দুর্ঘটনা ও অগ্নিকাণ্ড

বরিশালে পৃথক সড়ক দুর্ঘটনায় নিহত ৫, হাসপাতালে ৪

বরিশাল নগরী ও ঝালকাঠির নলছিটি উপজেলায় পৃথক দুই বাসের সঙ্গে সংঘর্ষে দুটি থ্রি-হুইলারের পাঁচ যাত্রী নিহত হয়েছেন।  
নলছিটি উপজেলার জিরো পয়েন্ট এলাকায় দুই যানবাহনের মুখোমুখি সংঘর্ষ হয়। ছবি: সংগৃহীত

বরিশাল নগরী ও ঝালকাঠির নলছিটি উপজেলায় পৃথক দুই বাসের সঙ্গে সংঘর্ষে দুটি থ্রি-হুইলারের পাঁচ যাত্রী নিহত হয়েছেন।  

এ দুই দুর্ঘটনায় আহত অজ্ঞাত এক নারীসহ চার জনকে বরিশাল শের-ই-বাংলা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।
 
আজ বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় পৃথক দুই দুর্ঘটনা ঘটে বলে জানান নলছিটি ও মহানগর পুলিশের এয়ারপোর্ট থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি)।

নলছিটিতে দুর্ঘটনায় নিহতরা হলেন, থ্রি-হুইলার চালক বরিশাল সদর উপজেলার চরবাড়িয়া গ্রামের খোকন হাওলাদারের ছেলে জসিম হাওলাদার, নলছিটি উপজেলার কাবদেবপুর গ্রামের আজিজ খানের ছেলে রাজিব খান ও একই উপজেলার সুবিদপুর ইউনিয়নের নলবুনিয়া গ্রামের জাহিদুল ইসলামের স্ত্রী সুরভী আক্তার।
 
নলছিটি থানার ওসি মো. মুরাদ আলী জানান, ঢাকা থেকে ছেড়ে আসা বেপারী পরিবহনের একটি বাস কুয়াকাটা যাচ্ছিল। বরিশালের বাকেরগঞ্জ উপজেলা বাসস্ট্যান্ড থেকে পাঁচ যাত্রী নিয়ে থ্রি-হুইলার নগরীর রুপাতলী বাসস্ট্যান্ডের উদ্দেশে যাচ্ছিল। উপজেলার জিরো পয়েন্ট এলাকায় পৌঁছালে দুই যানবাহনের মুখোমুখি সংঘর্ষ হয়। এতে ঘটনাস্থলেই থ্রি-হুইলার চালক জসিম ও যাত্রী রাজিব মারা যান। আহত অবস্থায় চার জনকে বরিশাল শের-ই-বাংলা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়। সেখানে চিকিৎসাধীন অবস্থায় সুরভীর মৃত্যু হয়।

অপরদিকে বরিশাল নগরীর কলসগ্রাম এলাকার সড়ক দুর্ঘটনায় নিহতরা হলেন, বরিশাল সিটি করপোরেশনরে পানি শাখার কর্মী ও বাবুগঞ্জ উপজেলার ছয়মাইল এলাকার আলতাফ হাওলাদারের ছেলে মো. সেন্টু হাওলাদার ও একই উপজেলার রহমতপুর এলাকার যশোধা জীবন লাল দাসের ছেলে ও থ্রি-হুইলার চালক মতি লাল দাস।
 
এয়ারপোর্ট থানার পরিদর্শক (তদন্ত) মো. লোকমান হোসেন জানান, সন্ধ্যায় বাবুগঞ্জ উপজেলার রহমতপুর ব্রিজ থেকে বরিশাল নগরীর রূপাতলী বাস টার্মিনালের উদ্দেশে যাত্রী নিয়ে থ্রি-হুইলার রওনা দেয়। থ্রি-হুইলার বরিশাল-ঢাকা মহাসড়কের কলস গ্রাম এলাকায় পৌঁছালে চাকলাদার পরিবহনের একটি বাস পেছন থেকে ধাক্কা দেয়। এতে থ্রি-হুইলার থেকে ছিটকে পড়ে তিন জন গুরুতর আহত হন। তাদের উদ্ধার করে বরিশাল শের-ই-বাংলা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়। পরে তাদের মধ্যে দুজন মারা যান। একজন হাসপাতালে চিকিৎসাধীন। ঘটনার পর চাকলাদার পরিবহনের বাসটিকে আটক করা হলেও চালকসহ কাউকে আটক করা হয়নি। 

উভয় দুর্ঘটনায় সড়কে যান চলাচল সাময়িক সময়ের জন্য বন্ধ ছিল। তবে সড়ক থেকে দুর্ঘটনা-কবলিত যানবাহন সরিয়ে নিলে যান চলাচল স্বাভাবিক হয়। দুটি ঘটনায় আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হবে বলে জানান দুই থানার ওসি।

Comments