বিশ্বকাপে ফিট রাবাদাকেই পাচ্ছে দ. আফ্রিকা

হালের অন্যতম সেরা পেস বোলার কাগিসো রাবাদা। দক্ষিণ আফ্রিকার অন্যতম ভরসাও বটে। কিন্তু বিশ্বকাপের আগে তার ইনজুরি নিয়ে বেশ ঘাবড়ে গিয়েছিল দলটি। তবে আশার কথা আসর শুরু হওয়ার আগেই তাকে শতভাগ ফিট পাবেন বলেই আশা করছে দক্ষিণ আফ্রিকার ক্রিকেট বোর্ড সিএসএ।
ছবি: এএফপি

হালের অন্যতম সেরা পেস বোলার কাগিসো রাবাদা। দক্ষিণ আফ্রিকার অন্যতম ভরসাও বটে। কিন্তু বিশ্বকাপের আগে তার ইনজুরি নিয়ে বেশ ঘাবড়ে গিয়েছিল দলটি। তবে আশার কথা আসর শুরু হওয়ার আগেই তাকে শতভাগ ফিট পাবেন বলেই আশা করছে দক্ষিণ আফ্রিকার ক্রিকেট বোর্ড সিএসএ।

দিল্লি ক্যাপিটালসের হয়ে ইন্ডিয়ান প্রিমিয়ার লিগে (আইপিএল) খেলতে নেমে ইনজুরিতে পড়েন রাবাদা। এরপর দেশে ফিরে যান তিনি। কমপক্ষে তিন সপ্তাহের জন্য মাঠের বাইরে থাকতে হবে বলেই জানায় দক্ষিণ আফ্রিকান দলের চিকিৎসক মোহাম্মদ মুসাজি, 'রাবাদা পুরোপুরি সেরে উঠতে দুই-তিন সপ্তাহ সময় লাগবে। আমাদের বিশ্বাস, বিশ্বকাপে আমরা তাকে সম্পূর্ণ ফিট ভাবে পাব।'

তবে দুশ্চিন্তা একেবারে উড়িয়ে দেওয়া যাচ্ছে না। তার কারণও জানিয়েছেন মুসাজি, 'তাকে নিয়ে আমরা বিশেষভাবে সতর্ক দুটি কারণে। তার পিঠেও সমস্যা রয়েছে ফলে তাকে নির্দিষ্ট সময় পর্যন্ত মাঠের বাইরে থাকতে হবে। দ্বিতীয়ত, দলের তার গুরুত্ব। তাই আমরা তার পুনর্বাসন প্রক্রিয়া এবং তার খেলায় ফিরে আসার ব্যাপারটা খুব সাবধানতার সঙ্গে করছি।'

শুধু রাবাদাই নন এ মুহূর্তে ইনজুরিতে আছেন ডেল স্টেইন ও লুঙ্গি এনগিডিও। যাদের আইপিএলের মাঝ পথে দেশে ফেরত নেওয়া হয়। তবে বিশ্বকাপের আগে তারাও ফিট হবেন বলে জানিয়েছে দেশটির ক্রিকেট বোর্ড। তবে শেষ পর্যন্ত কাউকে না পাওয়া গেলে বিকল্প ব্যবস্থা করে রেখেছে প্রোটিয়া ক্রিকেট। টিম চিকিৎসক জানালেন এমনটাই, 'নির্বাচকদের হাতে যথেষ্ট খেলোয়াড় আছে, যারা যে কোনো সময় বদলী খেলোয়াড় হিসেবে খেলতে পারবে। সব কিছু বিবেচনা করেই স্ট্যান্ডবাই খেলোয়াড়ের সংখ্যা বৃদ্ধি করা হয়েছে।'

আগামী ২৩ মে পর্যন্ত স্কোয়াড বদলানোর সুযোগ থাকছে দলগুলোর। সেক্ষেত্রে কোন কারণ দর্শাতে হবে না আইসিসিকে। তবে ইনজুরির কারণে যে কোন সময়েই খেলোয়াড় বদলাতে পারবে তারা। তবে কারণ দর্শাতে হবে তখন।

Comments

The Daily Star  | English
Dhaka Airport Third Terminal: 3rd terminal to open partially in October

HSIA’s terminal-3 to open in Oct

The much anticipated third terminal of the Dhaka airport is likely to be fully ready for use in October, enhancing the passenger and cargo handling capacity.

9h ago