নাটোরে অটোরিকশা চালককে মারধর, এএসআই ক্লোজড

অটোরিকশা চালককে মারধরের একটি ভিডিও ভাইরাল হওয়ার পর নাটোরের সিংড়া থানার সহকারী উপ-পরিদর্শক (এএসআই) সেলিম রেজাকে পুলিশ লাইনসে ক্লোজড করা হয়েছে।

অটোরিকশা চালককে মারধরের একটি ভিডিও ভাইরাল হওয়ার পর নাটোরের সিংড়া থানার সহকারী উপ-পরিদর্শক (এএসআই) সেলিম রেজাকে পুলিশ লাইনসে ক্লোজড করা হয়েছে।

সামাজিক মাধ্যমে মারধরের ভিডিও ক্লিপ ছড়িয়ে পড়ার পর আজ ওই এএসআইর বিরুদ্ধে এই ব্যবস্থা নেন নাটোরের পুলিশ সুপার (এসপি)।

স্থানীয়রা জানায়, বৃহস্পতিবার রাত ১১টার দিকে অটোরিকশা নিয়ে বাড়ি ফিরছিলেন চালক হারুন আলী। পথে উপজেলা পরিষদ রোড এলাকার এএসআই সেলিম রেজা তার অটোরিকশাটি থামায়। এরপর এএসআই সেলিম রেজা, এক পুলিশ কনস্টেবলসহ তিনজন রিকশায় উঠে তাদের সিংড়া বাসস্ট্যান্ডে নিয়ে যেতে বললে অপারগতা প্রকাশ করেন চালক হারুন।

সিসিটিভি ফুটেজ দেখা যায়, এসময় সহকারী উপ-পরিদর্শক সেলিম রেজা তার হাতে থাকা টর্চ লাইট দিয়ে রিকশা চালকের পিঠে আঘাত করেন। এরপর কয়েকবার পিঠে ঘুষিও মারেন। চালকের কান্নায় আশেপাশে থাকা কয়েকজন পথচারী প্রতিবাদ করলে তাদের ওপর উল্টো ক্ষিপ্ত হয়ে উঠেন এএসআই সেলিম।

অটোরিকশা চালক হারুন আলীর বাড়ি সিংড়ার বাইশা গ্রামে। তিনি বলেন, অটোরিকশার মিটারের তারে সমস্যা থাকায় তাড়াহুড়ো করে বাড়ি ফিরছিলাম। গাড়ির সমস্যার কথা বলায় পুলিশ মেরেছে। এরপরও ওদেরকে বাসস্ট্যান্ড পর্যন্ত পৌঁছে দিয়ে এসেছি।

সিংড়া রিকশা চালক সমিতির সাধারণ সম্পাদক জাহাঙ্গীর হোসেন বলেন, 'এটা অত্যন্ত দুঃখজনক ঘটনা। একজন শ্রমিকের গায়ে হাত তোলা ওই পুলিশ সদস্যর উচিত হয়নি। এ বিষয়ে আমরা সমিতির সদস্যদের নিয়ে আলোচনায় বসব।'

বক্তব্য জানতে অভিযুক্ত এএসআই সেলিম রেজার মুঠোফোনে একাধিকবার ফোন করলেও তিনি রিসিভ করেননি।

সিংড়া থানা পুলিশের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আবুল কালাম বলেন, এএসআই সেলিমকে নাটোর পুলিশ লাইনে ক্লোজড করা হয়েছে। ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা তদন্ত করে বিভাগীয় ব্যবস্থা নেবেন।

Comments