কক্সবাজারে স্বামীর নির্যাতনে স্ত্রীর মৃত্যুর অভিযোগ

কক্সবাজারের উখিয়া উপজেলার রুমখাঁ গোরাচাঁদ মাতব্বর পাড়া গ্রামে সুপ্তি বড়ুয়া (৪০) নামের এক গৃহবধূকে পিটিয়ে হত্যার অভিযোগ পাওয়া গেছে। নিহতের পরিবারের অভিযোগ মাদকাসক্ত স্বামী স্বদেশ বড়ুয়া (৪৫) তার স্ত্রীকে অমানুষিক নির্যাতন চালিয়ে হত্যা করেছেন।
Body Recov
ছবি: স্টার অনলাইন গ্রাফিক্স

কক্সবাজারের উখিয়া উপজেলার রুমখাঁ গোরাচাঁদ মাতব্বর পাড়া গ্রামে সুপ্তি বড়ুয়া (৪০) নামের এক গৃহবধূকে পিটিয়ে হত্যার অভিযোগ পাওয়া গেছে। নিহতের পরিবারের অভিযোগ মাদকাসক্ত স্বামী স্বদেশ বড়ুয়া (৪৫) তার স্ত্রীকে অমানুষিক নির্যাতন চালিয়ে হত্যা করেছেন।

ঘটনাটি গত ৯ আগস্টের। এর পর থেকেই নিহত সুপ্তি বড়ুয়ার স্বামী স্বদেশ বড়ুয়া পলাতক রয়েছেন।

স্থানীয়দের কাছ থেকে জানা যায়, উপজেলার হলদিয়া পালং ইউনিয়নের পুরাতন রুমখাঁ পশ্চিম বড়ুয়া পাড়া গ্রামের মৃত সূর্য্যধন বড়ুয়ার মেয়ে সুপ্তি বড়ুয়ার সঙ্গে রুমখাঁ চৌধুরী পাড়া গোরাচাঁদ মাতব্বর পাড়া গ্রামের চাতুক বড়ুয়ার ছেলে স্বদেশ বড়ুয়ার বিবাহ হয়। তাদের সংসারে দুই ছেলে এক মেয়ে রয়েছে। স্বামী স্বদেশ বড়ুয়া মাদকাসক্ত ছিলেন। প্রায়ই মাদকের টাকার দাবিতে স্ত্রী সুপ্তিকে শারীরিক ও মানুষিক নির্যাতন চালিয়ে আসছিলেন তিনি।

গত ৯ আগস্ট বিকেলে স্বামীর ঘরে নিহত হন স্ত্রী সুপ্তি বড়ুয়া। সে সময় স্বামী স্বদেশ বড়ুয়া সবাইকে জানান যে তার স্ত্রী অভিমান করে আত্মহত্যা করেছেন।

নিহতের ছোট ভাই প্রবাল বড়ুয়া অভিযোগ করে বলেন, “আমার বোনকে অমানুষিক নির্যাতন চালায় স্বামী স্বদেশ বড়ুয়া। নির্যাতনের এক পর্যায়ে বোন অজ্ঞান হয়ে মৃত্যুর কোলে ঢলে পড়লে স্বামী তাকে গলায় ফাঁস দিয়ে ঘরে তালা দিয়ে বাহিরে চলে যায়। ঘটনার তিন-চার ঘণ্টা পর ঘাতক স্বামী নিজেই তার স্ত্রী আত্মহত্যা করেছে বলে অপপ্রচার চালায়।”

খবর পেয়ে উখিয়া থানার পরিদর্শক (তদন্ত) নুরুল ইসলাম মজুমদারের নেতৃত্বে একদল পুলিশ ঘটনাস্থল গিয়ে মরদেহের সুরতহাল রিপোর্ট তৈরি করে ময়নাতদন্তের জন্য কক্সবাজার জেলা সদর হাসপাতাল মর্গে প্রেরণ করে। পুলিশের উপস্থিতি টের পেয়ে স্বদেশ বড়ুয়া ও তার ছেলে আকাশ বড়ুয়া পালিয়ে যান।

খোঁজখবর নিয়ে জানা গেছে, ঘটনার দিন স্বদেশ বড়ুয়া ভিজিএফ কার্ড দিয়ে চাল উত্তোলন করার জন্য ইউনিয়ন পরিষদের উদ্দেশ্যে ঘর থেকে বের হন। পথিমধ্যে মাদক ক্রয় করার জন্য কার্ডটি বিক্রি করে দেন। পরে মদ্যপান করে ঘরে ফিরলে স্ত্রী চাল কোথায় জিজ্ঞাসা করলে তাদের মধ্যে ঝগড়া হয়। এক পর্যায়ে তিনি স্ত্রী সুপ্তি বড়ুয়ার ওপর অমানুষিক নির্যাতন চালান।

প্রবাল বড়ুয়া সাংবাদিকদের বলেন, “আমার বোন আত্মহত্যা করলে কীভাবে ঘরের বাহিরে দরজায় তালা লাগিয়ে দেয়। মূলত ঘাতক স্বামী স্বদেশ বড়ুয়া আমার বোনকে ন্যাক্কারজনকভাবে নির্যাতন চালিয়ে হত্যা করেছে। ঘটনাটি ভিন্নখাতে প্রবাহিত করতে গলায় ফাঁস দিয়ে বাড়ির দরজা তালা লাগিয়ে পালিয়ে যায় সে।”

এ ব্যাপারে তদন্তকারী কর্মকর্তা ফরহাদ হোসেন বলেন, “মরদেহের ময়নাতদন্ত সম্পন্ন করা হয়েছে। ঢাকার মহাখালী হতে ভিসারা রিপোর্ট আসলে ঘটনার আসল রহস্য উদঘাটন করা সম্ভব হবে। থানায় এ বিষয়ে একটি অপমৃত্যুর মামলা দায়ের করা হয়েছে।”

নিহতের পরিবারের দাবী, স্বামী স্বদেশ বড়ুয়াকে গ্রেপ্তার করে রিমান্ডে এনে জিজ্ঞাসাবাদ করলে হত্যাকাণ্ডের রহস্য বের হয়ে আসবে।

Comments

The Daily Star  | English

93pc jobs on merit, 7pc from quotas

Govt issues circular; some quota reform organisers reject it

3h ago