একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনের খুঁটিনাটি

আর কয়েক ঘণ্টা পরই একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনের ভোট গ্রহণ শুরু হবে। এই নির্বাচনে যাবতীয় খুঁটিনাটি তথ্য এক নজরে দেখে নেওয়া যাক:
Election 2018

আর কয়েক ঘণ্টা পরই একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনের ভোট গ্রহণ শুরু হবে। এই নির্বাচনে যাবতীয় খুঁটিনাটি তথ্য এক নজরে দেখে নেওয়া যাক:

তফসিল

প্রধান নির্বাচন কমিশনার নুরুল হুদা ৮ নভেম্বর তফসিল ঘোষণা করেছিলেন। সেই তফসিল অনুযায়ী ভোট গ্রহণের কথা ছিল ২৩ ডিসেম্বর। কিন্তু সব দলের অংশগ্রহণের সুবিধার্থে ১২ নভেম্বর পুনঃ তফসিল করা হয় এবং ভোট গ্রহণের তারিখ ঠিক করা হয় ৩০ ডিসেম্বর।

পুনঃ তফসিল অনুযায়ী ১০ ডিসেম্বর প্রতীক বরাদ্দের পর প্রার্থীরা শুরু করেন প্রচারণা। শুক্রবার সকাল ৮টা পর্যন্ত সেই প্রচারণা চলেছে। এবার ভোট গ্রহণের পালা।

ভোট গ্রহণের সময়

৩০ ডিসেম্বর রোববার সারা দেশের ৩০০ আসনের মধ্যে ২৯৯ টি আসনে সকাল আটটা থেকে বিকেল ৪টা পর্যন্ত ভোট গ্রহণ করা হবে। প্রচারণাচলাকালীন গাইবান্ধা-৩ আসনের ঐক্যফ্রন্টের প্রার্থীর মৃত্যু হওয়ায় এই আসনে ভোট হবে ২৭ জানুয়ারি।

মোট ভোটার কতজন

এবার নির্বাচনে মোট ১০ কোটি ৩৮ লাখ ২৬ হাজার ৮২৩ জন  ভোটার তালিকায় রয়েছেন। এরমধ্যে ৫ কোটি ২৩ লাখ ৭১ হাজার ৬২০ জন পুরুষ; ৫ কোটি ১৪ লাখ ৫৫ হাজার ২০৩ জন নারী।

ভোটকেন্দ্র ও ভোটকক্ষ

সারাদেশে মোট ৪০ হাজার ৫১টি  ভোট কেন্দ্রের ঠিক করা হয়েছে। এসব কেন্দ্রে সবমিলিয়ে ২ লাখ ৫ হাজার ৬৯১টি  ভোটকক্ষ রয়েছে।

ইভিএম

এবার ছয়টি আসনে সব কেন্দ্রে ভোট হবে ইলেক্ট্রনিক ভোটিং মেশিনে (ইভিএম)। দ্বৈবচয়ন ভিত্তিতে ঠিক করা আসনগুলো হলো- ঢাকা-৬, ঢাকা-১৩, চট্টগ্রাম-৯, রংপুর-৩, খুলনা-২ এবং সাতক্ষীরা-২। বাকি ২৯৩ আসনে ব্যালট পেপারের মাধ্যমে পুরনো পদ্ধতিতেই ভোট গ্রহণ করা হবে।

ফল পাওয়া যাবে কোথায়, কীভাবে

ভোট গ্রহণের পর প্রতিটি কেন্দ্রে গণনা শেষে বেসরকারি ফল ঘোষণা করা হবে। সংশ্লিষ্ট প্রিজাইডিং অফিসাররা লিখিত ফলাফল রিটানিং অফিসারের কাছে পাঠাবেন। ঢাকায় নির্বাচন ভবনের ফোয়ারা প্রাঙ্গণে বিশেষ মঞ্চ থেকে আনুষ্ঠানিকভাবে ফল ঘোষণা করা হবে।

ভোটের লড়াইয়ে কতজন

এবার বিভিন্ন দল ও স্বতন্ত্র মিলিয়ে ১৮৬১ জন প্রার্থী নির্বাচনী লড়াইয়ে আছেন। এরমধ্যে রাজনৈতিক দলের মনোনীত প্রার্থী আছেন ১ হাজার ৭৩৩ জন আর স্বতন্ত্র হিসেবে লড়ছেন ১২৮ জন। 

