জলবায়ু পরিবর্তনে ৭১ লাখের বেশি বাংলাদেশি বাস্তুচ্যুত: বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা

ক্ষমতা বৃদ্ধির ওপর গুরুত্ব দিয়ে শরণার্থী এবং অভিবাসী স্বাস্থ্য সমস্যাগুলোকে যথেষ্টভাবে মোকাবিলা করার জন্য পেশাদার দক্ষতা এবং সক্ষমতা তৈরিতে দেশ এবং অঞ্চলগুলোকে সমর্থনের লক্ষ্যে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা (ডব্লিউএইচও) ঢাকায় শরণার্থী এবং অভিবাসী স্বাস্থ্য সম্পর্কিত বার্ষিক গ্লোবাল স্কুল তৃতীয়বারের মতো আয়োজন করছে।
জলবায়ু পরিবর্তনের প্রভাবে প্রায়ই জোয়ারের পানিতে তলিয়ে যায় দেশের উপকূলবর্তী এলাকা। ছবি: স্টার

ক্ষমতা বৃদ্ধির ওপর গুরুত্ব দিয়ে শরণার্থী এবং অভিবাসী স্বাস্থ্য সমস্যাগুলোকে যথেষ্টভাবে মোকাবিলা করার জন্য পেশাদার দক্ষতা এবং সক্ষমতা তৈরিতে দেশ এবং অঞ্চলগুলোকে সমর্থনের লক্ষ্যে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা (ডব্লিউএইচও) ঢাকায় শরণার্থী এবং অভিবাসী স্বাস্থ্য সম্পর্কিত বার্ষিক গ্লোবাল স্কুল তৃতীয়বারের মতো আয়োজন করছে।

২৮ নভেম্বর থেকে ২ ডিসেম্বর পর্যন্ত ৫ দিনের মধ্যে নীতিনির্ধারক, জাতিসংঘের অংশীদার সংস্থা, একাডেমিয়া, সুশীল সমাজের সদস্যরা এবং গ্লোবাল স্কুলের স্টেকহোল্ডাররা সক্ষমতা-নির্মাণের মূল উপাদানগুলোকে তুলে ধরার জন্য জ্ঞান এবং অভিজ্ঞতা বিনিময় করবেন।

বাংলাদেশের স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় আয়োজিত ই-লার্নিং হাইব্রিড ইভেন্টটি বিশ্বব্যাপী প্রচারিত হবে।

বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা বলছে, বিশ্বব্যাপী বর্তমানে ৮ বা এক বিলিয়নের মধ্যে একজন অভিবাসী এবং ২৮ কোটি ১০ লাখ আন্তর্জাতিক অভিবাসী এবং কয়েক মিলিয়ন ব্যক্তি রাষ্ট্রহীন।

জলবায়ু পরিবর্তন, ক্রমবর্ধমান বৈষম্য, দ্বন্দ্ব, বাণিজ্য এবং জনসংখ্যা বৃদ্ধি এই প্রবণতাকে ত্বরান্বিত করছে।

শরণার্থী ও অভিবাসীদের স্বাস্থ্য অধিকার এবং চাহিদা পূরণে স্বাস্থ্যকর্মীর ভূমিকা গুরুত্বপূর্ণ।

আজ সোমবার ডব্লিউএইচও'র মহাপরিচালক তেদরোস আধানোম গেব্রেয়াসুস বলেছেন, 'অভিবাসন এবং বাস্তুচ্যুতি শারীরিক এবং মানসিক স্বাস্থ্য এবং সুস্থতার ওপর গভীর এবং দীর্ঘস্থায়ী প্রভাব ফেলতে পারে। সাংস্কৃতিক ও ভাষাগত পার্থক্য, আর্থিক প্রতিবন্ধকতা, কলঙ্ক এবং বৈষম্য সবই উদ্বাস্তু এবং অভিবাসীদের জন্য স্বাস্থ্য পরিষেবার সুযোগকে বাধাগ্রস্ত করতে পারে।'

তিনি বলেন, 'স্বাস্থ্যকর্মীদের এই বাধাগুলো অতিক্রমে সহায়তা করতে একটি গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রয়েছে। বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা গ্লোবাল স্কুল অন রিফিউজি অ্যান্ড মাইগ্রেন্ট হেলথ হলো শরণার্থী ও অভিবাসীদের আরও ভালোভাবে সেবা দেওয়ার জন্য স্বাস্থ্যকর্মীদের সক্ষমতা তৈরির জন্য একটি মূল্যবান সম্পদ।'

'যদিও সমস্ত শরণার্থী এবং অভিবাসীরা ক্ষতিগ্রস্ত নয়, প্রায়শই তারা নির্ধারকদের একটি বিন্যাসের কারণে, জেনোফোবিয়া এবং বৈষম্য থেকে দরিদ্র জীবনযাপন, আবাসন এবং কাজের পরিস্থিতি এবং মানুষ কেন্দ্রিক স্বাস্থ্য পরিষেবাগুলোতে অপর্যাপ্ত সুযোগ পায়। যা উদ্বাস্তু অভিবাসী স্বাস্থ্য চাহিদার জন্য সংবেদনশীল', যোগ করেন তিনি।

