দক্ষতা বাড়াতে যেভাবে সাজাতে পারেন কাজের স্থান

একটি সুসংগঠিত কাজের পরিবেশ আরামদায়ক ও দক্ষতার সঙ্গে কাজ করতে সহায়তা করতে পারে। অফিস বা বাড়ির যেকোনো স্থান হোক না কেন, আপনার কাজের স্থানটি আরও কর্মপরিবেশ উপযোগী করে তুলতে পারেন কয়েকটি বিষয় মাথায় রেখে।
দক্ষতা বাড়াতে যেভাবে সাজাতে পারেন কাজের স্থান
ছবি: সাজ্জাদ ইবনে সাঈদ

একটি সুসংগঠিত কাজের পরিবেশ আরামদায়ক ও দক্ষতার সঙ্গে কাজ করতে সহায়তা করতে পারে। অফিস বা বাড়ির যেকোনো স্থান হোক না কেন, আপনার কাজের স্থানটি আরও কর্মপরিবেশ উপযোগী করে তুলতে পারেন কয়েকটি বিষয় মাথায় রেখে।

আপনার কাজের স্থানের কেমন হতে পারে এবং সেটি কীভাবে আপনার কর্মদক্ষতা বাড়াতে সাহায্য করবে তা নিয়েই এই লেখা।

নিত্যপ্রয়োজনীয় জিনিস হাতের নাগালে রাখুন

যে জিনিসগুলো একটু পরপরই আপনার কাজে লাগে সেগুলো হাতে নাগালে রাখুন। এতে যেমন জিনিস খুঁজতে গিয়ে মনোযোগ হারাবে না, তেমনি সময়ও বাঁচবে। বারবার ব্যবহৃত হয় এমন প্রয়োজনীয় জিনিসপত্র যেমন মোবাইল, নোটপ্যাড, কলম, ডায়েরি, পানির বোতল এগুলো হাতের নাগালেই রাখা ভালো। কাজ শুরু করার আগেই নির্দিষ্ট স্থানে নিত্যপ্রয়োজনীয় জিনিসপত্রগুলো রাখা যেতে পারে। আর যে জিনিসপত্রগুলো একটু কম ব্যবহার হয় সেগুলো একটু দূরে রাখাই ভালো। এতে কাজের মনোযোগ ধরে রাখা সহজ হয় এবং কাজটি দ্রুত সম্পন্ন করা যায়।

আরামদায়ক চেয়ার ব্যবহার

একটি আরামদায়ক চেয়ার কাজের জন্য খুব গুরুত্বপূর্ণ অংশ। একটি লম্বা সময় অফিসে আপনাকে কাজ করতে হয়। তাই যদি আপনার সঙ্গে মানানসই একটি চেয়ার নির্বাচন করেন তাহলে দীর্ঘসময় বসে থাকলেও ক্ষতি হয় কম। আর একটি অস্বাচ্ছন্দ্যকর চেয়ার যেমন অস্বস্থির কারণ তেমনি শরীরের জন্যেও ক্ষতিকর। এতে করে কাজের প্রতি সম্পূর্ণ মনোযোগ দেওয়া সম্ভব হয় না। তাই চেয়ার নির্বাচনের ক্ষেত্রে বেশ কিছু দিক খেয়াল রাখতে হবে। যেমন, সেটি আপনার মেরুদণ্ডের জন্য আরামদায়ক হবে কিনা, চেয়ারটি উচ্চতার সঙ্গে সামঞ্জস্য করা যায় কিনা সেটি বিবেচনা করা ভালো। একটি আরামদায়ক চেয়ার যেমন কাজের পরিবেশ ফুটিয়ে তোলে তেমনি দক্ষতার সঙ্গে কাজ করার সহযোগিতাও করে।

ড্রয়ার ব্যবহার

একটি বিশৃঙ্খল কর্মপরিবেশ বিরক্তির কারণ হতে পারে। অনেক সময় প্রয়োজনীয় জিনিস সময়মত খুঁজে পাওয়া চ্যালেঞ্জিংও বটে। সেক্ষেত্রে কাজে আসতে পারে আপনার কর্মক্ষেত্রে থাকা ড্রয়ার। যেসব জিনিসপত্র মাঝেমধ্যে প্রয়োজন হয় যেমন- কাগজের ক্লিপ, অফিস সাপ্লাইস, অতিরিক্ত কলম-কাগজ, ফাইলগুলো ড্রয়ারে রাখা যেতে পারে। এতে করে আপনার কাজের টেবিলটি পরিষ্কার থাকবে। তেমনি টেবিলে ছড়িয়ে থাকার চেয়ে ড্রয়ারে গুছানো থাকলে প্রয়োজনের সময় সহজেই খুঁজে পাওয়া যাবে।

নিয়মিত পরিষ্কার

কাজের স্থান নিয়মিত পরিষ্কার পরিচ্ছন্ন রাখলে উৎপাদনশীলতা বাড়ে। এটি ফোকাস এবং দক্ষতা বৃদ্ধির জন্য সহায়ক। অপরদিকে একটি বিশৃঙ্খল বা নোংরা জায়গায় কাজ করতে নিশ্চয়ই কারো ভালো লাগবে না! প্রতিদিন কাজ শুরুর আগে ডেস্ক, কিবোর্ডের ধুলোবালি মুছে নেওয়া যেতে পারে। প্রয়োজনীয় জিনিসপত্র তখন হাতের কাছেই গুছিয়ে নিতে পারেন। ডেস্ক গুছিয়ে রাখার জন্য এবং অপ্রয়োজনীয় সামগ্রী অপসারণ করার জন্য প্রতিদিন বা সপ্তাহে একটা সময় নির্বাচন করতে পারেন।

স্ট্যান্ডিং ডেস্কের ব্যবহার

কর্মক্ষেত্রে দীর্ঘ সময় বসে থাকার ফলে অস্বস্তি সৃষ্টি হতে পারে। এমনকি ব্যথাও অনুভূত হতে পারে। সেক্ষেত্রে কাজের ক্ষেত্রেও প্রভাব ফেলে। সৃষ্টি হতে পারে অমনোযোগিতা। অস্বস্তি নিয়ে শতভাগ ফোকাস করাও সম্ভব নয়। তাই কর্মক্ষেত্রের মাঝে ব্যবহার করতে পারেন স্ট্যান্ডিং ডেস্ক। এতে করে রক্ত চলাচল বাড়ে, পেশী যন্ত্রণা কমে এবং কর্মক্ষমতা বাড়ে। স্ট্যান্ডিং ডেস্ককে কাজ করার সময় কম্পিউটার থাকলে খেয়াল রাখতে হবে সেটি যেন চোখের সমান্তরাল থাকে। পায়ের আরামের জন্য ব্যবহার করতে পারেন মাদুর।

অনুবাদ করেছেন আসিয়া আফরিন চৌধুরী

Comments

The Daily Star  | English

To Europe Via Libya: A voyage fraught with peril

An undocumented Bangladeshi migrant worker choosing to enter Europe from Libya, will almost certainly be held captive by armed militias, tortured, and their families extorted for lakhs of taka.

41m ago