কোন দলের কত প্রার্থী 

ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশ ২৯৮ , আওয়ামী লীগ ২৬১ (নৌকা ২৭৪), বিএনপি ২৭২ (ধানের শীষ ২৯৭), জাতীয় পার্টি ১৭৬ (মহাজোট ২৫), জাকের পার্টি ৯০,  এনপিপি ৭৯, সিপিবি ৭৪, বিএনএফ ৫৭ জন, বাংলাদেশ মুসলীম লীগ ৪৮, বাসদ ৪৫, বিপ্লবী ওয়ার্কার্স পার্টি ২৮, গণফোরাম ২৭ (ধানের শীষ ৭), বিকল্পধারা ২৫ (নৌকা ৩), বাংলাদেশ ইসলামী ফ্রন্ট ২৫, ইসলামী ঐক্যজোট ২৪,  বাংলাদেশ খেলাফত আন্দোলন ২৩, জেএসডি ১৯ (ধানের শীষ ৪), ইসলামিক ফ্রন্ট বাংলাদেশ ১৮, তরিকত ফেডারেশন ১৭ (নৌকা ১), পিডিপি ১৪, গণফ্রন্ট ১৩, খেলাফত মজলিস ১২ (ধানের শীষ ২), জাসদ ১২ (নৌকা ৩), জেপি ১১ (মহাজোট ২), বাংলাদেশ জাতীয় পার্টি ১১, কৃষক শ্রমিক জনতা লীগ ৯ (ধানের শীষ ৪), ন্যাপ ৯, এলডিপি ৮ (ধানের শীষ ৪), ওয়ার্কার্স পার্টি ৮ (নৌকা ৫), জমিয়াতে উলামায়ে ইসলাম ৮ (ধানের শীষ ৩), গণতন্ত্রী পার্টি ৬,  বাংলাদেশ খেলাফত মজলিস ৫,  বাংলাদেশ ন্যাপ ৩, বিজেপি ৩ (ধানের শীষ ১),  কল্যাণ পার্টি ২ (ধানের শীষ ১), মুক্তিজোট ২, বিএমএল ১।

আওয়ামী লীগের নেতৃত্বাধীন  ১৬ দল এবার কয়েকটি আসনে নৌক প্রতীক নিয়ে নির্বাচন করছে। মহাজোটের অন্যতম দল জাতীয় পার্টি নিজেদের লাঙল প্রতীক নিয়ে লড়ছে।

বিএনপির নেতৃত্বাধীন ২০ দলীয় জোট বেশিরভাগ আসনেই ধানের শীষ নিয়ে ভোট করছে। ২০ দলের বাইরেও ঐক্যফ্রন্টের প্রার্থীরাও নির্বাচন করছেন ধানের শীষে।

নির্বাচনে বিভিন্ন প্রক্রিয়ায় যুক্ত যারা

সার্বিক তত্ত্বাবাধনে জেলা পর্যায়ে ৬৬ জন রিটার্নিং অফিসার এবং উপজেলা পর্যায়ে ৫৮২ জন সহকারী রিটার্নিং অফিসার দায়িত্ব পালন করবেন।

তাদের অধীনে ২ লাখ ৭ হাজার ৩১২ জন সহকারী প্রিসাইডিং অফিসার এবং ৪ লাখ ৬২৪ জন পোলিং অফিসার ভোটগ্রহণের সময় যুক্ত থেকে দায়িত্ব পালন করবেন।

কতটা নিরাপত্তা থাকছে

পুলিশ, সেনাবাহিনী, বিজিবি, আনসার, গ্রাম পুলিশ সহ আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর মোট ৬ লাখ ৮ হাজার সদস্য নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে দায়িত্ব পালন করবেন।

কোন বাহিনীর কতজন

পুলিশ (১ লাখ ২১ হাজার),  আনসার (৪ লাখ ৪৬ হাজার), গ্রাম পুলিশ (৪১ হাজার), র্যা ব (১৮ হাজার), বিজিবি (২৯ হাজার ৪৯০), সেনা সদস্য (১২ হাজার ৪২০), নৌবাহিনী (১ হাজার ৪৪০), কোস্টগার্ড (১ হাজার ২৬০) দায়িত্ব পালন করবেন।

বিচারিক ক্ষমতা নিয়ে থাকছেন যারা

সারা দেশে ১ হাজার ৩২৮ জন নির্বাহী হাকিম এবং ৬৪০ জন বিচারিক হাকিম আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সঙ্গে যুক্ত থেকে কাজ করবেন। কোন অপরাধ সংগঠিত হলে তাৎক্ষণিকভাবে বিচার করে শাস্তি দিতে পারবেন তারা। এছাড়াও ১২২টি নির্বাচনী তদন্ত কমিটির ২৪৪ জন সদস্য নানান অভিযোগে খতিয়ে দেখতে কাজ করবেন।

দেশি-বিদেশী পর্যবেক্ষক

৮১টি দেশি পর্যবেক্ষক সংস্থার ২৫ হাজার ৯০০ জন প্রতিনিধি, ৩৮ জন (ফেমবোসা, এএইএ, ওআইসি ও কমনওয়েল্থ থেকে আমন্ত্রিত) বিদেশি পর্যবেক্ষক থাকবেন। এছাড়া বিভিন্ন বিদেশি মিশনের ৬৪ জন কর্মকর্তা ভোট পর্যবেক্ষণে থাকছেন। দূতাবাস ও বিদেশী সংস্থায় কর্মরত আরও ৬১ জন বাংলাদেশিও নজর রাখবেন জাতীয় নির্বাচনের দিকে।

এই ভোটে খরচ কত

এবারের সংসদ নির্বাচনের নানান রকম প্রক্রিয়া সারতে ও আইন শৃঙ্খলা রক্ষায় ৭০০ কোটি টাকার বাজেট অনুমোদন করে নির্বাচন কমিশন।

 

 

 

 

 

 

Comments

The Daily Star  | English

Anontex Loans: Janata in deep trouble as BB digs up scams

Bangladesh Bank has ordered Janata Bank to cancel the Tk 3,359 crore interest waiver facility the lender had allowed to AnonTex Group, after an audit found forgeries and scams involving the loans.

6h ago