মানিকগঞ্জের রৌওশনারা এখন যুক্তরাজ্যের রামসগেট শহরের মেয়র

মানিকগঞ্জের সিংগাইরের মেয়ে রৌওশনারা রহমান (দুলন) এখন যুক্তরাজ্যের রামসগেট শহরের মেয়র।
মানিকগঞ্জের সিংগাইরের মেয়ে রৌওশনারা রহমান

মানিকগঞ্জের সিংগাইরের মেয়ে রৌওশনারা রহমান এখন যুক্তরাজ্যের রামসগেট শহরের মেয়র।

১৯৬৭ সালে ১৩ বছর বয়সে তিনি প্রকৌশলী বাবা রজ্জব আলীর সঙ্গে যুক্তরাজ্যে পাড়ি জমিয়েছিলেন। প্রবাসে জীবনযাপন করলেও নিজের জন্মভূমির টানে প্রায় প্রতিবছরই ছুটে আসেন নিজের জন্ম স্থান সিংগাইর উপজেলার তালেবপুর ইউনিয়নের ইরতা কাশিমপুর (কাঠাল বাগান) গ্রামে।

রৌওশনারা ছিলেন মেধাবী ছাত্রী। ইরতা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে পঞ্চম শ্রেণিতে বৃত্তি পেয়েছিলেন তিনি। স্থানীয় তালেবপুর উচ্চ বিদ্যালয়ে সপ্তম শ্রেণি পর্যন্ত লেখাপড়ার পর প্রকৌশলী বাবা রজ্জব আলীর সঙ্গে চলে যান যুক্তরাজ্যে। সেই থেকে সপরিবারে বসবাস করছেন যুক্তরাজ্যে। এরপর যুক্তরাজ্যেও মেধার স্বাক্ষর রেখেছেন। তিনি সেখানে ব্যারিস্টার ডিগ্রি লাভ করেন। স্বামী রেজাউর রহমানের সঙ্গে তিনি যুক্ত হন হোটেল ব্যবসায়। এরপর আসেন রাজনীতির ময়দানে। রৌওশনারার স্বামীর বাড়ি পিরোজপুরের ভান্ডারিয়া উপজেলায়। তিন বোন ও দুই ভাইয়ের মধ্যে রৌওশনারা সবার বড়।

দুই মাস আগে রৌওশনারার বাবা রজ্জব আলী খান মারা গেছেন। তিনি ছিলেন বুয়েটের প্রথম ব্যাচের ছাত্র। ১৯৬৭ সালে সপরিবারে যুক্তরাজ্যে যান তিনি। এলাকায় দানবীর হিসেবে তার খ্যাতি ছিল। তিনি নিজের জমিতে এলাকাবাসীর জন্য মসজিদ, ঈদগা, রাস্তা এবং বেশকিছু ঘরবাড়ি নির্মাণ করেন। সব সময় অসহায় মানুষের পাশে দাঁড়িয়েছেন তিনি।

বাবার মতোই রৌওশনারাও এলাকায় দরিদ্র মানুষের পাশে দাঁড়িয়েছেন। যুক্তরাজ্যের রামসগেট শহরের নামে নিজ গ্রামে রামস-বাংলা মহিলা উন্নয়ন সংস্থা নামে একটি স্বেচ্ছাসেবী প্রতিষ্ঠান গড়ে তুলেছেন। প্রবাসে থেকেও প্রতিষ্ঠানটির মাধ্যমে তিনি নানাভাবে এলাকার মানুষকে সহায়তা করছেন।

রামস-বাংলা মহিলা উন্নয়ন সংস্থার ম্যানেজার ও রৌওশনারার চাচাতো ভাই আব্দুল মোতালেব হোসেন জানান, সংস্থার মাধ্যমে তিনি দেশে প্রতিবছর বন্যার সময় ত্রাণ, শীতার্তদের মাঝে কম্বল ও ফ্রি-মেডিকেল ক্যাম্পের মাধ্যমে গ্রামের মানুষকে চিকিৎসা সেবা দেন। এছাড়া ব্যক্তিগত খরচে এলাকার অনেক মানুষের চোখের অপারেশন করিয়েছেন রৌওশনারা।

