জাতীয় লিগের খেলা হবে মিরপুরেও

দেশের ক্রিকেটের মূল ভেন্যু মিরপুর শেরে বাংলা জাতীয় ক্রিকেট স্টেডিয়াম। কিন্তু আন্তর্জাতিক ঠাসা সূচির কারণে দীর্ঘদিন থেকেই এই মাঠে হয় না দেশের সবচেয়ে বড় প্রথম শ্রেণীর আসর জাতীয় লিগের খেলা। এবার আন্তর্জাতিক সূচিতে মিলেছে ফাঁকা সময় তাই চার বছর পর জাতীয় লিগের খেলা পাচ্ছে মিরপুর।
নতুন রূপে মিরপুর স্টেডিয়াম। ছবি : ফিরোজ আহমেদ।

দেশের ক্রিকেটের মূল ভেন্যু মিরপুর শেরে বাংলা জাতীয় ক্রিকেট স্টেডিয়াম। কিন্তু আন্তর্জাতিক ঠাসা সূচির কারণে দীর্ঘদিন থেকেই এই মাঠে হয় না দেশের সবচেয়ে বড় প্রথম শ্রেণীর আসর জাতীয় লিগের খেলা। এবার আন্তর্জাতিক সূচিতে মিলেছে ফাঁকা সময় তাই চার বছর পর জাতীয় লিগের খেলা পাচ্ছে মিরপুর।

২০১৫ সালে সর্বশেষ জাতীয় লিগের কোন ম্যাচ মাঠে গড়িয়েছিল মিরপুরে। গত বছর ঘরোয়া প্রথম শ্রেণীর আসর বিসিএলের ম্যাচ হয়েছে মিরপুরে, কিন্তু জাতীয় লিগের সময়টায় আর ফাঁকা পাওয়া যাচ্ছিল না এই মাঠ। ১০ অক্টোবর থেকে শুরু হতে যাওয়া ২১তম জাতীয় লিগের খেলা মিরপুরেও থাকছে বলে জানিয়েছেন বিসিবির প্রধান নির্বাহী নিজামউদ্দিন চৌধুরী।

সোমবার জাতীয় লিগের সমন্বয় সভা শেষে নেওয়া হয়েছে বেশ কিছু নীতিগত সিদ্ধান্ত। ঠিক হয়েছে লিগ শুরুর তারিখ। শুরুতে ৫ অক্টোবর থেকে লিগ শুরুর কথা থাকলেও দুই দফা পিছিয়েছে লজিস্টিকস কারণে। ১০ অক্টোবর থেকে শুরু হতে যাওয়া এই আসরের পূর্নাঙ্গ সূচি এখনো প্রকাশ করা হয়নি। জানা গেছে প্রথম রাউন্ডে দ্বিতীয় স্তরের ম্যাচে মাহমুদউল্লাহ রিয়াদের ঢাকা মেট্রো লড়বে তামিম ইকবালের চট্টগ্রাম বিভাগের সঙ্গে।

মিরপুর ছাড়াও এবার খেলা হবে ফতুল্লার খান সাহেব ওসমান আলী স্টেডিয়াম, রাজশাহীর শহীদ কামারুজ্জামান স্টেডিয়াম ও খুলনার শেখ আবু নাসের স্টেডিয়ামে। মাঠে সংস্কার কাজ চলায় এবার ম্যাচ পাচ্ছে না সিলেট আন্তর্জাতিক ক্রিকেট স্টেডিয়াম। খেলা দেওয়া হয়নি চট্টগ্রামের জহুর আহমেদ চৌধুরী স্টেডিয়ামেও।

বরাবরের মতো সব ভেন্যুতেই জাতীয় লিগের খেলা দর্শকরা দেখতে পারবেন বিনামূল্যে। 

যেসব ভেন্যুতে জাতীয় লিগের খেলা দেওয়া হয়, সেসব ভেন্যুর উইকেট নিয়ে প্রায়ই উঠে প্রশ্ন। তবে সোমবারের সভা শেষে বিসিবির প্রধান নির্বাহী জানালেন উইকেট নিয়ে কোন আপত্তি নেই বিভাগীয় সংগঠকদের, ‘উইকেট নিয়ে কথা হয়েছে। আজকের সভায় সংশ্লিষ্ট বিভাগীয় সাধারণ সম্পাদক যারা ছিলেন, তারা বলেছেন যে উইকেট হচ্ছে, তা নিয়ে তারা সন্তুষ্ট। উইকেট নিয়ে প্রশংসাই তারা করছে। গতবার আমরা যে উইকেট দিয়েছিলাম, অংশগ্রহণকারী দলগুলি সন্তুষ্ট ছিল। এবারও সেরকম রাখার চেষ্টা করা হবে।’

উইকেটের মতো খুব একটা হেরফের হচ্ছে না ক্রিকেটারদের ম্যাচ ফিতেও, ‘এ বছরেরটা আমরা আয়োজন করি, এরপর বোর্ডে আলোচনা হবে। ম্যাচ ফি কিছু বাড়ছে- তবে খুব বেশি না। তবে বাড়বে। তবে এই মুহূর্তে প্রকাশ করছি না।’

Comments

The Daily Star  | English

Record job vacancies hurt govt services

More than a quarter of the 19 lakh posts in the civil administration are now vacant mainly due to the authorities’ reluctance to initiate the recruitment process.

10h ago