শীর্ষ খবর

বশেমুরবিপ্রবি উপাচার্যকে প্রত্যাহারের সুপারিশ

গোপালগঞ্জের বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের (বশেমুরবিপ্রবি) উপাচার্য খোন্দকার নাসিরউদ্দিনকে প্রত্যাহার করার সুপারিশ করেছে বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরি কমিশনের (ইউজিসি) তদন্ত কমিটি। সেই সঙ্গে তার বিরুদ্ধে ওঠা অনিয়ম, দুর্নীতি ও স্বেচ্ছাচারিতার অভিযোগের বিষয়ে আইনি ব্যবস্থা নেওয়ারও সুপারিশ করা হয়েছে।
বশেমুরবিপ্রবির উপাচার্য খোন্দকার নাসিরউদ্দিন। ছবি সৌজন্য: প্রথম আলো

গোপালগঞ্জের বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের (বশেমুরবিপ্রবি) উপাচার্য খোন্দকার নাসিরউদ্দিনকে প্রত্যাহার করার সুপারিশ করেছে বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরি কমিশনের (ইউজিসি) তদন্ত কমিটি। তার বিরুদ্ধে ওঠা অনিয়ম, দুর্নীতি ও স্বেচ্ছাচারিতার অভিযোগের সত্যতা পাওয়া যাওয়ায় এই ব্যবস্থা নিতে বলেছে তদন্ত কমিটি।

উপাচার্যক নাসিরউদ্দিনকে অপসারণে এক দফা দাবিতে শিক্ষার্থীদের টানা আন্দোলনের মধ্যে ইউজিসির তদন্ত কমিটি এই সুপারিশ করল।

ইউজিসির পাঁচ সদস্যের এই কমিটি প্রতিবেদনটি আজ রোববার সংস্থাটির চেয়ারম্যানের কাছে জমা দেয়।

তদন্ত কমিটির একজন সদস্য নাম প্রকাশ না করার শর্তে দ্য ডেইলি স্টারকে বলেছেন, প্রতিবেদনে উপাচার্য নাসিরুদ্দিনের ব্যাপারে ব্যবস্থা নেওয়ার সুপারিশ করা হয়েছে।

ইউজিসি চেয়ারম্যান অধ্যাপক ড. কাজী শহীদুল্লাহ দ্য ডেইলি স্টারকে বলেন, আজ সকালে অফিসে তিনি ওই তদন্ত প্রতিবেদন হাতে পেয়েছেন।

দুর্নীতি স্বেচ্ছাচারিতা ও শিক্ষার্থীবিরোধী অবস্থানের অভিযোগে গত ১৮ সেপ্টেম্বর থেকে উপাচার্যের অপসারণের দাবিতে অন্দোলন করছেন বিশ্ববিদ্যালয়টির শিক্ষার্থীরা। এর প্রেক্ষিতেই ২৩ সেপ্টেম্বর শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের অনুরোধে পরদিন ইউজিসির সদস্য মুহাম্মদ আলমগীরকে প্রধান করে পাঁচ সদস্যের একটি কমিটি গঠন করা হয়।

আন্দোলন দমন করতে দুর্গা পূজার ছুটি এগিয়ে এনে শিক্ষার্থীদের হল ছাড়ার নির্দেশ দিয়েছিলেন উপাচার্য খোন্দকার নাসিরউদ্দিন। এর পরও আন্দোলন স্তিমিত না হওয়ায় স্থানীয় গ্রামবাসীদের দিয়ে শিক্ষার্থীদের ওপর হামলা করানো হয়। ওই ঘটনায় বেশ কয়েকজন শিক্ষার্থী আহত হন। এর পরও দাবিতে অনড় থেকে আন্দোলন চালিয়ে যান শিক্ষার্থীরা।

খোন্দকার নাসিরউদ্দিনকে অপসারণের জন্য দেশের অন্যান্য বিশ্ববিদ্যালয় থেকেও শিক্ষার্থীরা দাবি তুলেছিলেন।

Comments

The Daily Star  | English