল্ক বরাদ্দ করেছে। আর সে কারণে এবার বাংলাদেশে মালদার আম রফতানি প্রায় অনিশ্চিত হয়ে পড়েছে।

এদিন শুধু আম নিয়েই ক্ষুব্ধ মনোভাব দেখান নি মুখ্যমন্ত্রী মমতা ব্যানার্জি। বরং মালদা মেডিকেল কলেজে চিকিৎসা নিতে আসা বাংলাদেশি রোগীদের ক্ষেত্রে খানিকটা কড়া মনোভাবের ইঙ্গিতও পাওয়া যায় তাঁর কথায়।

মমতার ভাষায়, বাংলাদেশের রোগীদের চিকিৎসা পাবে তাতে আমার কোনও আপত্তি নেই। কিন্তু তাঁরা তাঁদের সঠিক পরিচয়পত্র দেখিয়েই যেন চিকিৎসা নেন সেটা নিশ্চিত করতে হবে। কারণ হিসেবে মমতা বলেন, “চিকিৎসার একটা হিসাব তো রাখা প্রয়োজন। আপনাদের এই মেডিকেল থেকে কতজন স্থানীয় রোগী কিংবা কতজন বাইরের রোগীকে আপনারা চিকিৎসা দিচ্ছেন, তা জানা প্রয়োজন।”

তিনদিনের উত্তরবঙ্গ সফরের অংশ হিসাবে মালদা শহরে বৃহস্পতিবার পশ্চিমবঙ্গের প্রশাসনিক প্রধান মমতা ব্যানার্জি বেশ কিছু সরকারি প্রকল্পের উদ্বোধন করেন। একই সঙ্গে তিনি সেখানে একটি সভাতে বক্তব্য রাখেন।

আরও পড়ুন: তিস্তায় আপত্তির পর মমতার অভিযোগ: ‘আত্রাইয়ের পানি আটকে রাখছে বাংলাদেশ’

মমতা ব্যানার্জি সভায় বলেন, “মালদায় তৃণমূল একটি আসনও পায়নি। আমার অনেক অভিমান-কষ্ট আছে। কিন্তু তা সত্বেও মালদায় দুহাতে উন্নয়ন করেছি। জেলার ৯৮ শতাংশ মানুষ দুই টাকা কেজি দরে রেশনের চাল পাচ্ছেন। ছেলে মেয়েরা কন্যাশ্রী ও বিমামূল্যে সাইকেল পাচ্ছে। রাস্তা-ঘাট-স্কুল-কলেজ-হাসপাতালের উন্নয়ন হচ্ছে।”

তবে এদিন তিনি শুধু প্রশাসনিক বিষয় নিয়েই কথা বলেছেন তা নয়। বিজেপি, সিপিআইএম এবং কংগ্রেসের বিরুদ্ধেও কড়া সুরে কথা বলেছেন মমতা ব্যানার্জি।

বিজেপিকে দাঙ্গাবাজ দল বলে অ্যাখ্যায়িত করে তিনি বলেন, “টুইটারে, ফেসবুকে মিথ্যে প্রচারে করে দলটির কোনও কাজ নেই। হিন্দুত্ব দেখাচ্ছে দলটি। কংগ্রেস এবং সিপিএমও সুযোগ পেলে বিজেপির কোলে দোল খায়। রাজ্যের মানুষ এদের কাউকেই বিশ্বাস করবেন না।”

Comments

The Daily Star  | English

Personal data up for sale online!

A section of government officials are selling citizens’ NID card and phone call details through hundreds of Facebook, Telegram, and WhatsApp groups, the National Telecommunication Monitoring Center has found.

1h ago