নাটোর

স্বতন্ত্র প্রার্থী শফিকের কর্মীদের ওপর নৌকার পলকের সমর্থকদের হামলার অভিযোগ

ওসি মো. আবুল কালাম আজাদ বলেন, ‘দুপক্ষের মধ্যে উত্তেজনা হয়েছিল। হাতাহাতির ঘটনা ঘটেছে, বড় ধরনের কিছু ঘটেনি।’
স্বতন্ত্র প্রার্থীর আহত কর্মীরা। ছবি: সংগৃহীত

নাটোরের সিংড়ায় স্বতন্ত্র প্রার্থী মো. শফিকুল ইসলাম শফিকের কর্মীদের ওপর নৌকার প্রার্থী জুনাইদ আহমেদ পলকের সমর্থকদের হামলার অভিযোগ উঠেছে। এ ঘটনায় ৬ জন আহত হয়েছেন।

বুধবার সন্ধ্যা সাড়ে ৬টার দিকে উপজেলার সাঁতপুকুরিয়া ও ইন্দ্রাসোন গ্রামে এই হামলার ঘটনা ঘটে। এ সময় ছয়টি মোটরসাইকেলও ভাংচুর করা হয়।

হামলায় আহতরা হলেন স্বতন্ত্র প্রার্থীর কর্মী ফারুক হোসেন, জুয়েল মোল্লা, রনি আহমেদ, বাচ্চু মোল্লা, শামীম, সোহান। তাদের সিংড়া উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়েছে।

স্বতন্ত্র প্রার্থী শফিকুল ইসলামের অভিযোগ, নৌকার প্রার্থী পলকের সমর্থকরা তার কর্মীদের ওপর হামলা করেছেন।

শফিকুল ইসলাম বলেন, 'প্রচারণা চালানোর সময় নৌকার প্রার্থী পলকের সমর্থক ইটালী ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান আরিফুল ইসলাম আরিফের নেতৃত্বে ২৫-৩০ জন আমার কর্মীদের ওপর হামলা চালান। এমনকি পুলিশ ঘটনাস্থলে যাওয়ার পরও তাদের উপস্থিতিতে দুজনকে মারধর করা হয়েছে।'

স্বতন্ত্র প্রার্থীর সমর্থক ইটালী ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাবেক সাংগঠনিক সম্পাদক আবু জাহেদ মোল্লা সোহেল বলেন, 'সাঁতপুকুরিয়া ও ইন্দ্রাসোন গ্রামে স্বতন্ত্র প্রার্থীর ঈগল প্রতীকে ভোট চেয়ে গণসংযোগ করছিলাম। তখন নৌকার সমর্থকরা লাঠিসোটা ও দেশীয় অস্ত্র নিয়ে ছয় জনকে জখম করে। পরে স্থানীয়রা আহতদের উদ্ধার করে উপজেলা স্থাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করে।'

হামলার অভিযোগ বিষয়ে জানতে চাইলে জুনাইদ আহমেদ পলক বলেন, কোথাও কোনো নির্বাচনী সংঘর্ষের কথা তিনি জানেন না।

'তবে সাতপুকুরিয়া এলাকায় স্বতন্ত্র প্রার্থী শফিকুল ইসলাম শফিকের সমর্থকরা গ্রামবাসীর সঙ্গে মারামারি করে আহত হয়েছেন', বলেন তিনি।

জানতে চাইলে সিংড়া থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. আবুল কালাম আজাদ বলেন, 'দুপক্ষের মধ্যে উত্তেজনা হয়েছিল। হাতাহাতির ঘটনা ঘটেছে, বড় ধরনের কিছু ঘটেনি। তবে কয়েকটা গাড়ি ভেঙেছে, কয়েকজন আহত হয়েছে। এ ঘটনায় মামলা প্রক্রিয়াধীন।'

 

Comments