‘বাবুমশাই বন্দুকবাজ’-এ সেন্সরের ৪৮ কোপ

বিরক্ত নওয়াজউদ্দিন সিদ্দিকী, নাখোশ আমির খান

ভারতীয় সেন্সর বোর্ডের কাঁচির নিচে পড়েছে বলিউডের সু-অভিনেতা নওয়াজউদ্দিন সিদ্দিকীর নতুন সিনেমা “বাবুমশাই বন্দুকবাজ”। সিনেমাটি সেন্সরের জন্যে জমা দেওয়ার পর বোর্ড জানায় এতে ৪৮টি দৃশ্য কেটে ফেলতে হবে।
babumoshai bandookbaaz
পরিচালক কুশান নন্দীর “বাবুমশাই বন্দুকবাজ” সিনেমার একটি দৃশ্য। এটি সেন্সরের জন্যে জমা দেওয়ার পর বোর্ড জানায় এর ৪৮টি দৃশ্য কেটে ফেলতে হবে। ছবি: সংগৃহীত

ভারতীয় সেন্সর বোর্ডের কাঁচির নিচে পড়েছে বলিউডের সু-অভিনেতা নওয়াজউদ্দিন সিদ্দিকীর নতুন সিনেমা “বাবুমশাই বন্দুকবাজ”। সিনেমাটি সেন্সরের জন্যে জমা দেওয়ার পর বোর্ড জানায় এতে ৪৮টি দৃশ্য কেটে ফেলতে হবে।

নওয়াজউদ্দিন অভিনীত প্রতিটি সিনেমাই এখন একটু আলাদাভাবে দর্শকদের আকর্ষণের কারণ হয়ে দাঁড়ায়। ব্যতিক্রম হয়নি “বাবুমশাই বন্দুকবাজ”-এর ক্ষেত্রেও। ট্রেইলার প্রকাশিত হওয়ার পর তা পেয়েছে প্রায় পৌনে এক কোটি ভিউ। কোন সুপারস্টার না থাকার পরও সিনেমার ট্রেইলারে এতো সংখ্যক দর্শকের দৃষ্টি আকর্ষণ এরই প্রমাণ দেয়।

ভারতের সেন্সর বোর্ড সিনেমাটি থেকে ঘনিষ্ঠ দৃশ্য এবং অশ্লীল শব্দগুলো বাদ দিতে বলেছে। কিন্তু, সিনেমার গল্প এবং পরিবেশের কথা চিন্তা করলে এসব “বাদ” সিনেমাটিকে পুরোপুরিই আকর্ষণহীন করে তুলবে।

একটি সিনেমায় ৪৮টি কাটের বিষয়ে এক প্রশ্নের উত্তরে নওয়াজউদ্দিন বলেন, “কি আর বলব, আমার সিনেমাই তো শেষ হয়ে গেল। এরপর আর সিনেমার কিছু থাকবে না। এখন তো মনে হচ্ছে এটিকে শর্ট ফিল্ম হিসেবেই দর্শকদের সামনে আনতে হবে।”

“বাবুমশাই বন্দুকবাজ” সিনেমাটিতে এতো কাটাকাটি করা হয়েছে যে সকল দর্শকের জন্যে উন্মুক্ত করার এমন ভাবনাটিও ভুল। এতোগুলো কাটাকাটির পরও সিনেমাটি পেয়েছে “এ” সার্টিফিকেট। অর্থাৎ, শুধুমাত্র প্রাপ্তবয়স্করাই দেখতে পারবে এই সিনেমাটি। এই সার্টিফিকেটের জন্য এখন আরও বেশি আলোচনায় আসছে সেন্সরের কাঁচি। কেননা, শুধু প্রাপ্তবয়স্করাই যদি সিনেমাটি দেখবে তবে যৌন-দৃশ্য আর অশ্লীল শব্দে আপত্তি না থাকলেও চলত। আর যাঁরা এমন সিনেমা দেখতে চান না তারা “এ” সার্টিফিকেট পাওয়া সিনেমাটি দেখতে হলে যেতেন না।

সেন্সর বোর্ডের এমন সিদ্ধান্তের বিষয়ে বলিউড সুপারস্টার আমির খানকে ভারতীয় সাংবাদিকরা প্রশ্ন করলে তিনি বলেন, “আমি জানি না বর্তমান সময়ের সঙ্গে সেন্সরের ভাবনাটা কিভাবে সম্পর্কিত। আমি মনে করি সিবিএফসি–র উচিত সিনেমার সেন্সর না করে এর গ্রেড নির্ধারণ করা। কোন সিনেমা কোন বয়সের মানুষদের দেখানো যাবে বোর্ড সেটাই নির্ধারণ করে দিতে পারে।”

সেন্সর বোর্ডের কাটাকাটি করার প্রয়োজনীয়তা নিয়ে প্রশ্নের উত্তরে নওয়াজউদ্দিন বলেন, “সেন্সর বোর্ড সার্টিফিকেট দিলেই যথেষ্ট। এরপর, দর্শকরাই সিদ্ধান্ত নিবেন যে ‘এ’ সার্টিফিকেট পাওয়া সিনেমা দেখবেন, নাকি ‘ইউ’ সার্টিফিকেট পাওয়া সিনেমা দেখবেন।”

এ সংবাদ সম্মেলনে “বাবুমশাই”-এর অভিনেত্রী বিদিতা বেগ বলেন, “সেন্সর বোর্ডের দাদা-দাদিদের মতো আচরণ বন্ধ করা উচিত। সাধারণ মানুষের কাছে অনেক ধরণের সুযোগ রয়েছে। এটি তাঁদের স্বাধীনতা। এটি একটি গণতান্ত্রিক দেশ। এখানে দর্শকদের থামিয়ে দিবেন না। তাঁদের যদি পছন্দ না হয় তাহলে তাঁরা দেখবেন না। পছন্দ হলে দেখবেন।”

সাম্প্রতিক সময়ে “লিপস্টিক আন্ডার মাই বোরখা” এবং “জব হ্যারি মেট সেজাল” সিনেমায় কাঁচি চালানো নিয়ে বিতর্কে পড়ে যায় ভারতীয় সেন্সর বোর্ড। এবার “বাবুমশাই বন্দুকবাজ”-এর বিষয়ে তাঁদের সিদ্ধান্ত এই বিতর্কের আগুনকে আরও উসকে দিয়েছে।

আগামী ২৫ আগস্ট মুক্তি পাওয়ার কথা রয়েছে “বাবুমশাই” সিনেমাটির। যদিও একটি সাংবাদিক সম্মেলনে এতোগুলো কাট নিয়ে সিনেমাটি মুক্তি দেওয়ার বিষয়ে অনাগ্রহও প্রকাশ করেছেন সিনেমাটির সহ-প্রযোজক এবং পরিচালক কুশান নন্দী।

আরও পড়ুন: ‘সেন্সরশিপের ভাবনাটা পুরনো’

Comments

The Daily Star  | English

Hiring begins with bribery

UN independent experts say Bangladeshi workers pay up to 8 times for migration alone due to corruption of Malaysia ministries, Bangladesh mission and syndicates

22m ago