অংশগ্রহণকারীদের মধ্যে বক্তব্য দেন ডব্লিউএইচও'র দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়ার আঞ্চলিক পরিচালক ডা. পুনম ক্ষেত্রপাল সিং। তিনি বলেছেন, 'স্বাস্থ্যের জন্য মানবাধিকার এমন একটি অধিকার যা সর্বত্র সব মানুষের, বিশেষ করে উদ্বাস্তু এবং অভিবাসীদের জন্য প্রসারিত। কারণ সত্যিকার অর্থে সম্মানিত, সুরক্ষিত এবং পরিপূর্ণ হওয়ার জন্য একটি অধিকার অবশ্যই সর্বাধিক প্রান্তিক এবং দুর্বলদের দ্বারা সম্পূর্ণরূপে উপভোগ করতে হবে- যারা ঝুঁকিতে রয়েছে বা যারা ইতোমধ্যেই পিছনে পড়ে আছে, যার মধ্যে প্রায়শই চলাফেরা করা লোকদের অন্তর্ভুক্ত থাকে।'

প্রতি বছর ভিন্ন স্থানে অনুষ্ঠিত গ্লোবাল স্কুলের লক্ষ্য ডব্লিউএইচও এবং সরকারগুলোর সঙ্গে ঘনিষ্ঠ সহযোগিতায় দেশগুলোর শিক্ষা এবং অভিজ্ঞতাগুলোকে কাজে লাগানো।

বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার তথ্যমতে, এ বছর জলবায়ু পরিবর্তনের কারণে ৭১ লাখেরও বেশি বাংলাদেশি বাস্তুচ্যুত হয়েছেন। যা ২০৫০ সালের মধ্যে এক কোটি ৩৩ লাখে পৌঁছাতে পারে।

১৯৭৮ সাল থেকে দেশটি জোরপূর্বক বাস্তুচ্যুত মিয়ানমারের নাগরিকদের ৩টি বড় জনস্রোত প্রত্যক্ষ করেছে। যাদের প্রত্যেকের অনন্য চিকিৎসা চাহিদা রয়েছে এবং কক্সবাজারে বিশ্বের বৃহত্তম এবং সবচেয়ে ঘনবসতিপূর্ণ শিবিরে রাখা হয়েছে।

আঞ্চলিক পরিচালক বলেন, 'বাংলাদেশ শুধু তাদের বিনামূল্যে স্বাস্থ্যসেবার সুযোগই দেয়নি বরং সম্প্রতি কোভিড-১৯ টিকা রয়েছে। তবে এটি গুরুত্বপূর্ণ সামাজিক, অর্থনৈতিক, পরিবেশগত এবং আইনি দুর্বলতাগুলো মোকাবিলার জন্য সমন্বিত প্রচেষ্টাও করেছে।'

স্বাস্থ্য ও অভিবাসন কর্মসূচির পরিচালক ডা. সান্তিনো সেভেরোনি বলেছেন, 'বার্ষিক গ্লোবাল স্কুল অন রিফিউজি অ্যান্ড মাইগ্রেন্ট হেলথ হলো ডব্লিউএইচও হেলথ অ্যান্ড মাইগ্রেশন প্রোগ্রামের একটি ফ্ল্যাগশিপ এবং প্রচারের জন্য গ্লোবাল অ্যাকশন প্ল্যান বাস্তবায়নের দিকে উদ্বাস্তু ও অভিবাসী স্বাস্থ্য সম্পর্কিত আঞ্চলিক এবং দেশীয় অফিসগুলোর সঙ্গে ২০১৯ থেকে ২০২৩ (জিএপি) উদ্বাস্তু এবং অভিবাসীদের স্বাস্থ্য কৌশলগত এবং অপারেশনাল সহযোগিতা জোরদার করার একটি সুযোগ।'

সব দর্শকদের জন্য উন্মুক্ত গ্লোবাল স্কুলের লক্ষ্য হলো নীতি নির্ধারক, স্বাস্থ্য সেক্টর ম্যানেজার এবং স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের মধ্যে বিভিন্ন স্তরে কর্মরত কর্মকর্তাদের বিভিন্ন শ্রোতাদের কাছে পৌঁছানো।

গবেষক, বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী, বেসরকারি সংস্থা, যুব প্রতিনিধি ও সাংবাদিকরাও অংশগ্রহণ করেন।

ডা. পুনম ক্ষেত্রপাল সিং বলেছেন, 'প্রতিটি প্রেক্ষাপট থেকে পরবর্তী পর্যন্ত, কোনো চ্যালেঞ্জ একই নয়, সমাধানও হবে না। তবে সব দেশ এবং স্বাস্থ্য ব্যবস্থার জন্য গুরুতর প্রয়োজন হলো এমন একটি স্বাস্থ্যকর্মী যা সুপ্রশিক্ষিত, সাংস্কৃতিকভাবে সংবেদনশীল এবং যোগ্য, যা উদ্বাস্তু এবং অভিবাসীদের চাহিদা, তাদের ভাষা এবং অনন্য স্বাস্থ্য সমস্যার প্রতি সংবেদনশীল।'

Comments

The Daily Star  | English

Modi welcomes Hasina at Hyderabad House to hold bilateral talks

Prime Minister Sheikh Hasina was today given a warm welcome by her Indian counterpart Narendra Modi at the Hyderabad House when she reached there for bilateral discussions

27m ago