চসিক খাল খনন প্রকল্পের ব্যয় ৪ গুণ বেড়েছে

চট্টগ্রাম নগরীর জলাবদ্ধতা নিরসনে বহদ্দারহাট বারইপাড়া থেকে কর্ণফুলী নদী পর্যন্ত খাল খনন (২য় সংশোধনী) প্রকল্পের অনুমোদন দিয়েছে জাতীয় অর্থনৈতিক পরিষদের নির্বাহী কমিটি (একনেক)।

চট্টগ্রাম নগরীর জলাবদ্ধতা নিরসনে বহদ্দারহাট বারইপাড়া থেকে কর্ণফুলী নদী পর্যন্ত খাল খনন (২য় সংশোধনী) প্রকল্পের অনুমোদন দিয়েছে জাতীয় অর্থনৈতিক পরিষদের নির্বাহী কমিটি (একনেক)।

আজ মঙ্গলবার প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত একনেকের সভায় এ অনুমোদন দেওয়া হয়েছে।

২০১৪ সালে প্রথমে ৩২৬ দশমিক ৮৪৮১ কোটি টাকা ব্যয়ে এ প্রকল্পের অনুমোদন দেওয়া হলেও, আজকের সভায় প্রকল্পের সংশোধিত ব্যয় ৪ গুণ বাড়িয়ে ১৩৬২ দশমিক ৬২০১ কোটি টাকার অনুমোদন দেওয়া হয়।

স্থানীয় সরকার বিভাগের উদ্যোগে এ প্রকল্প বাস্তবায়ন করবে চট্টগ্রাম সিটি করপোরেশন (চসিক)।

চসিক কর্মকর্তাদের দাবি, জমি অধিগ্রহণের ব্যয় বেড়ে যাওয়ায় প্রকল্পের ব্যয় বেড়েছে।

২ দশমিক ৯ কিলোমিটার দীর্ঘ এবং ৬৫ ফুট প্রস্থের খাল খনন প্রকল্পটি ২০১৪ সালে শুরু হয়। 

ওই বছরের ২৪ জুন একনেক সভায় ৩২৬ দশমিক ৮৪৮১ কোটি টাকা ব্যয়ে প্রকল্পের অনুমোদন দেওয়া হয়েছিল।

প্রকল্পটি জুলাই ২০১৪ থেকে জুন ২০১৭ এর মধ্যে শেষ হওয়ার কথা ছিল।

কিন্তু, চসিক সময়মতো প্রকল্পটি শুরু করতে না পারায় প্রকল্পের ব্যয় সংশোধন করে ১২৫৬ দশমিক ১৫৫৬ কোটি টাকা বরাদ্দ দেওয়ার আবেদন করে। 

২০১৮ সালের ৭ নভেম্বর একনেক সভায় নতুন বরাদ্দের আবেদন অনুমোদিত হয়। 
এরপর ৩ বছর পার হলেও এ প্রকল্পের কোনো অগ্রগতি হয়নি। 

পরে স্থানীয় সরকার পল্লী উন্নয়ন ও সমবায় মন্ত্রী তাজুল ইসলাম ২০২১ সালের ২৭ নভেম্বর চট্টগ্রামে প্রকল্পের কাজের উদ্বোধন করেন।

অবশেষে আজ মঙ্গলবার অনুষ্ঠিত একনেক সভায় প্রকল্পটির ব্যয় সংশোধন করে ১৩৬২ দশমিক ৬২০১ কোটি টাকা নির্ধারণ করে অনুমোদন দেওয়া হয়েছে। 

সেই সঙ্গে প্রকল্প শেষের মেয়াদ জুন ২০২৪ পর্যন্ত সংশোধন করা হয়।

১৩৬২ কোটি টাকার প্রকল্পের মধ্যে বাংলাদেশ সরকার ১২৯৪ দশমিক ৪৮৯১ কোটি টাকা এবং চসিক নিজস্ব উৎস থেকে ৬৮ দশমিক ১৩১০ কোটি টাকা অর্থায়ন করবে বলে সূত্র জানায়।

কেন সময়মতো প্রকল্পের কাজ শুরু করা হয়নি, জানতে চাইলে চট্টগ্রাম সিটি করপোরেশনের মেয়র রেজাউল করিম চৌধুরী দ্য ডেইলি স্টারকে বলেন, 'জমি অধিগ্রহণের খরচ বেড়ে যাওয়ার কারণে বরাদ্দকৃত টাকা দিয়ে প্রকল্পের জমি অধিগ্রহণ করা সম্ভব হয়নি। তাই প্রকল্পের কাজ শুরু হতে দেরি হয়েছে।'

প্রকল্পের ব্যয় ৪ গুণ বৃদ্ধির জন্য তিনি জমি অধিগ্রহণের ব্যয় বৃদ্ধিকে দায়ী করেন।

মেয়র বলেন, 'প্রকল্পের কাজ শেষ হলে জলাবদ্ধতার কারণে নগরবাসীর দুর্ভোগ অনেকাংশেই লাঘব হবে।'

Comments

The Daily Star  | English

Our civil society needs to do more to challenge power structures

Over the last year, human rights defenders, demonstrators, and dissenters have been met with harassment, physical aggression, detainment, and maltreatment by the authorities.

8h ago