শীর্ষ খবর

‘অনুসন্ধান, তদন্ত নির্ধারিত সময়ে সম্পন্ন হচ্ছে না কেনো?’

দুর্নীতি দমন কমিশনের (দুদক) চেয়ারম্যান ইকবাল মাহমুদ বলেছেন, “যেসব কর্মকর্তা ঘুষ খান কিংবা দুর্নীতি করেন, তারা যেমন অসৎ, আবার যারা দায়িত্ব পালন করেন না কিংবা করতে পারেন না, তারাও অসৎ।”
ACC Chairman
২৪ ফেব্রুয়ারি ২০১৯, রাজধানীর দুর্নীতি দমন কমিশন কার্যালয়ে কমিশন কর্মকর্তাদের ভূমি ব্যবস্থাপনা শীর্ষক এক প্রশিক্ষণ কর্মসূচির উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে বক্তব্য রাখছেন কমিশনের চেয়ারম্যান ইকবাল মাহমুদ। ছবি: সংগৃহীত

দুর্নীতি দমন কমিশনের (দুদক) চেয়ারম্যান ইকবাল মাহমুদ বলেছেন, “যেসব কর্মকর্তা ঘুষ খান কিংবা দুর্নীতি করেন, তারা যেমন অসৎ, আবার যারা দায়িত্ব পালন করেন না কিংবা করতে পারেন না, তারাও অসৎ।”

আজ (২৪ ফেব্রুয়ারি) দুদক কার্যালয়ে কমিশন কর্মকর্তাদের ভূমি ব্যবস্থাপনা শীর্ষক এক প্রশিক্ষণ কর্মসূচির উদ্বোধন অনুষ্ঠানে তিনি এ মন্তব্য করেন।

ইকবাল মাহমুদ বলেন, “দুর্নীতি দমন কমিশনের অনুসন্ধান ও তদন্ত পরিপূর্ণভাবে ডকুমেন্ট তথা কাগজ নির্ভর। আবার দুর্নীতি দমন কমিশন আইন অনুসারে অনুসন্ধান বা তদন্ত কাজে কমিশনের বিশেষ ক্ষমতা রয়েছে। যেকোনো ব্যক্তিকে অনুসন্ধান বা তদন্ত সংশ্লিষ্ট তথ্য সরবরাহ করার জন্য আইনি নির্দেশ দেওয়ার ক্ষমতা রয়েছে কমিশনের। তদুপরি কেউ এই নির্দেশ পরিপালন না করলে তার বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করে আইনি প্রক্রিয়ায় কারাদণ্ড বা অর্থদণ্ড বা উভয় দণ্ড প্রদানের বিধানও রয়েছে। তারপরও কেনো কমিশনের অনুসন্ধান বা তদন্ত আইন অনুসারে নির্ধারিত সময়ে সম্পন্ন হচ্ছে না? কেনো কিছু কর্মকর্তা নির্ধারিত সময়ে তদন্ত সংশ্লিষ্ট তথ্য উপাত্ত সংগ্রহ করতে পারছেন না? এর দায়-দায়িত্ব সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তাদেরই নিতে হবে।”

তিনি কর্মকর্তাদের উদ্দেশ্যে বলেন, “নিজে দুর্নীতিমুক্ত না থাকলে এবং চলন-বলন তথা আচরণের উৎকর্ষতা না থাকলে কেউ শ্রদ্ধা করে না। এটাও সকলকে মাথায় রাখতে হবে।”

দুদক চেয়ারম্যান বলেন, “সবাই পদোন্নতি পেতে চান, কিন্তু দায়িত্ব নিতে চান না।”

কমিশন ব্যাপকভাবে পদোন্নতি দিয়েছে জানিয়ে দুদক চেয়ারম্যান বলেন, “এখন সমন্বিতভাবে কাজ করার সময়। কর্মকর্তা-কর্মচারীদের সমন্বিত কাজের মাধ্যমেই প্রতিষ্ঠানের প্রতি মানুষের আস্থা বৃদ্ধি পায়।”

তিনি বলেন, “সময়াবদ্ধ কালের মধ্যে স্ব-স্ব দায়িত্ব পালন না করার ব্যর্থতার জন্য কেউ কেউ হাজার হাজার অজুহাত দেখান। আবার এই প্রতিষ্ঠানেরই অনেক মেধাবী সৎ কর্মকর্তা রয়েছেন যারা নির্ধারিত সময়েই মানসম্পন্ন তদন্ত সম্পন্ন করেছেন। তাহলে যারা ব্যর্থ হচ্ছেন তাদের সম্পর্কে মানুষের ধারণা কী হতে পারে? নিজেরাই নিজেদের মূল্যায়ন করুন।”

উদ্বোধনী অনুষ্ঠানের অন্যান্যের মধ্যে বক্তব্য রাখেন দুদকের মহাপরিচালক (প্রশাসন) মোহাম্মাদ মুনীর চৌধুরী। কমিশনের বিভিন্ন পদমর্যাদার ৩০ কর্মকর্তা এ প্রশিক্ষণ গ্রহণ করছেন।

Comments

The Daily Star  | English

Dhaka denounces US 2023 human rights report

Criticising the recently released US State Department's 2023 Human Rights Report, the foreign ministry today said it is apparent that the report mostly relies on assumptions and unsubstantiated allegations

9m ago