আসামে গুলিতে ৫ বাঙালি নিহত

চলমান নাগরিকপঞ্জির (এনআরসি) কারণে ভারতের আসাম রাজ্যের বাঙালি অধিবাসীরা যখন চরম চাপের মধ্যে রয়েছেন এমন এক পরিস্থিতিতে সেখানে গতকাল (১ নভেম্বর) গুলি করে হত্যা করা হলো পাঁচ নিরীহ বাঙালিকে।
Assam killing
১ নভেম্বর ২০১৮, আসামে বন্দুকধারীদের গুলিতে নিহত বাঙালিদের মরদেহ নিয়ে পরিবারের আহাজারি। ছবি: সংগৃহীত

চলমান নাগরিকপঞ্জির (এনআরসি) কারণে ভারতের আসাম রাজ্যের বাঙালি অধিবাসীরা যখন চরম চাপের মধ্যে রয়েছেন এমন এক পরিস্থিতিতে সেখানে গতকাল (১ নভেম্বর) গুলি করে হত্যা করা হলো পাঁচ নিরীহ বাঙালিকে।

স্থানীয় সংবাদমাধ্যমগুলো জানায়, রাজ্যের তিনসুকিয়া জেলার ধলার বিছনিমুখে ব্রহ্মপুত্র নদীর তীরে অজ্ঞাতপরিচয় বন্দুকধারীরা বাংলাভাষী পাঁচজনকে ডেকে এনে গুলি করে হত্যা করেছে।

ঘটনার প্রতিবাদে আজ (২ নভেম্বর) ১২ ঘণ্টা তিনসুকিয়া বনধের ডাক দিয়েছে বাঙালি ফেডারেশন। প্রত্যক্ষদর্শীদের বরাত দিয়ে খবরে বলা হয়, গতরাত সাড়ে ৮টার দিকে ডেকে এনে এই হত্যাকাণ্ড ঘটায় ছয় অস্ত্রধারী ব্যক্তি।

বাঙালিদের হত্যার জন্যে রাজ্যের সশস্ত্র সংগঠন ইউনাইটেড লিবারেশন ফ্রন্ট অব আসাম (উলফা)-এর দিকে আঙুল তোলা হলেও বিজ্ঞপ্তি দিয়ে এর দায় অস্বীকার করেছে সংগঠনটি।

খবরে আরও বলা হয়, সশস্ত্র ব্যক্তিরা সেনা পোশাকে এসে দিনমজুর এই নিরীহ বাংলাভাষীদেরকে হত্যা করেছে। নিহতদের মধ্যে শ্যামল বিশ্বাস (৬০), অনন্ত বিশ্বাস (১৮) এবং অবিনাশ বিশ্বাস একই পরিবারের সদস্য। অপর মৃত ব্যক্তিরা হলেন- সুবল দাস (৬০) এবং ধনঞ্জয় নমশূদ্র (২৩)। তারা সবাই একটি দোকানে বসে লুডু খেলছিলেন।

এর আগে, দুর্গা পূজার প্রাক্কালে পানবাজারের শুক্রেশ্বর ঘাটে বিস্ফোরণ ঘটিয়ে চারজনকে আহত করা হয়। সেই ঘটনার দায় স্বীকার করে উলফা বলেছিলো “নাগরিকত্ব সংশোধন বিলের সমর্থনকারী হিন্দু বাঙালিদের বার্তা দিতেই এই নাশকতা।” আর সেই রেশ কাটতে না কাটতেই তিনসুকিয়ার এই হত্যাকাণ্ড।

Comments

The Daily Star  | English

The taste of Royal Tehari House: A Nilkhet heritage

Nestled among the busy bookshops of Nilkhet, Royal Tehari House is a shop that offers students a delectable treat without burning a hole in their pockets.

1h ago