ঈদ স্পেশাল ট্রেনের ২৫ ঘণ্টা বিলম্ব

কখন ছাড়বে ট্রেন জানেন না যাত্রীরা। এমনকি রেলওয়ে কর্মচারী-কর্মকর্তাও জানেন না। রবিবার রাত সাড়ে ৯টায় ট্রেন ছাড়ার শিডিউল ছিলো। কিন্তু সোমবার রাত সাড়ে ৯টায়ও ছেড়ে যায়নি সেটি। এমনটি হয়েছে লালমনিরহাট-ঢাকা ঈদ স্পেশাল ট্রেনে। এতে চরম ভোগান্তি পোহাতে হয়েছে যাত্রীদের।

কখন ছাড়বে ট্রেন জানেন না যাত্রীরা। এমনকি রেলওয়ে কর্মচারী-কর্মকর্তাও জানেন না। রবিবার রাত সাড়ে ৯টায় ট্রেন ছাড়ার শিডিউল ছিলো। কিন্তু সোমবার রাত সাড়ে ৯টায়ও ছেড়ে যায়নি সেটি। এমনটি হয়েছে লালমনিরহাট-ঢাকা ঈদ স্পেশাল ট্রেনে। এতে চরম ভোগান্তি পোহাতে হয়েছে যাত্রীদের।

ট্রেনের এ মহাবিলম্বের প্রতিবাদে সোমবার বিকাল থেকে বিক্ষোভ করেন যাত্রীরা। রেলওয়ে কর্মকর্তা-কর্মচারীরা বিক্ষুব্ধ যাত্রীদের শান্ত করার চেষ্টা করেন, ট্রেন ছেড়ে যাবে বলে প্রতিশ্রুতি দেন। কিন্তু কখন ট্রেন ছাড়বে সেসময় সেটি বলতে পারেননি তারা।

গোলাম মোস্তফা নামে এক ট্রেনযাত্রী গতকাল দ্য ডেইলি স্টারকে জানান, তিনি পরিবার-পরিজন নিয়ে রবিবার রাত ৮টা থেকে লালমনিরহাট স্টেশন প্লাটফর্মে ট্রেনের জন্য অপেক্ষা করছেন। কিন্তু লালমনিরহাট-ঢাকা ঈদ স্পেশাল ট্রেন আর আসে না, ছাড়েও না।

“রবিবার রাত থেকে এক ঘণ্টা, দুই ঘণ্টা পর ট্রেন ছাড়বে শুনে আসছি, কিন্তু অপেক্ষার আর শেষ নেই,” বলেন তিনি।

তিনি আরও বলেন, “ঢাকায় বেসরকারি একটি প্রতিষ্ঠানে চাকরি করি। সোমবার কাজে যোগদানের কথা ছিলো, কিন্তু আমি এখনও লালমনিরহাটে পড়ে আছি। আদৌ ট্রেনে চড়ে ঢাকা যেতে পারবো কী না কে জানে।”

আরেক যাত্রী ট্রেন যাত্রী এনামুল হক প্রামাণিক বলেন, “আমি ঢাকায় সরকারি চাকরি করি। সোমবার অফিসে যাওয়ার কথা ছিলো, কিন্তু ট্রেনের মহাবিলম্বের কারণে ঢাকার পরিবর্তে পড়ে আছি লালমনিরহাটে।”

“বিলম্বের ২৪ ঘণ্টা পেরিয়ে গেলেও মিলেনি ট্রেনের দেখা। এটা রেলওয়ে কর্তৃপক্ষের অবহেলার কারণে হয়েছে,” অভিযোগ করেন তিনি।

“টিকেট কেটেছি ট্রেনে চড়বো রবিবার রাত সাড়ে ৯টায়, কিন্তু সোমবার রাত সাড়ে ৯টাতেও ট্রেনের দেখা পাইনি। ঈদ স্পেশাল ট্রেনের নামে যাত্রীদের স্পেশাল দুর্ভোগ পোহাতে হচ্ছে স্টেশন প্লাটফর্মে,” জানালেন আরেক যাত্রী মহসীন আলী।

তিনি বলেন, “কী যে কষ্টে আছি বলে শেষ করতে পারবো না। এখন দেখছি ট্রেনের কারণে চাকরিটাই হারাতে হবে।”

আশরাফুল ইসলাম বলেন, “রবিবার রাত থেকে স্টেশন প্লাটফর্মে থাকতে থাকতে আমার স্ত্রী অসুস্থ হয়ে পড়েছে। আমিও নার্ভাস হয়ে গেছি। এত বিলম্ব, বিলম্বের শেষ নেই।”

“এত বিলম্বের পরও রেল কর্তৃপক্ষ সঠিক করে বলতে পারছেন না কখন ঈদ স্পেশাল ট্রেনটি লালমনিরহাট থেকে ঢাকার উদ্দেশ্যে রওনা দিবে,” বলেন তিনি।

ঈদ উপলক্ষে পশ্চিমাঞ্চল রেলওয়ের লালমনিরহাট বিভাগীয় রেল কর্তৃপক্ষ লালমনিরহাট-ঢাকা একটি ঈদ স্পেশাল ট্রেন চালু করে। ঈদের আগে পাঁচদিন (৫ থেকে ১০ আগস্ট) ও ঈদের পর পাঁচদিন (১৪ থেকে ১৮ আগস্ট) চলাচলের শিডিউল ঠিক করা হয়।

লালমনিরহাট বিভাগীয় রেলওয়ে ম্যানেজার (ডিআরএম) শফিকুর রহমানের সঙ্গে এ বিষয়ে গতকাল একাধিকবার কথা হয়। কী কারণে ঈদ স্পেশাল ট্রেনের বিলম্ব হচ্ছে, জানতে চাওয়া হলে বিষয়টি এড়িয়ে যান তিনি। কখন ট্রেনটি ছাড়বে সেটিও জানাননি। শুধু আশ্বস্ত করে বলেন, “সোমবার রাতে ঈদ স্পেশাল ট্রেনটি যাত্রীদের নিয়ে লালমনিরহাট থেকে ঢাকার উদ্দেশ্যে রওনা দিবে।”

সর্বশেষ জানা গেছে যে, ২৫ ঘণ্টা বিলম্বের পর গতরাত সাড়ে ১০টার দিকে ঈদ স্পেশাল ট্রেনটি লালমনিরহাট স্টেশন প্লাটফর্ম থেকে ঢাকার উদ্দেশ্যে ছেড়ে গেছে।

এ বিষয়ে শফিকুর রহমান বলেন, “যাত্রাপথে ট্রেনটির ১২ ঘণ্টা বিলম্ব হয়। তাছাড়া ইঞ্জিনের ত্রুটির কারণে অতিরিক্ত আরও ১৩ ঘণ্টা বিলম্ব হয়।”

এস দিলীপ রায়, দ্য ডেইলি স্টারের লালমনিরহাট সংবাদদাতা

Comments

The Daily Star  | English
fire incident in dhaka bailey road

Fire Safety in High-Rise: Owners exploit legal loopholes

Many building owners do not comply with fire safety regulations, taking advantage of conflicting legal definitions of high-rise buildings, according to urban experts.

6h ago