বার্মিংহামের দিকেই রওয়ানা দিচ্ছিলেন কোহলিরা!

লিডসে শ্রীলঙ্কাকে হারানোর পরও ভারত ধরে রেখেছিল অস্ট্রেলিয়া তো দক্ষিণ আফ্রিকাকে হারাবেই। তাতে পয়েন্ট টেবিলের একে উঠবে তারাই। সেক্ষেত্রে দুই থাকবে ভারত আর তাদের খেলা পড়বে বার্মিংহামে। কিন্তু পথের মধ্যেই বদলে যায় সমীকরণ। দক্ষিণ আফ্রিকা জিতে যাওয়ায় বার্মিংহামগামী ভারতের বাস ঘুরিয়ে আনতে হয় ম্যানচেস্টারে।
ম্যানচেস্টারে ভারত দল। ছবি: রয়টার্স

লিডসে শ্রীলঙ্কাকে হারানোর পরও ভারত ধরে রেখেছিল অস্ট্রেলিয়া তো দক্ষিণ আফ্রিকাকে হারাবেই। তাতে পয়েন্ট টেবিলের একে উঠবে তারাই। সেক্ষেত্রে দুই থাকবে ভারত আর তাদের খেলা পড়বে বার্মিংহামে। কিন্তু পথের মধ্যেই বদলে যায় সমীকরণ। দক্ষিণ আফ্রিকা জিতে যাওয়ায় বার্মিংহামগামী ভারতের বাস ঘুরিয়ে আনতে হয় ম্যানচেস্টারে।

শনিবার লিগ পর্বের দুই ম্যাচ ছিল একই দিনে। ভারত শ্রীলঙ্কাকে বড় ব্যবধানে হারায় দিনের ম্যাচে। দিবারাত্রির ম্যাচে দক্ষিণ আফ্রিকা-অস্ট্রেলিয়ার খেলা চলার মধ্যেই বার্মিংহামের দিকে রওয়ানা দেওয়ার প্রস্তুতি নেয় ভারতের বাস। কিন্তু খানিকপরই জানা যায় বদলে যাচ্ছে তাদের পথ।

কারণ দক্ষিণ আফ্রিকাকে যে ১০ রানে হারিয়ে দিয়েছে অস্ট্রেলিয়াকে। আর তাতে টেবিল টপ হয়ে গেছে ভারত। কেমন ছিল সে অভিজ্ঞতা? ভারত অধিনায়ক বিরাট কোহলি জানালেন এতে তারা বরং খুশি,  'আমরা খুশি কারণ তিন ঘণ্টার বদলে এটা এক ঘণ্টার ভ্রমণ হয়ে গিয়েছিল। ম্যানচেস্টার আসতে পেরে দারুণ খুশি। কারণ এটা দারুণ শহর।’

যুক্তরাজ্যের মধ্যে সবচেয়ে বেশি ভারতীয় সমর্থকের বাস বার্মিংহাম শহরে। তাদের খেলাও সেখানে থাকে বেশি। কিন্তু এবার ম্যানচেস্টার আসতে পেরেও কোহলিদের স্বস্তির কারণ আছে আরেকটা। সেমিফাইনালে যে সম্ভাব্য সহজ প্রতিপক্ষই পাচ্ছেন তারা। পয়েন্ট টেবিলে দুইয়ে থাকলে বার্মিংহামে মুখোমুখি হতে হতো স্বাগতিক ইংল্যান্ডের। এখন চারে থাকা কিউইদের প্রতিপক্ষ হিসেবে পাচ্ছে ফেভারিট ভারত।

কথায় অবশ্যই প্রতিপক্ষকে একদমই সহজ ভাবতে রাজী নন কোহলি। তবে এইটুকু জানালেন, এমন বড় ম্যাচের আগে দলের সবাই আছেন সেরা অবস্থায়,  ‘মন মেজাজ দারুণ আছে। সবাই ফুরফুরে, আত্মবিশ্বাসী। আর দেখেন সব দলই কঠোর পরিশ্রম করে এই জায়গায় এসেছে, কাজেই নির্দিষ্ট দিনে যারা ভালো খেলবে ফল তাদের পক্ষেই যাবে। ব্যাপারটা এরকমই এখন।’

‘এটা অনেক লম্বা টুর্নামেন্ট, অনেক শ্রম দিতে হয়েছে। অনেক চাপের ম্যাচও গিয়েছে। এবং অবশ্যই অবশ্যই আমরা খুশি সেমিফাইনালে খেলার সুযোগ পেয়েছি। সবাই এই নিয়ে রোমাঞ্চিত আছে।’

Comments

The Daily Star  | English

International Mother Language Day: Languages we may lose soon

Mang Pru Marma, 78, from Kranchipara of Bandarban’s Alikadam upazila, is among the last seven speakers, all of whom are elderly, of Rengmitcha language.

9h ago