বিচিত্র

৪ ভাইবোনের জন্ম যখন একই তারিখে

প্রতি বছর ৬ সেপ্টেম্বর একইসঙ্গে ৩ মেয়ে ও ১ ছেলের জন্মদিন পালন করেন এই দম্পতি। অস্ত্রোপচার কিংবা সিজারিয়ান-সেকশন নয়, তাদের জন্ম হয়েছে প্রাকৃতিকভাবেই।
৪ সন্তানসহ সালিহিন-খাইরুন্নিসা দম্পতি। ছবি: সংগৃহীত

২০১১, ২০১৩, ২০১৫ ও ২০২৩ সালে সিঙ্গাপুরের সালিহিন ও খাইরুন্নিসা দম্পতির ৪ সন্তানের জন্ম। তবে কাকতালীয়ভাবে হলেও সত্যি তাদের সবার জন্মদিন একই মাসের, একই তারিখে।

প্রতি বছর ৬ সেপ্টেম্বর একইসঙ্গে ৩ মেয়ে ও ১ ছেলের জন্মদিন পালন করেন এই দম্পতি। অস্ত্রোপচার কিংবা সিজারিয়ান-সেকশন নয়, তাদের জন্ম হয়েছে প্রাকৃতিকভাবেই।

'আমরা কিন্তু এটা পরিকল্পনা করে করিনি,' বলেন ৪ সন্তানের বাবা সালিহিন আহমাদ পারবাহ (৪৯)। পেশায় তিনি একজন এয়ারক্রাফট টেকনিশিয়ান।

তার স্ত্রী খাইরুন্নিসা আবদুল করিম (৩৯) বলেন, 'একইদিনে ৪ সন্তানের জন্মদিন পালন করতে পারাটাকে আমরা আশীর্বাদ বলে মনে করি।'

তাদের বাবা সালিহিন বলেন, 'সবার জন্ম একই তারিখে হওয়ায় তারিখ তো মনে থাকেই, তার সঙ্গে খরচও বেঁচে যায়। আলাদা আলাদাভাবে জন্মদিন পালন করতে হয়না।'

প্রতি বছর সেপ্টেম্বরের ৬ তারিখ জন্মদিন উপলক্ষে কয়েকটি কেক আনা হয়। প্রত্যেক সন্তানের পছন্দ অনুযায়ী আলাদা অতিথি তালিকা করা হয়। প্রত্যেক সন্তানের নিজস্ব পরিকল্পনা থাকে ও নিজেদের মতো তারা উপহার চেয়ে নেয়।

এই দম্পতি কৃতজ্ঞতা জানান ডা.জাজলান জোসেফের প্রতি। র‍্যাফেলস হসপিটালের এই নবজাতক ও প্রসূতি বিশেষজ্ঞের তত্ত্বাবধানেই পৃথিবীতে এসেছে তাদের সন্তানেরা। তার অসাধারণ সেবা, ধৈর্য ও উৎসাহ প্রদানের ভূয়সী প্রশংসা করেছেন এই দম্পতি।

ডা. জাজলান বলেন, 'একই পরিবারে জন্ম নেওয়া শিশুদের মধ্যে একই জন্ম তারিখ ২ জনের বেশি সন্তানের ক্ষেত্রে দেখা যায়না। বিশেষ করে স্বাভাবিক প্রসবের ক্ষেত্রে তো নয়ই।'

সিজারিয়ান পদ্ধতিতে সন্তান জন্মদানের ক্ষেত্রে এমন পূর্ব পরিকল্পনা করে রাখা যায়, কিন্তু স্বাভাবিক প্রসব হওয়ায় এ সম্পর্কে আগে থেকে অনুমান করা যায় না। কখন সন্তান নেবেন সে পরিকল্পনা দম্পতিরা করতেই পারেন। তবু এমন ঘটনা বিরল।

ডা. জাজলান বলেন, 'মানবশিশু জন্মের ব্যাপারটি জটিল ও অনিশ্চিত। একটি প্রজনন চক্রে স্বত:স্ফূর্তভাবে সন্তান আসার সম্ভাবনা থাকে শতকরা ৩০ ভাগ।

'আমার বিশ্বাস, এপৃথিবীতে এমন গাইনোকোলজিস্ট খুব বেশি নেই যারা গর্বভরে বলতে পারেন যে তারা কোনো পরিবারে দুটির বেশি শিশুকে একই দিনে ভূমিষ্ট করিয়েছেন। এই দুর্লভ সুযোগটি পাওয়ার জন্য আমি খুব খুশি ও কৃতার্থ বোধ করি,' বলেন তিনি।

তথ্যসূত্র: দ্য স্ট্রেইটস টাইম

গ্রন্থনা: মাহমুদ নেওয়াজ জয়

Comments