আবহাওয়া
বৃষ্টি-শিলাবৃষ্টির সম্ভাবনা

২ কারণে কমছে না গরমের তীব্রতা

এপ্রিল মাসে ঢাকার স্বাভাবিক আদ্রতা থাকার কথা ৭১ শতাংশ। আবহাওয়া অধিদপ্তর জানিয়েছে, আজ বুধবার সকাল ৬টায় ঢাকায় বাতাসের আপেক্ষিক আর্দ্রতা ছিল ৮৩ শতাংশ।

দেশের কোথাও কোথাও গত কয়েক দিনে বিক্ষিপ্তভাবে সামান্য বৃষ্টিপাত রেকর্ড করেছে আবহাওয়া অধিদপ্তর। এসব এলাকা ও পাশের জেলাগুলোতে কমতে শুরু করেছে তাপমাত্রা।

তবে গরমের অনুভূতি কমছে না। আবহাওয়াবিদরা মনে করছেন, এর পেছনে রয়েছে দুটি কারণ।

বাতাসে আদ্রতা ও সর্বনিম্ন তাপমাত্রা স্বাভাবিকের চেয়ে বেড়ে যাওয়ায় এখনো তীব্র গরমের অনুভূতি হচ্ছে।

এপ্রিল মাসে ঢাকার স্বাভাবিক আর্দ্রতা থাকার কথা ৭১ শতাংশ। আবহাওয়া অধিদপ্তর জানিয়েছে, আজ বুধবার সকাল ৬টায় ঢাকায় বাতাসের আপেক্ষিক আর্দ্রতা ছিল ৮৩ শতাংশ।

এপ্রিল মাসে ঢাকার সর্বনিম্ন স্বাভাবিক তাপমাত্রা ২৩ দশমিক ৬ ডিগ্রি সেলসিয়াস। সেখানে দেখা যাচ্ছে, আজও প্রায় ৫ ডিগ্রি সেলসিয়াস বেশি রয়েছে। এদিন সর্বনিম্ন তাপমাত্রা ২৮ ডিগ্রি সেলসিয়াস রেকর্ড করা হয়েছে। ঢাকার বাইরের জেলাগুলোর আবহাওয়া চিত্র প্রায় একই রকম।

এদিন দুপুরে আবহাওয়াবিদ মো. হাফিজুর রহমান দ্য ডেইলি স্টারকে বলেন, 'আজ দিন ও রাতের তাপমাত্রা প্রায় অপরিবর্তিত থাকতে পারে। রাতের তাপমাত্রা সামান্য বেড়েও যেতে পারে। তবে আগামী পরশু থেকে কমতে শুরু করার সম্ভাবনা দেখা যাচ্ছে।'

'সর্বনিম্ন তাপমাত্রা স্বাভাবিক অবস্থায় না এলে এবং আর্দ্রতা না কমলে গরমের তীব্রতা কমবে না,' বলেন তিনি।

হাফিজুর রহমান আরও বলেন, 'আগে যেমন সূর্য ডুবে গেলে স্বস্তি পাওয়া যেত। এই ২ কারণে সেটা হচ্ছে না। ঘাম শুকাচ্ছে না।'

পূর্বাভাস বলছে, ময়মনসিংহ, চট্টগ্রাম ও সিলেট বিভাগের দুএক জায়গায় অস্থায়ীভাবে ঝড়ো হাওয়া বয়ে যেতে পারে। সেই সঙ্গে কোথাও কোথাও বিক্ষিপ্তভাবে শিলাবৃষ্টি হতে পারে।

আবহাওয়া অধিদপ্তর আরও জানাচ্ছে, দেশের আকাশে মেঘ ভেসে আসতে শুরু করেছে। ফলে সারা দেশে আবহাওয়া প্রধানত শুষ্ক থাকার কথা।

তবে এখনই শেষ হচ্ছে না তাপপ্রবাহ। এখনো তীব্র তাপপ্রবাহের আওতায় আছে দিনাজপুর, রাজশাহী, পাবনা ও চুয়াডাঙ্গা।

রাজশাহী, খুলনা, ঢাকা ও বরিশাল বিভাগ এবং পঞ্চগড়, রংপুর, নীলফামারী, মৌলভীবাজার, রাঙ্গামাটি ও বান্দরবান জেলার ওপর দিয়ে মৃদু থেকে মাঝারি ধরনের তাপপ্রবাহ বয়ে যাচ্ছে।

আবহাওয়াবিদরা মনে করছেন, তাপপ্রবাহ আরও কয়েকদিন অব্যাহত থাকবে।

উল্লেখ্য, ৩৬ থেকে ৩৭ দশমিক ৯ ডিগ্রি সেলসিয়াস তাপমাত্রাকে মৃদু, ৩৮ ডিগ্রি থেকে ৩৯ দশমিক ৯ ডিগ্রি সেলসিয়াস মাঝারি, ৪০ থেকে ৪১ দশমিক ৯ ডিগ্রি সেলসিয়াস তীব্র ও ৪২ ডিগ্রি সেলসিয়াসের উপরে অতি তীব্র তাপপ্রবাহ বিবেচনা করা হয়।

ভারতের আবহাওয়া অধিদপ্তর জানিয়েছে, মধ্য ও পূর্ব ভারতের সর্বোচ্চ তাপমাত্রা ৪০ থেকে ৪৪ ডিগ্রি সেলসিয়াসের মধ্যে থাকছে। উত্তর-পশ্চিম ভারত ও পশ্চিমা হিমালয় অঞ্চলে থাকছে ২২ থেকে ২৫ ডিগ্রি সেলসিয়াস। আগামী অন্তত আরও ২ দিন এই অবস্থা অব্যাহত থাকতে পারে। ভারত থেকে আসা উষ্ণ বাতাস বাংলাদেশের আবহাওয়াকে প্রভাবিত করছে।

দেশটির আবহাওয়াবিদরা পূর্বাভাসে জানিয়েছেন, আগামী ২ দিন পরে তাপমাত্রা ২ থেকে ৩ ডিগ্রি সেলসিয়াস পর্যন্ত কমে যাওয়া সম্ভবনা রয়েছে।

Comments