হুমায়ূন আহমেদের নাটকের দ্যোতক রূপ

হুমায়ূন আহমেদকে মনে রাখার কারণ কী? ধরুন, আপনি তার কোনো বই বা লেখা পড়েননি, এরপরও আপনি তাকে মনে রাখবেন। কীভাবে? ‘তুই রাজাকার’ সংলাপের কারণে। এটি মূলত একটি সংলাপ, যা পরবর্তীতে শ্লোগানে রূপ নেয়।

হুমায়ূন আহমেদকে মনে রাখার কারণ কী? ধরুন, আপনি তার কোনো বই বা লেখা পড়েননি, এরপরও আপনি তাকে মনে রাখবেন। কীভাবে? 'তুই রাজাকার' সংলাপের কারণে। এটি মূলত একটি সংলাপ, যা পরবর্তীতে শ্লোগানে রূপ নেয়।

'বহুব্রীহি' নাটকে তিনি প্রথম এই সংলাপ ব্যবহার করেন। কীভাবে? ময়না পাখির মুখে। কেন ময়না পাখির মুখে এই সংলাপ ব্যবহার করতে হলো? যে সময় 'বহুব্রীহি' নাটকটি প্রচারিত হচ্ছিল তখন রাজাকার শব্দটি উচ্চারণ করা যেত না।  শব্দটি পাঠ্যপুস্তক থেকেও সরিয়ে ফেলা হয়েছিল। তার কারণ, সঠিক ইতিহাস জানতে না দেওয়া বা মুক্তিযুদ্ধের সঠিক ইতিহাস তুলে না ধরার অদ্ভুত প্রচেষ্টা চালাতো তৎকালীন সরকার।

এই প্রচেষ্টা শুধু সেই সময় নয়, বাংলাদেশ স্বাধীন হওয়ার পর থেকেই এই প্রচেষ্টা অব্যাহত ছিল। যেকোনো প্রক্রিয়ায় মিথ্যা ইতিহাস তুলে ধরা বা সঠিক তথ্য জানতে না দেওয়ার জন্য বিভিন্ন সময় বিভিন্ন দল বা গোষ্ঠী কাজ করতো। যেমন—বঙ্গবন্ধুর নাম না নেওয়া বা বঙ্গবন্ধুর নাম পাঠ্যপুস্তক থেকে সরিয়ে ফেলা, মুক্তিযোদ্ধাদের সঠিক ইতিহাস না জানানো, রাজাকার শব্দটি না বলাসহ বিভিন্ন অপপ্রচার তারা চালাতো। এই গোষ্ঠী স্বাধীনতার এতো বছর পরেও সক্রিয়। যেমন—২০১৭ সালে হেফাজতের ২৯টি দাবির পরিপ্রেক্ষিতে শিশুদের পাঠ্যপুস্তক থেকে হিন্দু ও প্রগতিশীল লেখকদের লেখা সরিয়ে ফেলা হয়। কারণ তাদের লেখা পড়লে শিশুদের মনন বিকশিত হবে, তাই হেফাজতের নির্দেশে আওয়ামী লীগ সরকার তাদের রাজনৈতিক স্বার্থে এই কাজ করে। মূল বিষয় হলো, সঠিক তথ্য, ইতিহাস জানতে না দেওয়া। হুমায়ূন আহমেদ এইক্ষেত্রে বেশ কৌশলী। তিনি এই রাজাকার সংলাপটি ময়না পাখির মুখে দিয়ে দিলেন, এরপর নাটক প্রচারিত হলো। তারপর 'তুই রাজাকার' সংলাপটি এতো জনপ্রিয়তা পেল যে, তা সবার মুখে মুখে। শাহবাগ আন্দোলন বা গণজাগরণ মঞ্চের আন্দোলনের সময় তা জাতীয় শ্লোগানে রূপ নেয়।

নতুন প্রজন্মের কাছে সঠিক ইতিহাস তুলে ধরা আমাদের দায়িত্ব। ইতিহাস এই কারণেই বললাম যেন তারা সঠিকভাবে পরিচালিত হতে পারে, সঠিক তথ্য জানতে পারে। বলছিলাম হুমায়ূন আহমেদ সম্পর্কে। তিনি এমনই একজন গল্পকার বা নাট্যকার যিনি এভাবে ইতিহাস তৈরি করেছেন এবং ইতিহাসের সঙ্গে মিশে আছেন। কারণ তিনি মুক্তিযুদ্ধ দেখেছেন। যুদ্ধের সময় তাকে এবং তার পরিবারকে যেভাবে পালিয়ে বেড়াতে হয়েছে এবং তার বাবাকে যেভাবে শহীদ হতে হয়েছে—সেই ক্ষতটুকু তার মধ্যে সজীব। তাই তিনি অস্থির সময়েও 'তুই রাজাকার' সংলাপটা ব্যবহার করার সাহস দেখিয়েছেন। যা পরবর্তীতে কুখ্যাত রাজাকার কাদের মোল্লাসহ সবার ফাঁসির দাবিতে শ্লোগানে পরিণত হয়েছিল। এই ইতিহাস চলমান। তাই তিনি মৃত্যুর পরও ইতিহাসের অংশ হয়ে রইলেন।