মোতালেব হোসেন জানান, রৌওশনারা রহমানের পেশা ব্যবসা। রামসগেট শহরে ‘তন্দরি’ নামে একটি রেস্টুরেন্টের মালিক তিনি। যুক্তরাজ্যে সক্রিয় রাজনীতি ও ব্যবসার ব্যস্ততা থাকলেও, রৌওশনারা প্রতিবছরই দেশে আসেন। সময় কাটান নিজ গ্রামে। মানবিক কাজের কারণে এলাকার সবাই তাকে ভালোবাসেন।

তিনি আরও বলেন, ২০১৭ সালে যুক্তরাজ্যের লেবার পার্টির এমপি প্রার্থী হিসাবে নির্বাচন করেছিলেন রৌওশনারা রহমান। সামান্য ভোটে সেসময় পরাজিত হন তিনি। এর আগে লেবার পার্টি থেকে কাউন্সিলর নির্বাচিত হয়েছিলেন। সর্বশেষ চলতি বছরের ১৪ মে’র নির্বাচনে বিপুল ভোটে যুক্তরাজ্যের রামসগেট-এর মেয়র নির্বাচিত হন রৌওশনারা।

রৌওশনারার এই জয়ে উৎফুল্ল জন্মস্থান মানিকগঞ্জের সিংগাইরের মানুষ। স্থানীয় তালেবপুর ইউনিয়নের চেয়ারম্যান মো. রমজান আলী জানান, আমাদের এলাকার গর্ব রৌওশনারা যুক্তরাজ্যের রামসগেট শহরের মেয়র নির্বাচিত হয়েছেন। এজন্য আমরা খুবই গর্ববোধ করছি। এলাকার সব মানুষ খুবই উচ্ছ্বসিত।

রৌশনারা রহমান তার প্রতিক্রিয়ায় জানান, দীর্ঘদিন ধরে কমিউনিটির মানুষের জন্য কাজ করে যাচ্ছি। লেবার পার্টি আমার প্রতি আস্থা এবং বিশ্বাস রেখেছিল। এজন্যই আমাকে মনোনয়ন দেয়। শহরের মেয়র নির্বাচিত হতে পেরে আমি খুবই আনন্দিত। এটা খুবই সম্মানের। সবাইকে ঐক্যবদ্ধ করে ভবিষ্যতে মানুষের জন্য আরও কাজ করে যেতে চাই।

তিনি আরও বলেন, নিজের শেকড়ের সঙ্গে সম্পর্ক রাখা প্রত্যেকটি মানুষের জন্য খুবই জরুরি। শত ব্যস্ততার মাঝেও আমি সবসময় আমার দেশ এবং জন্মস্থানকে স্মরণ করি। এজন্যই সুযোগ পেলেই দেশে ফিরে যাই। গ্রামের অসহায় মানুষের জন্য কিছু করতে পারলে আমারও ভালো লাগে।

রৌওশনারা জানান, ভবিষ্যতে ইংল্যান্ডের সঙ্গে বাংলাদেশের সম্পর্ক যেন আরও উন্নত করা যায় সে জন্য তিনি আপ্রাণ চেষ্টা করবেন।

উল্লেখ্য, দেশের ঐতিহ্য তুলে ধরতে রৌওশনারা রহমান প্রায় এক যুগ আগে একটি রিক্সা নিয়ে গিয়েছিলেন লন্ডনে। সেময় বিষয়টি বেশ সাড়া ফেলেছিল। বিটিভির একটি ম্যাগাজিন অনুষ্ঠানে এটি প্রচারিত হয়েছিল।

Comments

The Daily Star  | English

Quota protests: Tensions run high on DU campus

Tensions flared up at the Dhaka University campus last night as hundreds of students stormed out of their dormitories to protest what they said was a “disparaging comment” by Prime Minister Sheikh Hasina earlier in the afternoon

1h ago