‘আড়াই ঘণ্টা হল এখনো রাস্তায়’

প্রয়োজন ছাড়া বাসার বাইরে কোথাও যাওয়ার পরিকল্পনা থাকলে আজ না যাওয়াই ভালো। শুধু মেঘলা আকাশ বা বৃষ্টির কারণে নয়, যে অসহনীয় যানজট চলছে তাতে যেকোনো শুভাকাঙ্ক্ষীই এই পরামর্শ দিবে।
তীব্র যানজটে নাকাল রাজধানীবাসী। ছবিটি দুপুরে কাজী নজরুল ইসলাম এভিনিউ থেকে তোলা। ছবি: প্রবীর দাশ

প্রয়োজন ছাড়া বাসার বাইরে কোথাও যাওয়ার পরিকল্পনা থাকলে আজ না যাওয়াই ভালো। শুধু মেঘলা আকাশ বা বৃষ্টির কারণে নয়, যে অসহনীয় যানজট চলছে তাতে যেকোনো শুভাকাঙ্ক্ষীই এই পরামর্শ দিবে।

ঢাকার যানজট নতুন সমস্যা নয়। কিন্তু গত কিছুদিনে বৃষ্টি, রাস্তার দুরবস্থা ও ভিআইপিদের চলাচলে যানজট সব মাত্রা ছাড়িয়েছে বলে যাত্রীদের সাথে কথা বলে জানা গেছে। আজ প্রায় সারাদিনই ঢাকার গুরুত্বপূর্ণ সড়কগুলোতে যানজট পরিলক্ষিত হয়েছে। অনেক রাস্তায় গাড়ি খুব ধীরে চলেছে।

আজ সকালে শিফাত আফরিন শামস বাসে চড়ে টঙ্গি থেকে কারওয়ান বাজারে এসেছেন। এই পথ আসতেই তাকে তিন ঘণ্টা রাস্তায় কাটাতে হয়েছে। আর উত্তরার বাসিন্দা শাহরিয়ার খান কারওয়ান বাজার এসেছেন আড়াই ঘণ্টায়।

শুধু সকালে অফিস সময়েই না গতকাল সন্ধ্যায় যে যানজট দেখা গেছে তা হয়ত কয়েক সপ্তাহের মধ্যে ভয়াবহতম। একজনকে তার উত্তরায় বাসায় পৌছতে এই ঢাকা শহরেই সাত ঘণ্টা সময় লেগেছে বলে জানা গেছে।

ঢাকা ট্রাফিক বিভাগের একজন জ্যেষ্ঠ কর্মকর্তা নাম প্রকাশ না করার শর্তে আজ দুপুরে দ্য ডেইলি স্টারকে বলেন আজ সকালে মহাখালী ফ্লাইওভার কিছু সময়ের জন্য বন্ধ ছিল। এর সাথে ভারি বৃষ্টি, রাস্তার দুরবস্থা ও ভিআইপিদের চলাচলে যানজট মাত্রা ছাড়ায়। এই যানজট বিমানবন্দর সড়ক থেকে মহাখালী, নাবিস্কো মোড় থেকে হাতির ঝিল-বিজয় সরণি ও গুলশান পর্যন্ত ছড়িয়েছে।

যান জটে বসে থেকে অনেকেই সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমগুলোতে তাদের ক্ষোভের কথা তুলে ধরেছেন। ফেসবুক গ্রুপ ট্রাফিক এলার্ট-এ অনেকেই যানজটের ছবি ও ভিডিও পোস্ট করেছেন। ঢাকার যানজটের এই করুণ দশায় চূড়ান্ত রকম হতাশ হয়ে কেউ কেউ আবার রসিকতাও করছেন ফেসবুকে।

Click here to read the English version of this news

 

Comments