স্কুল শেষে টুইটারে মালালা

নিজের স্কুল জীবনের শেষ দিনে এসে টুইটারে একাউন্ট খুলেছেন মালালা ইউসুফজাই। প্রথম টুইটে ১৯ বছরের এই নোবেল বিজয়ী লিখেছেন, “আজ আমার স্কুলের শেষ দিন ও টুইটারে প্রথম দিন।”
এ মাসেই ২০ বছরে পা রাখতে চলেছেন পাকিস্তানের নারীশিক্ষা আন্দোলনকর্মী মালালা ইউসুফজাই। ছবি: এএফপি

নিজের স্কুল জীবনের শেষ দিনে এসে টুইটারে একাউন্ট খুলেছেন মালালা ইউসুফজাই। প্রথম টুইটে ১৯ বছরের এই নোবেল বিজয়ী লিখেছেন, “আজ আমার স্কুলের শেষ দিন ও টুইটারে প্রথম দিন।”

সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমটিতে এসেই বেশ সাড়া পাচ্ছেন সবচেয়ে কম বয়সে নোবেল পাওয়া এই শিক্ষা আন্দোলনকর্মী। একাউন্ট খোলার তিন ঘণ্টার মধ্যে এক লাখ ৩৪ হাজারের বেশি মানুষ তাকে অনুসরণ করতে শুরু করেছে।

অনলাইনে নারীশিক্ষার পক্ষে কথা বলায় ২০১২ সালে পাকিস্তানের সোয়াত উপত্যকায় স্কুল থেকে ফেরার পথে তালেবান জঙ্গিরা বাস থেকে নামিয়ে মালালার মাথায় গুলি করে। বেশ কয়েক দিন জীবন মৃত্যুর সন্ধিক্ষণে থাকার পর শেষ পর্যন্ত জীবনেরই হয় মালালার।

বিশ্বব্যাপী নারী শিক্ষা আন্দোলনের প্রতীকে পরিণত হওয়া মালালাকে ২০১৪ সালে আরেক শিশু অধিকারকর্মী কৈলাস সত্যার্থীর সাথে যৌথভাবে নোবেল শান্তি পুরস্কার দেওয়া হয়।

তালেবানের গুলিতে আহত মালালাকে ইংল্যান্ডের বার্মিংহামে নিয়ে চিকিৎসা দেওয়া হয়। পরে সেখানকারই একটি স্কুলে ভর্তি করানো হয় তাকে।

গতকাল শুক্রবার মালালার স্কুল জীবনের শেষ দিন ছিল। নিজের স্কুল জীবনের অর্জনকে ‘অম্লমধুর’ বলেছেন তিনি। মালালা লিখেছেন, “হাইস্কুল শেষ করার অভিজ্ঞতা আমার জন্য অম্লমধুর। আমি জানি সারা পৃথিবীতে লাখ লাখ মেয়ে স্কুল থেকে বের হয়ে আর পড়ালেখা শেষ করার সুযোগ পায় না।”

Click here to read the English version of this news

Comments