বুথ ফেরত সমীক্ষা নিয়ে মমতার ৩ সূত্র আবিষ্কার

বুথ ফেরত সমীক্ষার ফল নিয়ে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় তিনটি কারণ চিহ্নিত করেছেন। এর মধ্যে প্রধান কারণ- এই ধরণের সমীক্ষার ফল প্রকাশ করে দেশজুড়ে একটা হুজুগ তৈরি করা এবং এর মধ্য দিয়ে মানুষর মধ্যে বিশ্বাস তৈরি যে বিজেপি জিতেছে সেই সুযোগ ইভিএম মেশিন পাল্টে দেবে বিজেপি।
Exit Polls
ভারতে জাতীয় নির্বাচন শেষে এখন সবার চোখ ফলাফলের দিকে। ছবি: রয়টার্স ফাইল ফটো

বুথ ফেরত সমীক্ষার ফল নিয়ে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় তিনটি কারণ চিহ্নিত করেছেন। এর মধ্যে প্রধান কারণ- এই ধরণের সমীক্ষার ফল প্রকাশ করে দেশজুড়ে একটা হুজুগ তৈরি করা এবং এর মধ্য দিয়ে মানুষর মধ্যে বিশ্বাস তৈরি যে বিজেপি জিতেছে সেই সুযোগ ইভিএম মেশিন পাল্টে দেবে বিজেপি।

দ্বিতীয় কারণ হলো- বিজেপিবিরোধী জোটের মনোবল ভাঙতে বিজেপির একটা চূড়ান্ত কৌশল এবং শেষ কারণ হচ্ছে- শেয়ারবাজার থেকে টাকা তুলে নেওয়া।

বিজেপির পক্ষে এই সমীক্ষার ফল প্রকাশ করলে শেয়ারবাজার চাঙ্গা হবে এবং মানুষ আবার বিনিয়োগ করবেন আর সেই বিনিয়োগের টাকা তুলে নেবে বিজেপি।

বুথ ফেরত সমীক্ষার ফলাফল নিয়ে কলকাতার গণমাধ্যমের কাছে এমন প্রতিক্রিয়া ব্যক্ত করেছেন রাজ্যটির মুখ্যমন্ত্রী তথা তৃণমূল সভানেত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়।

এর আগে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় নিজের টুইট বার্তায় বলেছেন, এই বুথ ফের সমীক্ষা গুঞ্জন ছাড়া কিছুই নয়। বিরোধীদের ভাঙতে এই ধরণের গালগল্প ছড়ানো হচ্ছে।

সর্বশেষ ২০১৪ সালের লোকসভা নির্বাচনের তৃণমূল কংগ্রেস ৩৪ আসন পেয়েছিলো। এবার সমীক্ষাগুলো আভাস দিচ্ছে তাদের আসন কমে ২০ থেকে ২৬ এ দাঁড়াতে পারে। অন্যদিকে বিজেপি শেষ লোকসভা নির্বাচনে দুটি আসন পেয়েছিলো। সেখানে এবার সমীক্ষার আভাস- তাদের আসন ১১ থেকে ১৬টিতে পৌঁছাতে পারে। প্রায় সব সমীক্ষার আভাস- গতবারের বামদের দুটি আসন এবার হাত ছাড়া হবে। একইভাবে কংগ্রেসের জেতা চার আসনের মধ্যে তারা পেতে পারে মাত্র দুটি।

বিজেপি ২০১৪ সালে ১৭ শতাংশ ভোট পেয়েছিলো আর এবার তারা ৪২ শতাংশ ভোট পাবে বলে সমীক্ষাগুলোতে ইঙ্গিত দিচ্ছে।

আসুন দেখে নেওয়া যাক কোন সমীক্ষক সংস্থা কী আভাস দিয়েছে সর্বশেষ সমীক্ষায়।

যেমন এবিপি-নিয়েলসন বলছে- তৃণমূল ২৪ আসন পেতে পারে, বিজেপির ঝুলিতে যেতে পারে ১৬ আসন কংগ্রেস দুই এবং বামফ্রন্ট শূন্য। টাইমস নাও-ভিএমআর-এর সমীক্ষা বলছে, তৃণমূল পেতে পারে ২৮ আসন, ১১ আসন পেতে পারে বিজেপি, কংগ্রেস পেতে পারে দুই আসন এবং বামফ্রন্ট ১টি।

রিপাবলিক-সি ভোটার পরিচালিত তাদের সমীক্ষা বলছে, মমতার দল তৃণমূল পেতে পারে ২৯ আসন, বিজেপি ১১, কংগ্রেস দুই এবং বামফ্রন্ট শূন্য। ইন্ডিয়া টুডে এবং এক্সিস পোল বলছে- বিজেপি এই রাজ্যে ১৯ থেকে ২২ আসন পেতে পারে, তৃণমূলের ঝুলিতে যেতে পারে ১৯ থেকে ২৩ আসন, কংগ্রেস শূন্য থেকে একটি আসন পেতে পারে এবং বামফ্রন্ট একটি আসনও নাও পেতে পারে।

তবে যে সমীক্ষা নিয়ে সবচেয়ে বেশি আলোচনা হচ্ছে সেগুলো হলো তৃণমূলের সম্ভাব্য জেতা ২৪ আসন কোনগুলো? এবিপি-নিয়েলসন এর উত্তর: জলপাইগুড়ি, রায়গঞ্জ, জঙ্গীপুর, কৃষ্ণনগর, বনগাঁ, ব্যারাকপুর, দমদম, বারাসাত, বসিরহাট, জয়নগর, মথুরাপুর, ডায়মন্ড হারবার, যাদবপুর, কলকাতা দক্ষিণ, কলকাতা উত্তর, উলুবেড়িয়া, শ্রীরামপুর, তমলুক, কাথি, ঘাটাল, বর্ধমান-দূর্গাপুর, বোলপুর, আসানসোল এবং বীরভূম।

অন্যদিকে, এবিপি-নিয়েলসনের হিসাবে যে ১৬ আসনে বিজেপির জয়ের আভাস দেওয়া হয়েছে সেগুলো হলো: কোচবিহার, আলিপুরদুয়ার, দার্জিলিং, বালুরঘাট, মালদা উত্তর, রাণাঘাট, হুগলী, আরামবাগ, ঝাড়গ্রাম, মেদিনীপুর, পুরুলিয়া, বাঁকুড়া, বিষ্ণুপুর, বর্ধমান পূর্ব, হাওড়া, মুর্শিদাবাদ।

আর কংগ্রেসের সম্ভাব্য দুটি আসনের মধ্যে রয়েছে মালদা দক্ষিণ এবং বহরমপুর।

আরও পড়ুন:

পশ্চিমবঙ্গে বিজেপির উত্থানের সম্ভাবনা

বুথ ফেরত জরিপ: ভারতে ফের ক্ষমতায় আসছে বিজেপি

Comments

The Daily Star  | English

Balancing faith and commerce during Ramadan

Effective market management during Ramadan can serve as a model for resolving similar difficulties in the future.

4h ago