সাংবাদিক কাজলের বিরুদ্ধে ভারতে অনুপ্রবেশের মামলা ৬ মাসের জন্য স্থগিত

ফটোসাংবাদিক শফিকুল ইসলাম কাজলের বিরুদ্ধে ভারতে অনুপ্রবেশের অভিযোগে দায়ের করা মামলার বিচার কার্যক্রম ছয় মাসের জন্য স্থগিত করেছেন হাইকোর্ট।
ফটোসাংবাদিক শফিকুল ইসলাম কাজল। ছবি: সংগৃহীত

ফটোসাংবাদিক শফিকুল ইসলাম কাজলের বিরুদ্ধে ভারতে অনুপ্রবেশের অভিযোগে দায়ের করা মামলার বিচার কার্যক্রম ছয় মাসের জন্য স্থগিত করেছেন হাইকোর্ট।

ডেপুটি অ্যাটর্নি জেনারেল সুজিত চ্যাটার্জি বাপ্পী ডেইলি স্টারকে বলেছেন, পাসপোর্ট ছাড়া ভারতে অনুপ্রবেশের অভিযোগে ২০২০ সালের ৩ মে কাজলের বিরুদ্ধে বেনাপোল থানায় মামলাটি করেছিল বাংলাদেশের বর্ডার গার্ড (বিজিবি)।

এর আগে ৫৩ দিন গুম ছিলেন কাজল।

মামলাটির বিচার কার্যক্রম কেন বাতিল করা হবে না জানতে চেয়ে একটি রুলও জারি করেছেন হাইকোর্ট।

মামলাটির বিচার কার্যক্রম বাতিল চেয়ে কাজলের করা আবেদনের পরিপ্রেক্ষিতে বিচারপতি এস এম কুদ্দুস জামান ও বিচারপতি মো. আমিনুল ইসলামের বেঞ্চ রুলসহ এই আদেশ জারি করেন।

কাজলের বিরুদ্ধে আওয়ামী লীগের মাগুরা-১ আসনের সংসদ সদস্য সাইফুজ্জামান শিখর, যুব মহিলা লীগের কেন্দ্রীয় কমিটির সদস্য ওসমান আরা বেলী এবং সুমাইয়া চৌধুরী বন্যা ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে ২০২০ সালের ৯, ১০ ও ১১ মার্চ তিনটি পৃথক মামলা দায়ের করেন।

এসব মামলায় কাজলের বিরুদ্ধে ফেসবুকে মন্ত্রী, সংসদ সদস্য এবং যুব মহিলা লীগের শীর্ষ নেতাদের সম্পর্কে অশালীন, মানহানিকর, আপত্তিকর ও ভুয়া তথ্য প্রচারের অভিযোগ আনা হয়।

কাজল ওই বছরের ১০ মার্চ নিখোঁজ হন। ৫৩ দিন পর ৩ মে বেনাপোল সীমান্ত এলাকা থেকে আটক করার কথা দাবি করে বর্ডার গার্ড বাংলাদেশ (বিজিবি)। একই দিনে তাকে যশোরের একটি আদালত ফৌজদারি দণ্ডবিধির ৫৪ ধারায় গ্রেপ্তার দেখিয়ে হাজতে পাঠায়।

পরবর্তীতে তাকে ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনের তিন মামলায় গ্রেপ্তার দেখানো হয়।

নিম্ন আদালত সাত মাস কাজলের জামিনের আবেদন নামঞ্জুর করেন। পরে ওই বছরের ২৪ নভেম্বর হাইকোর্ট তাকে একটি মামলায় জামিন দেন। অবশেষে হাইকোর্ট ১৭ ডিসেম্বর তাকে অপর দুটি মামলাতেও জামিন দেন।

২০২০ সালের ২৫ ডিসেম্বর কারাগার থেকে মুক্ত হন কাজল।

 

Comments

The Daily Star  | English

Death came draped in smoke

Around 11:30pm, there were murmurs of one death. By then, the fire had been burning for over an hour.

5h ago