কলকাতায় দুই বাংলার বক্তারা

দুই বাংলার মানুষের মধ্যে সেতুবন্ধনে কাজ করছে বই

​দুই বাংলার মানুষের মধ্যে বই সেতুবন্ধনের কাজ করছে। বইয়ের মধ্য দিয়ে শিল্প-সাহিত্য, ঐতিহ্য ও রুচি-বৈচিত্রও পৌছে যাচ্ছে দুই বাংলায়। তাই বইয়ের আদান প্রদান আরও সহজ হওয়া প্রয়োজন। কলকাতায় ‘সেতুবন্ধনে বই’ শীর্ষক এক আন্তর্জাতিক আলোচনা চক্রে উপস্থিত দুই বাংলার শীর্ষস্থানীয় লেখক-সাহিত্যক-অভিনেতা-শিক্ষাবিদরা এমন মন্তব্য করলেন।
অনুষ্ঠানের সভাপতিত্ব করেন ভাষাবিদ ও রবীন্দ্রভারতী বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রাক্তন উপাচার্য অধ্যাপক ড পবিত্র সরকার। ছবি: স্টার

দুই বাংলার মানুষের মধ্যে বই সেতুবন্ধনের কাজ করছে। বইয়ের মধ্য দিয়ে শিল্প-সাহিত্য, ঐতিহ্য ও রুচি-বৈচিত্রও পৌছে যাচ্ছে দুই বাংলায়। তাই বইয়ের আদান প্রদান আরও সহজ হওয়া প্রয়োজন। কলকাতায় ‘সেতুবন্ধনে বই’ শীর্ষক এক আন্তর্জাতিক আলোচনা চক্রে উপস্থিত দুই বাংলার শীর্ষস্থানীয় লেখক-সাহিত্যক-অভিনেতা-শিক্ষাবিদরা এমন মন্তব্য করলেন।

মঙ্গলবার সন্ধ্যায় এই আয়োজন ছিল কলকাতার আইসিসিআরের অবনীন্দ্র সভাগৃহে। বাংলাদেশের প্রকাশনী সংস্থা পাঠক সমাবেশের পরিকল্পনায় অনুষ্ঠানের আয়োজন করে ভারত সরকার, বাংলাদেশ উপদূতাবাস এবং চ্যানেল আই।

অনুষ্ঠানের সভাপতিত্ব করেন ভাষাবিদ ও রবীন্দ্রভারতী বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রাক্তন উপাচার্য ড অধ্যাপক পবিত্র সরকার। বিশেষ অতিথি হিসাবে উপস্থিত ছিলেন কথা সাহিত্যিক ও সম্পাদক ইমদাদুল হক মিলন, লেখক ও গণমাধ্যম ব্যাকিত্ব ফরিদুর রেজা সাগর, অভিনেতা ও লেখক আফজাল হোসেন, শিশু সাহিত্যিক আমীরুল ইসলাম, প্রাবন্ধিক আহমাদ মাযহার, অভিনয় শিল্পী শহিদুল আলম সাচ্চু, কবি গীতেশ শর্মা এবং আইসিসিআর কলকাতা প্রধান গৌতম দে।

সভাপতির বক্তব্যে ড পবিত্র সরকার বলেন, “বাংলাদেশর রাজধানী ঢাকাসহ জেলা শহরগুলোর অলগিলেত যেভাবে পশ্চিমবঙ্গের লেখক-সাহিত্যিকদের বই পাওয়া যায়। সেভাবে পশ্চিমবঙ্গের জেলা শহর তো দূরে কথা, খোদ শহর কলকাতাতেও বাংলাদেশের বই পাওয়া যায় না। অথচ বাংলাদেশ এই মুহূর্তে শিল্প-সাহিত্যে এবং কিছু কিছু চলচ্চিত্রেও ভারতের চেয়েও এগিয়ে। বাংলাদেশ বাঙালির সংস্কৃতির রাজধানী হওয়ার যোগ্যতা রাখে।”

ইমদাদুল হক মিলন বলেন, “কলকাতায় পাঠক সমাবেশ যে কাজটি শুরু করলো সেটা অনেক আগেই হওয়া দরকার ছিল। তবুও যা হলো সেটা সেটা দুই দেশের মানুষের মধ্যে সেতুবন্ধনের সূচনাটি তৈরি হলো। বইয়ের কোনও বিকল্প নেই।”

বেশ কয়েক বছর ধরে কলকাতায় বাংলাদেশের বইয়ের স্থায়ী বিক্রয় কেন্দ্র গড়ার দাবি উঠছিল। সেই দাবির প্রেক্ষিতে কলকাতার কলেজ স্ট্রিটে বাংলাদেশি বইয়ের বিপণনের কাজ শুরু বলে জানান, পাঠক সমাবেশের কর্ণধার শহিদুল ইসলাম বিজু। তিনি বলেন, বাংলাদেশ সরকার যদি বইয়ের আমদানীর ওপর ভ্যাট ট্যাক্স কমিয়ে দিতো তবে আরও বই আদান-প্রদানের সুবিধা হতো। আর ভারতের সরকার এই ক্ষেত্রে উদার হলেও কলকাতার প্রকাশকরা কিছুটা অসযোগিতা করতে পারে বলেও তিনি আশঙ্কা প্রকাশ করেন। তিনি বলেন, আসলে প্রকাশকরা যদি আমাদের (বাংলাদেশের বই বিক্রেতাদের) প্রতিপক্ষ না ভেবে সহযোগিতা করেন, তবে কলকাতায় বাংলাদেশি বইয়ের সার্বিক বাজার বৃদ্ধি পাবে; তাতে স্থানীয় ব্যবসায়ীরাই লাভবান হবেন।

গণমাধ্যম ব্যাক্তিত্ব ফরিদুর রেজা সাগর এই উদ্যোগকে স্বাগত জানান। বলেন, কলকাতায় কেন বাংলাদেশি বই পাওয়া যেতো না এতো বছর, এটা ভাবলেই বিস্ময় লাগে। আমরা ঢাকায় বসে যদি কলকাতার বই পড়তে পারি তবে কেন কলকাতায় বসে আমাদের দেশের লেখকদের বই পড়তে পারবেন না। তিনি নাম করে বলেন, যে দেশে শামসুর রাহমান, হুমায়ূন আহমেদ, ইমদাদুল হক মিলনের মতো লেখক আছেন, যারা বাংলা সাহিত্যকে সমৃদ্ধ করেছেন তাদের বই কেন পাওযা যাবে না কলকাতার কোনও বুক স্টলে?

Comments

The Daily Star  | English

Cyclone Remal makes landfall

The eye of the cyclonic storm is scheduled to cross Bangladesh between 12:00-1:00am after which the cyclone is expected to weaken

24m ago