শুধু কি 'তুই রাজাকার', বাংলাদেশের ইতিহাসে একটি বিশেষ নাটকের চরিত্রের জন্য সাধারণ জনগণ রাজপথে নেমেছিল। স্কুলের শিক্ষার্থী থেকে শুরু করে সাধারণ মানুষ সবাই সেই মিছিলে অংশ নিয়েছিলেন। সেই সময়ের ইতিহাস অনেকের অজানা হলেও আমাদের জানা। কারণ আমরা তা দেখেছি এবং জেনেছি। সেই সময়ের সাক্ষীও আমরা।

'কোথাও কেউ নেই'। বিখ্যাত একটি নাটক। সেই নাটকের জনপ্রিয় চরিত্র বাকের ভাই। নাটকে তিনি মিথ্যা সাক্ষীর কারণে ফাঁসির আসামি হয়েছেন। কিন্তু তিনি নির্দোষ। এই নিয়ে দর্শক ক্ষোভে ফেটে পড়েন। সবাই রাজপথে নেমে শ্লোগান দিতে থাকে, 'বাকের ভাইয়ের ফাঁসি কেন, কুত্তাওয়ালী জবাব চাই' বা 'বাকের ভাইয়ের কিছু হলে জ্বলবে আগুন ঘরে ঘরে'।

নাটকের শেষাংশ বা বাকের ভাইয়ের ফাঁসি বন্ধের জন্য উপরের মহল থেকে একের পর এক অনুরোধ, নির্দেশও আসতে থাকে। কিন্তু হুমায়ূন আহমেদ ছিলেন অটল। তিনি গল্পের কোনো অংশ পরিবর্তন করবেন না। তিনি নির্দোষ বাকের ভাইকে ফাঁসির দড়িতে ঝুলাবেন। ১৯৯২-৯৩ সালে 'কোথাও কেউ নেই' নাটকটি প্রচারিত হয়েছিল। এর আগে বা পরে অসংখ্য নাটক প্রচারিত হয়েছে। কিন্তু ইতিহাস সৃষ্টি করেছে শুধু 'কোথাও কেউ নেই'।

'বহুব্রীহি', 'কোথাও কেউ নেই', 'এই সব দিনরাত্রি', 'নক্ষত্রের রাত', 'অয়োময়', 'আজ রবিবার', 'সবুজ সাথী', 'উড়ে যায় বকপক্ষী', 'এই মেঘ এই রৌদ্র'র মতো অসংখ্য জনপ্রিয় ধারাবাহিক নাটক তিনি উপহার দিয়েছেন, যা দর্শকনন্দিত। ধারাবাহিক নাটকের বাইরেও তার কয়েকটি এক পর্বের নাটক আছে যেগুলো তুমুল জনপ্রিয়। এখনো সেই নাটক এক বসায় দেখা যায়। তেমনি দুটি নাটক হলো, 'খাদক' এবং 'নিমফুল'।

'খাদক' নাটকে মতি মিয়া এক বসায় অস্বাভাবিক পরিমাণ খেতে পারেন। তিনি সবার কাছে খাদক হিসেবে পরিচিত। আশেপাশের গ্রাম থেকে তাকে ডেকে নিয়ে যাওয়া হয় বরযাত্রী হিসেবে, যেন মেয়ের বাড়িতে খাবার কম ফেলে দেওয়া যায়।

মেয়েপক্ষকে বিয়ের দিন হেনস্তা করে বরপক্ষ একধরনের সুখ পায়। এটি বেশ প্রচলিত রীতি। মানুষকে হেনস্তা করার এই স্বভাব সম্পর্কে হুমায়ূন জানতেন। তাই তিনি প্রচলিত রীতি খুব চমৎকারভাবে তুলে ধরেছেন।

মতি মিয়ার সম্পর্কে জেনে এলাকার বিশিষ্ট ব্যক্তি খোন্দকার সাহেব আস্ত গরু খাওয়ার বাজি ধরেন। মতি মিয়া রাজি হয়ে যায়। সামিয়ানা টাঙানো হয়েছে, ব্যান্ড পার্টি বাজাচ্ছে, গরু রান্না হচ্ছে, মতি মিয়া খাচ্ছে। হার-জিতের চ্যালেঞ্জ, মান-সম্মানের চ্যালেঞ্জ। এই চ্যালেঞ্জ প্রতিদ্বন্দ্বীদের মধ্যে সবসময় চলমান। আশেপাশে লোকজন মতি মিয়াকে দেখছে। আর মতি মিয়ার ছেলে অভুক্ত অবস্থায় তার বাবাকে দেখছে। এই নাটকে হুমায়ূন যেভাবে সমাজের ধনী-দরিদ্রের বৈষম্যকে তুলে ধরেছেন তা অনবদ্য।

