মেসিকে তিন মাসের জন্য নিষিদ্ধ করল কনমেবল

কোপা আমেরিকা চলাকালে দক্ষিণ আমেরিকার সর্বোচ্চ ফুটবল নিয়ন্ত্রক সংস্থার (কনমেবল) বিরুদ্ধে দুর্নীতির অভিযোগ তোলায় আন্তর্জাতিক ফুটবল থেকে তিন মাসের জন্য নিষিদ্ধ করা হয়েছে লিওনেল মেসিকে। সেই সঙ্গে ৫০ হাজার ডলার জরিমানাও করা হয়েছে আর্জেন্টিনার তারকা ফরোয়ার্ডকে।
messi
ছবি: রয়টার্স

কোপা আমেরিকা চলাকালে দক্ষিণ আমেরিকার সর্বোচ্চ ফুটবল নিয়ন্ত্রক সংস্থার (কনমেবল) বিরুদ্ধে দুর্নীতির অভিযোগ তোলায় আন্তর্জাতিক ফুটবল থেকে তিন মাসের জন্য নিষিদ্ধ করা হয়েছে লিওনেল মেসিকে। সেই সঙ্গে ৫০ হাজার ডলার জরিমানাও করা হয়েছে আর্জেন্টিনার তারকা ফরোয়ার্ডকে।

গেল মাসে কোপার সেমিফাইনালে স্বাগতিক ব্রাজিলের কাছে হারের পর এবং তৃতীয় স্থান নির্ধারণী ম্যাচে চিলির বিপক্ষে বিতর্কিতভাবে লাল কার্ড দেখার পর কনমেবল এবং এর কর্মকর্তা ও রেফারিদের সমালোচনায় মুখর হয়েছিলেন মেসি। পরে অবশ্য নিজের বক্তব্যের জন্য ক্ষমা চেয়েছিলেন বার্সেলোনা অধিনায়ক।

শুক্রবার (২ আগস্ট) থেকে কার্যকর হওয়া নিষেধাজ্ঞার মেয়াদ শেষ করে আগামী ৩ নভেম্বর আন্তর্জাতিক অঙ্গনে ফিরতে পারবেন মেসি। শাস্তির এই সিদ্ধান্তের বিরুদ্ধে আপিলের জন্য তাকে ও আর্জেন্টাইন ফুটবল অ্যাসোসিয়েশনকে (এএফএ) সময় বেঁধে দিয়েছে কনমেবল। সাত দিনের ভেতরে আপিল করতে হবে।

নিষিদ্ধ হওয়ায় আর্জেন্টিনার হয়ে মোট তিনটি প্রীতি ম্যাচে খেলতে পারবেন না মেসি। আগামী ৫ সেপ্টেম্বর লস অ্যাঞ্জেলসে চিলির মুখোমুখি হবে আলবিসেলেস্তেরা। এর পাঁচ দিন পর সান অ্যান্টোনিওতে তাদের প্রতিপক্ষ মেক্সিকো। আর আগামী ৯ অক্টোবর ডর্টমুন্ডে জার্মানিকে মোকাবেলা করবে আর্জেন্টিনা।

চিলির বিপক্ষে লাল কার্ড দেখায় আগে থেকেই একটি প্রতিযোগিতামূলক ম্যাচে নিষিদ্ধ হয়ে আছেন মেসি। কাতার বিশ্বকাপের দক্ষিণ আমেরিকা অঞ্চলের বাছাইপর্ব শুরু হবে আগামী বছর মার্চে। সেখানে আর্জেন্টিনার প্রথম ম্যাচটিতে খেলতে পারবেন না তিনি।

উল্লেখ্য, কোপার সেমিতে ব্রাজিলের কাছে হেরেছিল আর্জেন্টিনা। সে ম্যাচে দলটির দুটি পেনাল্টির আবেদনে সাড়া দেননি রেফারি। এরপর চিলির বিপক্ষে তৃতীয় স্থান নির্ধারণী ম্যাচে ধাক্কাধাক্কিতে জড়িয়ে সরাসরি লাল কার্ড দেখেছিলেন মেসি ও গ্যারি মেদেল। তবে রেফারির ওই সিদ্ধান্ত নিয়ে প্রশ্ন উঠেছে। আর্জেন্টিনা ম্যাচটা জিতলেও বিতর্কিত লাল কার্ড পাওয়ার প্রতিবাদস্বরূপ পদক নিতে যাননি মেসি। আসরের রেফারিদের ‘দুর্নীতিপরায়ণ’ বলে উল্লেখ করেন তিনি। আর ব্রাজিলের প্রতি ‘পক্ষপাতমূলক’ আচরণের অভিযোগ আনেন কনমেবলের বিরুদ্ধে।

চিলির সঙ্গে ম্যাচ শেষে মেসি বলেছিলেন, ‘কোপা আমেরিকা ব্রাজিলের জন্য পাতানো হয়েছে। আশা করছি, রেফারি ও ভিএআর কোনো প্রভাব বিস্তার করবে না এবং তারা পেরুকে (ফাইনালে) প্রতিযোগিতা করার সুযোগ দেবে। কিন্তু এমনটা হওয়ার সম্ভাবনা নেই।’

Comments