নিজের শেষ বিশ্বকাপে কঠিন চ্যালেঞ্জ দেখছেন মাশরাফি

সংবাদ সম্মেলনে প্রশ্ন ছিল, সম্ভবত এটাই আপনার শেষ বিশ্বকাপ...মাশরাফি মর্তুজা আরেকটু স্পষ্ট করে বললেন, ‘সম্ভবত নয়, এটাই আমার শেষ বিশ্বকাপ।’ তিনি মুখে না বললেও বয়স বিবেচনায় এটা যে তার শেষ বিশ্বকাপ তা নিয়ে কারোরই সংশয় ছিল না। শেষ বিশ্বকাপ তো বটেই, বিশ্বকাপ দিয়ে তার আন্তর্জাতিক ক্রিকেটকে বিদায় জানানোর সম্ভাবনাও জোরালো। এমন উপলক্ষকে রাঙাতে সামনে কঠিন চ্যালেঞ্জ দেখছেন অধিনায়ক।
Mashrafe Mortaza
ছবি: ফিরোজ আহমেদ

সংবাদ সম্মেলনে প্রশ্ন ছিল, সম্ভবত এটাই আপনার শেষ বিশ্বকাপ...মাশরাফি মর্তুজা আরেকটু স্পষ্ট করে বললেন, ‘সম্ভবত নয়, এটাই আমার শেষ বিশ্বকাপ।’ তিনি মুখে না বললেও বয়স বিবেচনায় এটা যে তার শেষ বিশ্বকাপ তা নিয়ে কারোরই সংশয় ছিল না। শেষ বিশ্বকাপ তো বটেই, বিশ্বকাপ দিয়ে তার আন্তর্জাতিক ক্রিকেটকে বিদায় জানানোর সম্ভাবনাও জোরালো। এমন উপলক্ষকে রাঙাতে সামনে কঠিন চ্যালেঞ্জ দেখছেন অধিনায়ক। 

বাংলাদেশ অধিনায়ককে বিশ্বকাপ মিশনে দেশ ছাড়ার আগে অফিসিয়াল সংবাদ সম্মেলনে শুরুতেই নিজের কথাই বলতে হলো। উপলক্ষ বিশেষ, তবে আলাদা কিছু করে চাপ বাড়াতে চাইছেন না। বরং স্বাভাবিক থেকেই করতে চান বড় কিছু,  ‘আলাদা করে তৈরি হওয়ার কিছু নেই। আলাদা করে নিজেকে তৈরি করাটাও একধরনের চাপ। আমার কাছে মনে হয় না আলাদা করে কিছু প্রস্তুতি নিয়েও আমি ওখানে কিছু করতে পারব! সেখানে খেলোয়াড় হিসেবেই পারফর্ম করার চেষ্টা করতে হবে। অবশ্যই অধিনায়কত্বটা সেখানে গুরুত্বপূর্ণ বিষয় হবে। আমার যে দায়িত্বগুলো আছে, সেগুলি ঠিকঠাক করার চেষ্টা করব।’

সব দায়িত্ব ঠিকমতো পালন করলে কতদূর যেতে পারে বাংলাদেশ। অধিনায়ক মনে করছেন টুর্নামেন্টের সংস্করণ কঠিন হওয়ায় সেমিফাইনালে যাওয়াটাই হবে বড় চ্যালেঞ্জ। আপাতত সেই চ্যালেঞ্জ জিততে চাইছেন তারা, ‘এই মুহূর্তে মনে হচ্ছে আমাদের সেমিফাইনালে যাওয়া খুব বড় চ্যালেঞ্জ। এর আগে যেটা বলতাম যে, সেমিফাইনাল গেলে একটা একটা ম্যাচ। এখনো তাই বলতে হচ্ছে। সেমিফাইনালে যদি যেতে পারি, অনেক বড় অর্জন হবে। কারণ এবারের ফরম্যাট সেই ৯২’র মত, যেটা খুব কঠিন। সেমিফাইনালে যাওয়া অনেক বড় অর্জন। আমরা অনেকবার সেমিফাইনাল, কোয়ার্টার ফাইনালে গিয়ে হেরেছি। এবার সেমিফাইনালটা যদি যাই, তাহলে বড় অর্জন হবে। তারপর ঐ নির্দিষ্ট দিনে ভালো খেলা গুরুত্বপূর্ণ।’

দশ দলের বিশ্বকাপে সবাই সবার সঙ্গে খেলবে। ম্যাচ আছে তাই নয়টি। লম্বা টুর্নামেন্ট হওয়ায় আসবে উত্থান পতন। এসব পরিস্থিতি সামলাতে মানসিক দৃঢ়তার বিকল্প দেখছেন না অধিনায়ক, ‘আমার মনে হয় প্রতিটা দল খারাপ ভালো দিয়ে যাবে। এটা খুব গুরুত্বপূর্ণ যে পরের ম্যাচে ঘুরে দাঁড়ানো। এটা নিয়ে আমরা আলোচনাও করেছি। বিশ্বকাপে এক মাসে নয়টা ম্যাচ খেলতে হবে। এখানে প্রতিটা ম্যাচ আমাদের জন্য সমান যাবে না। যেটা ম্যাচ খারাপ যাবে পরের ম্যাচে যেন সেই রেশটা না থাকে। এই প্রস্তুতি নিয়ে কথা বলছি। এটা আসলে মানসিক ব্যাপার। আমাদের আরও কথা বলতে হবে।’

Comments

The Daily Star  | English

Fire breaks out at Kachchi Bhai restaurant on Baily Road

A fire broke out at a branch of Kachchi Bhai restaurant on the first floor of a six-storey commercial building on Baily Road in Dhaka tonight

50m ago