মতি মিয়া খেতে পারেন, কিন্তু তার আয় রোজগার নেই। আর যিনি মতি মিয়ার মতো খেতে পারেন না, তার আয় অঢেল। আরেকটা বিষয় হলো, মতি মিয়াকে নিয়ে যাওয়া হয় খাওয়ার জন্য, পরিবারকে নেওয়া হয় না। মতি মিয়া মুখরোচক, সুস্বাদু খাবার খেতে পান, কিন্তু তার পরিবার সেই মুখরোচক, সুস্বাদু খাবার থেকে বঞ্চিত। এই বৈষম্য, ধনীর চিন্তার সঙ্গে দরিদ্রের চিন্তার ফারাক হুমায়ূন এতো নান্দনিকভাবে তুলে এনেছেন, যা সত্যিই অসাধারণ।

এমন আরেকটি নাটক হলো 'নিমফুল'। একজন চোরকে কেন্দ্র করে নাটকের গল্প। একজন চোর ধরা পড়েছে, তার নাম মতি। মতির সঙ্গে তার ছোট ছেলেও আছে। গ্রাম্য সালিসে রায় হয়েছে তার চোখ তুলে নেওয়া হবে। তাও আবার খেজুরের কাঁটা দিয়ে। গ্রামের মানুষ জড়ো হয়েছে চোখ উপড়ে নেওয়ার দৃশ্য দেখতে। বীভৎসতা দেখা বা উপভোগ করার মাঝে মানুষ যে আসলে আনন্দ খুঁজে পায় তা নিমফুল নাটকে বিদ্যমান।

একজন চোর সমাজে এমনি এমনি সৃষ্টি হয় না। অর্থনৈতিক বৈষম্য যখন চরমে তখন মানুষ অপরাধে লিপ্ত হয়। হুমায়ূন আহমেদ এই বিষয়কে গল্পের উপজীব্য করেছেন। গল্প বলার জন্য অবহেলিত চোরকে প্রধান চরিত্র করেছেন। প্রথমদিকে মতি ভয় না পেলেও একপর্যায়ে তার চোখ তুলে নেওয়ার আয়োজনে খানিকটা ভয় পেয়ে যায়। নিজের ছেলের সঙ্গে গল্প করতে থাকে। সমাজের রূঢ় চেহারা কতটা ভয়ংকর তা নিমফুল নাটক না দেখলে বোঝা যাবে না।

প্রশ্ন হচ্ছে, হুমায়ূন আহমেদের নাটক দর্শক কেন দেখত বা দেখে? প্রথমত, হুমায়ূন আহমেদ খুব সরল সাবলীলভাবে গল্প বলতেন। দর্শককে গল্পের গভীরে নিয়ে যেতেন। যেভাবে তিনি লিখতেন, ঠিক সেইভাবেই নাটকে তার চরিত্র উপস্থাপিত হতো বা হাজির হতো। দ্বিতীয়ত, সবসময় তিনি পরিবারের গল্প বলতেন। সেই গল্পে মধ্যবিত্তের সমাজ ব্যবস্থা, চিন্তাভাবনা এমনিতেই উঠে আসতো। সংলাপে, পোশাকে তা ছিল বিদ্যমান।

উঠে আসতো মধ্যবিত্ত সমাজের বিভিন্ন চরিত্রের কথোপকথন, চরিত্রের সংকট। উঠে আসতো সমাজের বৈরী রূপ। সেই রূপ কেমন? সেই রূপ 'নিমফুল' বা 'খাদক' নাটকে যেমন উপস্থিত তেমনি 'কোথাও কেউ নেই' ধারাবাহিকে উপস্থিত।

মিথ্যা সাক্ষ্য দেওয়ার কারণে নির্দোষ বাকের ভাইয়ের ফাঁসি হয়েছে। নির্দোষ বাকের ভাই ফাঁসির দড়িতে ঝুলেছে—চোখ বন্ধ করে ভাবুন তো, এই চিত্র কি সমাজে অদেখা? বাকের ভাই একটা চরিত্র মাত্র। সমাজে অসংখ্য মানুষ নির্বিচারে মারা পড়ছে, বিনা অপরাধে জেল খাটছে, বিচারের আশায় দিনাতিপাত করছে। মানুষ বিচারের আশা করে কিন্তু সেই বিচার পায় না। আবার বিচার, আইন, শাসনব্যবস্থা যে বিত্তশালীদের দ্বারা পরিচালিত হয় তা হুমায়ূনের নাটকে বিদ্যমান।

নাটক বা চলচ্চিত্র কোনো কিছুই বাস্তব জীবনের বাইরে নয়। সবকিছুই জীবন থেকে নেওয়া। জীবনের অনুষঙ্গ হুমায়ূন আহমদের নাটকে অনেক বেশিমাত্রায় বিদ্যমান। তাই তা দর্শকের মনে বেশি দাগ কাটতো। হুমায়ূন বিনোদনের ছলে সমাজের আসল রূপ তুলে ধরতেন।

বিনয় দত্ত, কথাসাহিত্যিক ও সাংবাদিক

[email protected]

Comments

The Daily Star  | English

2 MRT lines may miss deadline

The metro rail authorities are likely to miss the 2030 deadline for completing two of the six planned metro lines in Dhaka as they have not yet started carrying out feasibility studies for the two lines.

8h ago